বিদ্যুৎবাহন: সুদূর স্বপ্ন না অনিবার্য ভবিষ্যৎ?

সোমদেব ঘোষ

 

ট্যাক্সি-অটোরিকশ-বাস-ট্রেন-ট্রাম-মেট্রো আমাদের দৈনন্দিন জীবনের এক অবিচ্ছেদ্য অংশ। ভারতবর্ষের মতো গরীব দেশে মাথাপিছু নিজস্ব গাড়ি থাকা সম্ভব না। তাই ভাড়াগাড়িই সম্বল। কলকাতা শহরের একসময়কার কালো-হলুদ অ্যাম্বাস্যাডর ট্যাক্সি বা ডবলডেকার বাস, বম্বের ফিয়াট ট্যাক্সি, লন্ডনের কালো ট্যাক্সি, নিউ ইয়র্কের হলুদ ট্যাক্সি শহরগুলোর ব্যক্তিত্বের সঙ্গে কোথাও যেন ওতপ্রোতভাবে জড়িত। ট্যাক্সি-অটোরিকশ-বাস নিয়ে সাহিত্য হয়, গান হয়, সিনেমা হয়। এদের ছাড়া বিংশ-একবিংশ শতাব্দীর জীবন ভাবাই যায় না।

সব ভালোরই খারাপ থাকে। ভাড়াগাড়িরও আছে। মূল সমস্যা দুটো। এক, ট্রেন-ট্রাম-মেট্রো বাদ দিলে প্রায় সব ভাড়াগাড়িই জ্বালানি তেলে চলে। তারা সংখ্যাতেও প্রচুর। ফলে যানজট বাড়ে, আর বাড়ে দূষণ। দুই, ট্যাক্সি বা অটো চালাতে একজন দক্ষ ড্রাইভার বা চালক লাগে। মানুষচালকের দক্ষতার হেরফের ঘটে। মানুষমাত্রেই ভুল হয়। ফলে দুর্ঘটনা ঘটে। অর্থনৈতিক দিক থেকেও একটা ভাড়া গাড়ি চালানোয় ৭৫% খরচা যায় মানুষ চালকের পেছনে। এই দুই সমস্যার কোনও সমাধান হতে পারে কি? দ্বিতীয়টা কি সত্যিই সমস্যা, নাকি তার সমাধান করার প্রচেষ্টাটাই আসল সমস্যা? দেখাই যাক।

প্রথম সমস্যা : জ্বালানি তেল। গাড়ির ইঞ্জিন হল ইন্টার্ন্যাল কম্বাশন ইঞ্জিন, বাংলায় যার নাম অন্তর্দহন ইঞ্জিন। তেল পুড়িয়ে পিস্টন ওঠানামা করিয়ে চাকা ঘোরানো এই ইঞ্জিনের কাজ। এই ইঞ্জিন আবিষ্কারে কার কার অবদান ছিল তা লিখতে গেলে মহাভারত হয়ে যাবে। শুধু এটা জেনে রাখা ভালো যে ১৮০৭ সালে জোসেফ নিসেফর নিয়েপ্স আর তার ভাই ক্লদ সম্ভবত এর প্রথম আবিষ্কর্তা। নিয়েপ্স শুধু ইঞ্জিন আবিষ্কার করেই ক্ষান্ত থাকেননি, কিছু বছর বাদে ক্যামেরায় ছবি তোলার কায়দাও তিনিই বের করেন। অবশ্য আধুনিক সেলফি-পাগলামির জন্য নিয়েপ্সকে দোষ দিলে নিতান্তই অবিচার হবে।

আধুনিক তেলগাড়ির— অর্থাৎ যে গাড়ি ইন্টার্নাল কম্বাশন ইঞ্জিনে চলে— জনক হলেন জার্মান ইঞ্জিনীয়ার কার্ল বেঞ্জ। ১৮৮৫-৮৬ সালে তাঁর মোটরভাগেন নামক তেলগাড়ি পেটেন্ট পায়। রাস্তায় এ গাড়ি টিকবে কিনা, বা আরোহীরা গাড়ি চেপে বেঁচে ফিরবে কিনা, তা পরীক্ষা করতে এগিয়ে আসেন কার্লসাহেবের স্ত্রী বার্থা বেঞ্জ। বেঞ্জ ছাড়াও রুডল্ফ ডিজেল বা গটলীব ডাইমলারের মত আবিষ্কারক তেলগাড়ির বিবর্তনে অবদান রেখে যান।

নতুন প্রযুক্তি, চুন থেকে পান খসলেই গোলমাল, তাই প্রথমদিকের তেলগাড়ি সব হাতেগড়া হত। তাতে দামও হত আকাশছোঁয়া। বিংশ শতাব্দীর প্রথম দিকে আমেরিকায় হেনরি ফোর্ড প্রথম অ্যাসেম্বলি লাইন প্রথায় তেলগাড়ি তৈরি করতে শুরু করলেন। ফোর্ড মডেল টি গাড়ির দাম এক লাফে অনেকটা কমে গেল। এই প্রথম মধ্যবিত্তদের হাতে তেলগাড়ি উঠল। হিসাব করলে দেখা যায়, একটা ফোর্ড মডেল টি গাড়ির দাম তখন ছিল ফোর্ডের কারখানায় কাজ করা কর্মচারীর মাসিক মাইনের মাত্র চারগুণ। এদিকে টাটা ন্যানোর কারখানায় কর্মচারীর মাসমাইনে ১২-১৫,০০০ টাকা। ন্যানোর দাম? ২.৮৩ লাখ। অর্থাৎ প্রায় কুড়িগুণ।

 

cherche femme mariage agadir বাঁদিকে জার্মানির কার্ল বেঞ্জের প্রথম পেটেন্ট করা তেলগাড়ি মোটরভাগেন (১৮৮৬ সাল), ডানদিকে বিশ্বের প্রথম বিদ্যুৎবাহন জার্মানির অ্যান্ড্রেয়াস ফ্লোকেনের ইলেক্ট্রোভাগেন (১৮৮৮ সাল)

ফোর্ড যেমন দাম কমিয়ে সাধারণ মানুষের হাতে তেলগাড়ি তুলে দিলেন, প্রায় একই সময়ে ইংল্যান্ডের চার্লস রোলস আর ফ্রেডরিক রয়েস উল্টোদিকে হাঁটলেন। রোলস-রয়েস কোম্পানীর ফ্যান্টম এবং সিলভার গোস্ট স্ট্যাটাস সিম্বলে পরিণত হল। বহু ভারতীয় মহারাজারা এই গাড়ি চেপে রাজত্ব করতেন। কথায় বলে পাটিয়ালার রাজা ভুপিন্দর সিংয়ের নাকি ২০ খানা রোলস-রয়েস ছিল। কথায় বলে কোনও এক রাজাকে নাকি কালো চামড়া বলে বিলেতের রোলস-রয়েস শোরুম থেকে তাড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল। উল্টে তিনি নাকি সেই শোরুমের সবকটি রোলস-রয়েস কিনে ভারতে ফেরেন।

তেলগাড়ি এসে পড়ায় ঘোড়াগাড়ির যুগ শেষ হয়ে এল। ঘোড়াগাড়ির প্রধান সমস্যা ছিল ঘোড়ার মল। ১৯০৮ সালে নিউ ইয়র্ক শহরে প্রায় ১২০,০০০ ঘোড়া ছিল। প্রতি দিনে সবমিলিয়ে প্রায় ১৩৩০ টন মল জমত। এতে রাস্তাঘাট নোংরা হত, দুর্গন্ধ হত, আর মাছি বসে রোগ ছড়াত। তাই তেলগাড়ি বা ঘোড়াছাড়া ঘোড়াগাড়ি এসে পড়াতে লোকে বেশ খুশিই হয়েছিল। শেষে এই ঘোড়াবিহীন গাড়িই যে এত গোল পাকাবে তখন কে বা জানত।

ঠিক একশো বছর বাদে ২০০৯ সালে এসে হিসেব করলে দেখা যায়, ২০০০ সালের তুলনায় নিউ ইয়র্কের গাড়ির সংখ্যা বেড়েছে প্রায় ১২০,০০০। এবং তার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে যানজট, দূষণ। কলকাতা শহরের আকাশ নীলের চেয়ে ধূসর বেশি, শীতকালে গাছের পাতা সবুজ না ছাইরঙা তা বোঝা দায়। দিন দিন হাঁপানির রুগির সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। এর সঙ্গে বাড়ছে গ্লোবাল ওয়ার্মিং এর প্রকোপ। রক্ষকই ভক্ষক।

দূষণ ছাড়াও আরেকটা সমস্যা আছে। খনিজ তেল জিনিসটা পৃথিবীর সব জায়গায় পাওয়া যায় না। এদিকে গত একশো বছরে পৃথিবীর অর্থনীতি প্রবলভাবে তেলনির্ভর হয়ে পড়েছে। তেল নিয়ে বেশ কয়েকটা যুদ্ধও হয়ে গেছে। যুদ্ধ করতেও তেল লাগে। তাই যেসব দেশে তেল পাওয়া যায়, যেসব দেশ এবং কোম্পানী সেই তেলের ঠিকঠাক বাণিজ্যিক ব্যবহার করতে পারে, সেই বিগ-অয়েল বা তেলনবাবদের ক্ষমতা প্রচুর। সাধে কি আর খনিজ তেলকে কালো সোনা বলা হয়?

সমস্যা আছে যখন, সমাধানও নিশ্চয় যে আছে, এ আশা আমরা করতেই পারি। এর কারণ দুটো। এক, মানুষ আদপে বাঁচতে চায়। নিজের ধ্বংস নিশ্চিত দেখলে সে নিজেকে পাল্টাবেই। দুই, বিজ্ঞান আছে মানুষকে সাহায্য করার জন্য। ১৩৪৬-১৩৫৩ সালে ইওরোপের ব্ল্যাক ডেথ প্লেগের সময় ভগবানের কাছে প্রার্থনা করা ছাড়া মানুষের কিছু করার ছিল না। এখন সময় পাল্টেছে।

জ্বালানি বা খনিজ তেল বদলি কী হতে পারে? সৌরগাড়ি এখনও মূলত পরীক্ষামূলক স্তরেই আছে। হাইড্রোজেন গাড়ির অবস্থাও তথৈবচ। আর পারমাণবিক গাড়ি সম্ভবত ব্যাক টু দ্য ফিউচার সিনেমাতেই একমাত্র দেখতে পাওয়া যায়।

তাহলে উপায়?

১৯৯৭ সালে টয়োটা কোম্পানী প্রিয়াস নামে একটি গাড়ি বাজারে আনে। প্রিয়াস আধুনিক হাইব্রিড গাড়ি। বনেটের তলায় ইন্টার্নাল কম্বাশন ইঞ্জিন ছিল, সুতরাং গাড়ি তেলে চলত। কিন্তু সঙ্গে ছিল ৩০ কিলোওয়াট বা ৪০ হর্সপাওয়ারের বৈদ্যুতিক ইঞ্জিন। সুতরাং তেল ছাড়াও এ গাড়ি চালানো সম্ভব। এর কিছু বছরের মধ্যেই ক্যালিফোর্নিয়ার টেসলা মোটর্স তাদের রোডস্টার মডেলের গাড়ি বাজারে আনে। এ গাড়ি সম্পূর্ণ বৈদ্যুতিক। এর বনেটের তলায় প্রায় ২১০ কিলোওয়াট বা ২৮০ হর্সপাওয়ারের লিথিয়াম-আয়ন ব্যাটারি। একবার পুরো চার্জ করলে এ গাড়ি প্রায় চারশো কিলোমিটার চলে যাবে। বিদ্যুৎবাহনের মধ্যে এখন শ্রেষ্ঠ সম্ভবত টেসলা মডেল এস। ফোর্ডের মডেল টি গাড়ির যোগ্য উত্তরসূরী এই মডেল এস। ৫৮০ কিলোওয়াট বা ৭৮০ হর্সপাওয়ার, একবার চার্জ দিলে ৫০০ কিলোমিটার ড্রাইভ করা যাবে। এর মানে দু’বার চার্জ দিলেই কলকাতা টু দিল্লী। মুশকিল খানিকটা দামে। মডেল এস গাড়ির দাম ৭০-৮০,০০০ ডলার। মানে প্রায় পঞ্চাশ লাখ টাকা। নতুন মডেল থ্রি আসছে, তারও দাম ৩০-৩৫,০০০ ডলার। অর্থাৎ মধ্যবিত্তের নাগালের বাইরেই বলা চলে।

get link বাঁদিকে সৌদি আরবে প্রথম তেলকূপ (১৯৩৮ সাল), ডানদিকে কানাডার অ্যালবার্টাতে টেসলার বিদ্যুৎ চার্জিং স্টেশন (২০১৬ সাল)

নিকোলা টেসলা ছিলেন বৈজ্ঞানিক ও ইনভেন্টার। অল্টারনেটিং কারেন্ট বা এসি ইনিই আবিষ্কার করেছিলেন। পরে বেতারে বিদ্যুৎ পাঠানোর যন্ত্র আবিষ্কার করার চেষ্টা করেন। এনার নামেই ইলন মাস্ক তাঁর বিদ্যুৎবাহন কোম্পানির নাম রেখেছেন। টেসলার মতোই ইলন মাস্ক একজন অত্যন্ত প্রতিভাবান ইনভেন্টার। মার্ভেলের কাল্পনিক সুপারহিরো আয়রনম্যান টোনি স্টার্কের মতোই ইলন মাস্কই হয়তো পারেন পৃথিবীটা বদলে দিতে। সে চেষ্টাও তিনি পুরোদমে করছেন। শুরু করেছেন বিদ্যুৎবাহন দিয়ে। তেলগাড়ি এখন মেরেকেটে সারাজীবনে ২৪০,০০০ কিমি যাওয়ার পরে দেহ রাখে। টেসলার মডেল এস গাড়ির লাইফটাইম প্রায় ৮০০,০০০ কিমি, অর্থাৎ ৩২৫%। টেসলা এবং অন্যান্য বিদ্যুৎবাহন যদি দাম কমাতে পারে, বিদ্যুৎবাহন যদি মধ্যবিত্ত মানুষের নাগালের মধ্যে আসতে পারে, তাহলে এক বিপ্লব আসলেও আসতে পারে। ভলভো কোম্পানি ২০১৯ সাল থেকে আর শুধু তেল-ইঞ্জিন গাড়ি তৈরী করবে না বলে দিয়েছে। বৃটেনের সরকার বলেছে ২০৪০ সালের মধ্যে সব গাড়িই বিদ্যুৎবাহন হয়ে যাবে।

খনিজ তেলের গাড়ি উঠে গেলে কয়েক দশকের মধ্যেই আকাশের নীল রঙ ফিরে আসবে। কয়েক বছরের মধ্যেই শীতকালেও গাছের পাতার সবুজ রঙ ফের দেখা যাবে। পেট্রল পাম্পের বদলে চার্জিং স্টেশন বসবে। মাঝরাতে ভয়ানক আওয়াজ করা মোটরবাইক বা অফিসটাইমে লাখখানেক গাড়ির ইঞ্জিনের গোঁগোঁ থেমে যাবে। শহর শান্ত হবে, নিঃশব্দ হবে। দূষণের মাত্রা যত কমবে গ্লোবাল ওয়ার্মিং-এর ভয় তত কমবে। মানুষও হাঁপানির হাত থেকে বাঁচবে। মানুষের চলৎশক্তি আর মুষ্টিমেয় কিছু মানুষ, কোম্পানি বা দেশের হাতে থাকবে না। এনার্জি হয়তো সত্যিই ডেমোক্র্যাটিক হবে।

অবশ্য যদি বিগ-অয়েল এসব হতে দেয়।

তাও বলব, প্রযুক্তি হুটহাট প্রচণ্ডভাবে বদলাতেই পারে। একে ডিসরাপশান বলে। যত চেষ্টাই করা হোক না কেন, যত শক্তিমান লোক বা সংস্থাই এর বিরুদ্ধে লড়ুক না কেন, সেরকম সাংঘাতিক প্রযুক্তিগত ডিসরাপশন এলে সবই খড়কুটোর মতো ভেসে যায়। সেথ মিলার নামে এক মার্কিন বৈজ্ঞানিক এ নিয়ে হালে লেখালেখি করেছেন। তাতে উনি কোডাক কোম্পানির ফিল্ম ক্যামেরার একটা উদাহরণ দিয়েছেন। ১৯৯৮ সাল নাগাদ যখন ডিজিটাল ক্যামেরা বাজারে আসতে শুরু করেছে, তখনও ফিল্ম ক্যামেরার রমরমা, কোডাক কোম্পানির শেয়ার তুঙ্গে। ডিজিটাল ক্যামেরাই যে ভবিষ্যতে সবাই ব্যবহার করবে, কোডাক কোনওভাবেই এ কথা বিশ্বাস করতে পারেনি। ফলে মাত্র সাত বছরের মধ্যে, ২০০৫ সালে কোডাক কোম্পানি লালবাতি জ্বেলে বসেছে, ডিজিটাল ক্যামেরার মার্কেট শেয়ার প্রায় সেন্ট পার্সেন্ট। এটা ডিসরাপশান। প্রায় একশো বছরের ফিল্ম ক্যামেরা প্রযুক্তি সাত বছরে ইতিহাসের পাতায় চলে গেল। প্রশ্ন হল, তেলগাড়ির ক্ষেত্রেও কি এরকম ডিসরাপশান সম্ভব?

এর উত্তর দেওয়া সত্যিই মুশকিল। মিলারের মতো কিছু লোক মনে করেন যে হ্যাঁ, শুধুমাত্র অর্থনৈতিক দিক থেকে চিন্তা করলে তেলগাড়ি এবং তেলকেউকেটাদের দিন ঘনিয়ে এসেছে। ২০২৫ সালের মধ্যেই নাকি বিদ্যুৎবাহনের সংখ্যা তেলগাড়িকে ছাড়িয়ে যাবে। ২০৪০ সালের মধ্যে বড় বড় তেলের কোম্পানিগুলো ব্যবসা গুটিয়ে তুলতে বাধ্য হবে। মুশকিল হল, মিলারদের বিশ্লেষণ একটু বেশিই পশ্চিমদেশ ঘেঁষা। ভারতবর্ষ বা চীনের মতো প্রাচ্যের দেশের জন্য তাঁদের বিশ্লেষণ কতটা খাটবে তা নিয়ে সন্দেহের অবকাশ আছে।

তবে কী, আমরা চাইব যে মিলারের কথাই ঠিক হোক। আমরা চাইব মাস্ক যেন আরও ভাল টেসলা গাড়ি তৈরি করতে পারেন। আমরা চাইব নীল আকাশ সবুজ পাতা দেখতে। কে যেন একটা বলেছিল, এ পৃথিবীটা আমরা বাবা-মা’দের কাছ থেকে উপহার হিসাবে নয়, আমাদের সন্তানদের কাছ থেকে ধার হিসাবে নিয়েছি। একটু ঠিকঠাক করে দেওয়াটাই বোধহয় মানুষের মতো কাজ হবে।

opcje binarne vs forex বাঁদিকে মার্কিন টিভির ধারাবাহিক নাইট রাইডারে কাল্পনিক নকলবুদ্ধি আপনবাহন কিট (K.I.T.T.) (১৯৮২ সাল), ডানদিকে আমেরিকার পিটসবার্গ শহরে বাস্তব নকলবুদ্ধি আপনবাহন উবের গাড়ি (২০১৬ সাল)

এত গেল প্রথম সমস্যার কথা। বিদ্যুৎবাহন যদি সত্যিই আসে, তা কি মানুষই চালাবে? পাঁচ বছর আগে হলেও হয়ত এর উত্তরে “হ্যাঁ” ছাড়া কিছু বলার কোনও মানে থাকত না। কিন্তু এই ২০১৭ সালে গুগলের ডীপ মাইন্ড বা ফেসবুকের ফেয়ার প্রজেক্ট এ-আই বা আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স বা নকলবুদ্ধি নিয়ে যা কাজ করেছে, তাতে নকলবুদ্ধি আদপে সম্ভব কিনা সে আলোচনা অতীত। সম্ভব শুধু নয়, সে দিন দিন আরও বুদ্ধিমান হচ্ছে। মেডিকাল ডায়গনসিসে নকলবুদ্ধিকে কাজে লাগানো শুরু হয়েছে। ড্রোন, সে মিলিটারি হোক কি প্রাইভেট, এখন নকলবুদ্ধিতেই চলে। এমনকি নকলবুদ্ধি আজকাল গাড়িও চালানো শিখছে। আমেরিকার পিটসবার্গ, ফিনিক্স আর বস্টন, সিঙ্গাপুর, দুবাই আর চীনের উজেন শহরে এই আপনবাহন গাড়ির পরীক্ষা চলছে। অবশ্য আমেরিকার আপাত শান্ত ছোটখাট শহরে অ্যাক্সিডেন্ট না করে গাড়ি চালানো আর কলকাতা বা চেন্নাই শহরে একই জিনিস করতে পারার মধ্যে অনেক ফারাক আছে। মানুষচালিত গাড়ি অ্যাক্সিডেন্ট করলে লোকে ড্রাইভারকে কলার ধরে টেনে নামিয়ে কয়েক ঘা দিয়ে পুলিশে দেয়। নকলবুদ্ধি ভুল করলে সেটা কার দায়িত্ব?

মিলারের মতে, আপনবাহন বা ড্রাইভারলেস গাড়ি যদি সত্যিই আসে তাহলে নিজস্ব গাড়ি রাখার আর কোনও প্রয়োজন থাকবে না। থাকবে শুধু পাব্লিক ট্রান্সপোর্ট— চালাকবাস— বা উবেরের মতো অ্যাপচালিত আপনবাহন। কিন্তু তাতে ভারতবর্ষের গ্রামের মানুষ— যাঁরা মোবাইল ব্যবহার করতেও ভাল করে শেখেনি, যাদের ঘরে এই ২০১৭ সালেও বিদ্যুৎ নেই, তাদের কী হাল হবে, সেটা বলাই বাহুল্য। ভেবে দেখুন, নদীয়ার প্রত্যন্ত অঞ্চলের কোনও গ্রামের মানুষ রানাঘাটে যাওযার চালাকবাসে ওঠার চেষ্টা করছেন, কিন্তু নকলবুদ্ধি কন্ডাক্টরকে কীভাবে ভাড়া দেবে বুঝে উঠতে পারছে না।

নকলবুদ্ধি কীভাবে এল, তার বুদ্ধি কীভাবে বাড়ানো হচ্ছে, নকলবুদ্ধি একদিন গাড়ির স্টিয়ারিং থেকে মানুষচালককে হটাতে পারবে কিনা, আপনবাহন গাড়ি বা ড্রাইভারলেস গাড়িই আমাদের ভবিষ্যৎ কিনা, নকলবুদ্ধি কোনওদিনও টার্মিনেটর সিনেমার স্কাইনেট গোছের উঠতে পারবে কিনা, এসব বিস্তারিত আলোচনা না হয় পরে কখনও হবে। হয়তো ভবিষ্যতই বলে দেবে। বলা যায় না, কোন্ কোম্পানির প্রফিট মার্জিন বাড়াতে হয়তো পুরুলিয়ার গ্রামে দুম করে আলো পাখা চলে উঠল, দোরগোড়ায় চলে এল চালাকবাস। কিসের মূল্যে? ভবিষ্যৎই বলে দিক।

 

হেডার ছবি : বর্তমান বনাম ভবিষ্যত– একদিকে পেট্রল পাম্প, অন্যদিকে বিদ্যুৎ চার্জিং স্টেশন

ছবিসূত্র : https://electrek.co/2017/06/05/electric-cars-cleaner-than-gas-powered/

https://www.daimler.com/company/tradition/company-history/1885-1886.html

http://blog.world-mysteries.com/science/127-years-of-modern-automobile-evolution/

https://en.m.wikipedia.org/wiki/History_of_the_oil_industry_in_Saudi_Arabia

http://www.cbc.ca/news/canada/calgary/tesla-charging-station-fort-macleod-1.3916681

http://www.cartalk.com/blogs/bestride/kitt-back-%E2%80%9Cknight-rider-heroes%E2%80%9D

http://woodtv.com/2016/09/14/uber-gives-riders-a-preview-of-the-driverless-future/

 

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*