পনেরোই জুলাই, দু’হাজার সতেরো

je cherche un homme riche pour mariage en tunisie ফ্যাতাড়ু-বজরা ঘোষ

 

এই কাজ কার আমি জানতে চাই?

আমাকে কে একটা গ্রুপে ঢুকিয়েছে তার ইয়া ব্বড় নাম, ‘ব্রহত্তম হিন্দু গ্রুপ, জয় সি রাম, গর্ভের সাতে’। যার কাজই হোক, গর্ভ বিইয়ে তার ভাই হোক। শালা কি জ্বালাতন। হতে পারে আমারই কোনো তিলে খচ্চর বন্দু, আমারই মত, সেরেফ ফাজলামি কোরেচে। সে নাহয় ক্ষমা কল্লুম। কিন্তু সারাদিন নোটিফিকেশন না কি বলে আসচে। আর ত্যাগ কত্তেও মায়া হয়। গব্বের সাতে হেঁদু হচ্চি। কত জানচি। নিউজ, খপর, ঘর পোড়ানো, কুমারি পুজো, গরুর উবকারিতা, মোদির মুরোদ, পাকিস্তান চীন, হনুমানের অশ্বলিঙ্গ, সব গোছা গোছা আসচে।

আপনারা দাদের মলমের হ্যান্ডবিল দেকেচেন? খোস পাচড়া খুজলি হাজা এইসব সারানোর বিজ্ঞাপন? দেকেচেন সবাই। নাম হয় আশ্চয্য মলম। সর্বরোগহর। চামড়ার রোগ দিয়ে শুরু হবে, শেষে বলবে চিকুনগুনিয়া, পাগলামি, জলাতঙ্ক, ক্ষুধামান্দ্য, অম্বল, টাকপড়া, চাম উকুন (অস্থানের চুলে যেসব উকুন হয়) নপুংসকতা সহ নানা রকম অশৈলী রোগ সব সারাবে।

এইসব গ্রুপ গুলো এরকমধারা।

ভোজপুরি সিনেমার বিজ্ঞাপন দিয়ে সুরু হলো, শাড়ি টানাটানি হচ্চে, হেঁদু মা বোনেদের ওপর অত্যাচার, হেঁদুরা ঘরছাড়া, মোচুমানেরা সব দকল করে নিচ্চে। এরপর সেইইই দাদের মলম… আমাদের এগিয়ে আসতে হবে, পালটা ক্যালাও, আগুন লাগাও, গোরুখোরদের পিটিয়ে মারো, কোপাও এবং পাকিস্তানে পাটাও।

সেতো ভাল কতা, এগিয়ে আসতে হবে। আয়। যারা মার খাচ্চে, পালটা মার তারাই দেবে, সেটাই নরমাল। ফেসবুকে হ্যান করেংগা ত্যান ছেঁড়েংগা দের কয়ে দেকুন, আসুন লাটি নিয়ে পোতিরোধ করি মোল্লাদের, তখন সুনবেন কান কটকটাচ্চে, পেট কামড়াচ্চে, আপন মেসোমসাইয়ের মাসিক,ওইদিন সাম্রাজ্যবাদ বিরোদি মিচিল আচে, শালার টেট পরীক্কা, এসব কত্তো অজুহাত। তাচ্চে এই ভাল ফেসবুকে পেচন মারামারি করা যাক। তবে ইদানিং গেরো হয়েচে, একজনকে তুলে নিয়ে গ্যাচে। লালবাজারে। ভদ্দরলোকের ছেলে জেলে ঢুকলে সাইজ হয়ে যায়। বিক্রমকেই দ্যাকো। একন লোকে গাড়ি আস্তে চালাচ্চে, মানে গালফেন্ড আর স্টিয়ারিং দুটো অন্তত একসাতে ঘোরাচ্চেনা। একজনের পোঁদে হুড়ো হলে বাকিরাও চমকায়, আগেই বলেচি ভদ্দোরলোকের বাচ্চা, সন্দ্যেবেলায় হুস্কি খেয়ে মারকসবাদ মারানো ‘হোল’ এগুলো। ভয়ের চোটে আলফাল গুজব আর ভাটের পোস্ট ডিলিট কচ্চে, আরে ম্যাড়া কল্লিই বা কেন, আর তুল্লিই বা ক্যানো?

এবার আপনারা আমায় বলবেন দেসদ্দোহী। আজ্ঞে না। আমি ভারি দেসভক্ত। সবচে বড় দেসপ্পেমিক বংকুদার গপ্পোটা জানেনতো। সবাই জানে, আবার লিকি।

বংকুদা ছেলের নাম রেকেচে পাকিস্তান। লোকে খচে বোম। বললো লজ্জা করেনা, ছেলের নাম রেকেচো পাকিস্তান?! শালা বেইমান, পাকিস্তানে যা। তুই দেশদ্দোহী। বংকুদা সপাটে উত্তর দিয়েচিল মামেগোর দল, আমি সবচে বড় দেসপ্পেমিক যে রোজ রাতে বলতে পারি পাকিস্তানে মা’কে লাগাই, পারবি তোরা বলতে?

নে বল এবার।

গোসাবা মুমিনপুর ফাঁড়ির এক কানা কনস্টেবল রিটায়ার করার পর টিকিটিকি আলমের ঠেকে চুল্লু খেতে আসত। (একবার আলমের তৈরি মালে টিকটিকি পড়েচিল, সে খেয়ে তিনটে মাতাল টপকে যায়, এই থেকে ওই নাম) সে বলেচিল দেক্যন গাঁট ক্রিমিনাল দের পিটিয়ে মেরে চমকে ধমকে কিস্যু হয়না, ওদের অন্য দাওয়াই, আর ভদ্দোরঘরের ক্রিমিনাল দের হড়কে দেওয়া সোজা, মারবেননা, পিটবেননা, ভয় দেকাবেন। অন্য কয়েদিকে ওর সামনে কচি করে ঠুকে দিন, ভয়ের চোটে হেগেই ফেলবে। এরা লিফট আটকে গেলে মুতে ফ্যালে। কলকল করে কপ্পোরেসনের জলের মতো সিকারোক্তি বেরিয়ে পড়বে। তো এইসব ফেসবুকের হেঁদু মোচুমানদের দৌড় জানা হয়ে গ্যাচে। আল্লাতালার গাঁড় মারামারি, নবীর হারেম, কেষ্টর ছোঁকছোঁকানি, দুগগার বেশ্যাবিত্তি, শুয়োরের গু, গরুর হাইড্রোসিল এসব নিয়ে ছবি মারবে, ছড়াবে, এবং ধ্যাড়াবে।

হ্যাঁ বীরপুরুষ ছিল পাঁটা সাহেব। কোন পাঁটা? আরে গোপাল পাঁটা। কি চেহারা কি সাহস। সলিড বডি গুরুর। হেঁদুবীর এরেই কয়। মোচুমানরা কচুকাটা কচ্চে, পাঁটাদা এইসা রামদা নিয়ে বেরিয়ে পল্লো ধম্মো রক্কা কত্তে, ভাগ্যে শালা ফেসবুক ছিলনা তকন। আমি অন্তর থেকে পাঁটাদা সেলাম করি। মার খেয়ে মার দিয়েচে।

সবাই চিনতো, জানতো, খোঁজ রাকতো। এক হাঁক পাল্লে পাড়ায় ১৪৪ ধারা!

সেই যুগ আর নেই। একন পাঁটা আর নেই সবাইকে খাসি করে দিচ্চে সরকার। এইতো, আজ এক বন্দু ফোন করে গালাগাল দিল, আব্বে তুই বজরা শালা নিজের নাম বল নইলে লোকে তোকে চিনবে কিকরে? আমি কইলাম আরে আমার লেকায় চিনবে.. এমন কাজ কোরে যাব সক্কলে একডাকে চিনবে, খুঁজবে।

য্যামন?

য্যামন গোপাল পাঁটা কিংবা আমাদের দাস দা’

কোন দাসদা? আরে আমাদের পাড়ার দাসদা। জন্মেচে তো এট্টা নয় একগাদা দাগ রেকে গ্যাচে। যদ্দিন বেঁচে ছিল লোকে বিসেসত মহিলারা খোঁজ নিয়ে নিয়ে অস্থির।

ধুর শালা খোলসা কর দিকিনি।

কেস আর কিচুই না, খুব খারাপ গপ্পো, ভাল ছেলেরা পড়বেননি। দাসদা কার ক্যালানি খেয়ে সিরিয়াস আহত। মরমর অবস্থা। হাসপাতালে ভত্তি হলো আর, যত রাজ্যের ফোন, দাসদা ক্যামন আচে? দাসদা বাঁচবে তো? দাসদার উন্নতি হচ্চে কি? আর সালা সব ফোন মহিলাদের! ডাক্তার চমকে চোদ্দ! দাসবাবু তো আর কেউকেটা নয়, তার জন্যি দুনিয়ার মেয়েরা খোঁজ নেয় ক্যানো? শেষে দাসদা পটকালো। ডাক্তার পোস্ট মট্টেম কত্রে গিয়ে দেকলো দাসদার ইয়ে মানে বান্টুর সাইজ ১২ ইঞ্চি! আরিব্বাস এতো মিউজিয়ামে দিতে হয়। এ ডায়নামো ঘোড়া দেকলে লজ্জায় বিষম খাবে। উনি মালটা কেটে প্যাকেটে মুড়ে বাড়ি নিয়ে এলেন। ডাক্তারের বৌ বরের ব্যাগ ঘেঁটে পয়সা ঝাড়তে গিয়ে পেলো প্যাকেট, ভাবল গিফট। ডাক্তারবাবু ছুটে এসে বাধা দেওয়ার আগেই তিনি প্যাকেট খুলে ফেলেছেন! মাল মেজেতে পড়ে গড়াতে লাগলো! ডাক্তার গিন্নী আঁতকে উটে বললেন “এমা দাসদা মারা গেলেন”

হেঁদু মোচুমানদের যত সব ধম্মের গ্রুপ আচে, সেকানে যারা ধম্মোযুদ্দ আর জেহাদ মারায়, সবকটার গুহ্যদ্বারে ওই দাসদার ইয়েটা ঢুকিয়ে দিতে হয়। দাঙ্গা থেমে যাবে।

বিসেশ সতর্কীকরণ:
১) রূপা গাংগুলি বলেচে বাড়ির মাগদের পসচিমবঙ্গে পাটালেই ধস্যন হয়ে যাবে, সময়সীমা ১৫ দিন। “তার মদ্যে না হলে আমাকে এসে বলবেন” মানে তার পরেও না হলে উনি সেই ব্যবস্থা কব্বেন? মা বোনেরা সাবদান। একদল রূপাদির কতা সত্য করতেই হবে ভেবে রাস্তায় নামতে পারে, তাদের কুত্তার মত পিটিয়ে মারতে হবে। তৈরি থাকুন।

২) সামনে এসিউসির বন্দ আচে। খুবই ছুঁতমার্গ আচে এঁয়াদের। মাল-ঝোল-প্রেম-যৌনসিক্কা এসব নিয়ে বালক ব্রম্ভচারির মতো জ্ঞান ফ্যান দেয়। সুতরাং আসা করা যায় ওদিন মালের দোকান বন্দ থাকবে। এক্সট্রা স্টক করে রাকুন।

2 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*