সরদার ফারুক

তিনটি কবিতা

 

একটি কদর্য কবিতা

ভালোবাসা ছাড়া কাউকেই ছুঁয়ে দেখবো না ভেবে
খসে গেলো ভবঘুরে পায়ের আঙুল
মেয়াদ-উত্তীর্ণ নারী খসখসে স্বরে বলে-
‘কবিদের আজকাল কেউ…’
অন্ধকারে যাই। প্রবীণ বৃক্ষের মহান ছায়াটি
আমাকে অভয় দিলে পাশে গিয়ে বসি
লজ্জার কপাট খুলে বলি, ‘স্যার, ন্যায্যমূল্যে কোথাও কি
ভদ্র যোনি পাওয়া যেতে পারে?’

 

 

তাসের খেলায়

খড়িমাটি মুছে গেছে, দেয়ালের গায়ে
ঢেঁড়া দাগ
ফেরিওয়ালাদের ডাক শোনা গেলে
জানালায় কারা চোখ রাখে?
কলতলা জুড়ে
স্নানের মহড়া, ঝুলে-পড়া উপাঙ্গের
পরাজিত ভাব
কখনো জ্বরের ঘোরে আচারের স্বাদ
তাসের খেলায় প্রতিবার
বোকা হয়েছিলে?

 

 

কফিন

দরোজায় শুয়ে আছে নতুন কফিন
আমারও ফুরিয়ে এলো দিন?
কু-ডাক ডাকছে কালো পাখি
কার কাছে রাখি
যৌবনের স্বপ্ন আর টুটাফাটা জামা?
অনেক তো চলা হলো, এইবার থামা!
পায়ের শিরায় টান, চোখেও বিষাদ
কেমন মৃগয়া ছিলো, আহত নিষাদ?

যারা আগে চলে গেলো, যারা যাবে পিছে
যাদের দেখেছি এই আকাশের নিচে
কারো হাতে হাতিয়ার, কারো হাতে বাঁশি
কেউ-বা চিনেছে সুঁই, ওষুধের শিশি
কার চোখে ভালোবাসা, কার চোখে ঘৃণা
আমি কি বুঝেছি সব, বলতে পারি না
আগুনকে কাছে টেনে ভেবেছি কুসুম?
অনিদ্রার শেষে আসে গাঢ় এক ঘুম



About Char Number Platform 106 Articles
ইন্টারনেটের নতুন কাগজ

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*