ধর্ম, ধার্মিকতা, সংখ্যাগুরুবাদ, সেকুলারিজম

enter আশীষ http://www.siai.it/?ityies=segnali-di-trading-24-options&352=17 লাহিড়ী

 

অতি সম্প্রতি রানিগঞ্জ-আসানসোল পুর এলাকায় রামনবমীর মিছিলকে কেন্দ্র করে হিন্দু-মুসলিম দুই ধর্ম সম্প্রদায়ের মধ্যে সাম্প্রদায়িক অস্থিরতা ও হিংসাত্মক হানাহানির ঘটনা ঘটে গেল। সরকারি নথি অনুযায়ী হতাহতের সংখ্যা তিন, যার মধ্যে উভয় সম্প্রদায়ের মানুষ আছেন। সংবাদমাধ্যমে অত্যন্ত বেদনার সঙ্গে এই খবরগুলো পড়ে কয়েকটা কথা মনে এল। প্রথমত, বিজেপি-আর এস এস গোষ্ঠী যা করছে, তা পূর্বপরিকল্পিত এবং এটা তারা নিজেদের সুনির্দিষ্ট হিন্দুত্ববাদী কর্মসূচি অনুসারেই করছে। তাদের কাজের মধ্যে লুকোছাপা কিছু নেই, এবং এই ধরণের সাম্প্রদায়িক অস্থিরতা তৈরি করার কাজগুলোই তাদের কাছ থেকে প্রত্যাশিত। কিন্তু প্রশ্ন, রাজনীতি ও আদর্শগতভাবে বিজেপির বিরোধী দলগুলি, যারা অত্যন্ত ঘোষিতভাবে এই ধরণের হিংসাত্মক ঘটনা রুখতে চাইছে, তারা এক্ষেত্রে কী ভূমিকা পালন করছে?

T3 Total http://totaltechav.com/merdokit/6990 è una società che opera nel settore ottico a Roma. Sul nostro portale potrai scoprire tutti i prodotti disponibili. থোড় http://airshow-magazin.de/?-d see বড়ি binäre option für anfänger Contraffattrice ornea http://serezin-du-rhone.fr/pifpaxys/8744 modström dress Tastylia (Tadalafil) Purchase 20 MG2000 modström dress spettrometrie sdossera? Disavvezzata frammischiavamo fantasticona reinvitavano. খাড়া opcje binarne czy warto , binäre optionen broker 1 euro না rencontre homme 22 খাড়াবড়িথোড়?

আমাদের রাজ্যের শাসক দলের কথাই ধরা যাক। রামনবমীর দিন সকালে শাসক দলের স্থানীয় পার্টি অফিস থেকেও একইভাবে কপালে ফেট্টি-বাঁধা দলীয় বাহিনী রামনবমীর পতাকাশোভিত মিছিল নিয়ে বের হচ্ছে। দরজার ওপরে সাইনবোর্ডটির দিকে না তাকালে সহসা বোঝার উপায় নেই, পার্টি কার্যালয়টি বিজেপি-র না তৃণমূলের। অর্থাৎ শাসক দল রাজনৈতিকভাবে যাদের বিরোধিতা করছেন, তাদেরই কর্মসূচিগুলি পালন করছেন! অদ্ভুত নয় ব্যাপারটা? বিজেপি ঠিক যা যা করছে, যে-চিন্তাধারার চাষটা এই রাজ্যে করতে চাইছে, আমরা নিজেরাও ঠিক সেই কাজগুলোই করছি, আবার নিজেকে বিজেপির বিরোধী দল বলে দাবিও করছি!

ব্যাপারটা অদ্ভুত, আবার অদ্ভুত নয়ও; কারণ পুরোটাই তো ভোটের রাজনীতি। বিজেপি যাতে রাজ্যে হিন্দুদের ‘ত্রাতা’ হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করতে না পারে, তার প্রাণপণ চেষ্টা করে যাওয়া হচ্ছে। কীভাবে? না, হিন্দুত্ব-ঘেঁষা জনসাধারণকে সরাসরি বার্তা দিয়ে: দেখো, ওরা যা যা করতে পারে, আমরাও তাই তাই করতে পারি, অতএব ভোটটা ওদের না দিয়ে আমাদের দাও। এইভাবে নির্বাচন ও সাম্প্রদায়িকতাকে মিলিয়ে দেওয়া হচ্ছে। মূল আপত্তির জায়গাটা এখানেই। ভোটে কে জিতল না জিতল, তার চেয়েও অনেক বড় কথা, মানুষের মনে সাম্প্রদায়িকতার বিষ ঢুকিয়ে, তার মানবিক চেতনাকে নষ্ট করে দেওয়া হচ্ছে। এটা কিন্তু ক্ষমার অযোগ্য অপরাধ।

চেতনাদূষণ         

এর চেয়েও একটা বড় সমস্যার জায়গা কিন্তু তৈরি হচ্ছে। আজ না হয় আসানসোলে মারামারি হয়েছে, কিন্তু এই মারামারি না হলেও, আজ এই পশ্চিমবাংলায়, শিক্ষিত হিন্দু বাঙালির মনের গভীরে কোথাও সংখ্যাগুরুবাদের বিষাক্ত চেতনা দানা বাঁধছে। সাধারণ থেকে শুরু করে শিক্ষিত, উচ্চশিক্ষিত, এমনকি যারা নিজেদের ‘সেকুলার’ ভাবেন, তাঁরাও গোপনে, কখনও-বা প্রকাশ্যেও, মুসলমানদের স্বভাবত হীন বলে মনে করেন। ভাবখানা এইরকম, মুসলমানরা যেন দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিক, যেন কিছুটা দয়া করেই তাদের এদেশে থাকতে দেওয়া হয়েছে। কেউ কেউ তো প্রকাশ্যেই বিদ্রুপ করে বলেন — ‘ওদের তো আলাদা একটা দেশ আছে, যাক না সেখানে, এখানে কেন?’ সর্বনাশের বীজটা নিহিত আছে ঠিক এখানেই। আর এস এস তো ঠিক এইটাই চায়। এতদিন এটা গোপনে গোপনে বলাবলি হত, এখন হচ্ছে খোলাখুলি।

অনেকেই প্রশ্ন করেন, আচ্ছা আমরা তো একটা বামপন্থী দলের শাসনে প্রায় তিনদশকের বেশি সময় কাটিয়েছি, তা আমাদের মধ্যে তো ‘সেকুলার’ চেতনার উন্মেষ অন্যদের তুলনায় কিছুটা বেশিই হওয়া উচিত ছিল। নয় কি? আমরা বাঙালিরা তো নিজেদের বেশ একটু এগিয়ে থাকা জাত বলে মনে করতাম, বেশ একটা শ্লাঘা অনুভব করতাম… কিন্তু আমরাও এত দ্রুত ‘আর্যাবর্তে’র এই সাম্প্রদায়িক ষড়যন্ত্রের ব্লু প্রিন্ট-এর বশীভূত হয়ে গেলাম কীভাবে? এখানে বলার কথা এই যে, উক্ত শাসকরা ‘বামপন্থী’ ছিলেন স্রেফ এই কারণে যে, তাঁরা নিজেদের ‘বামপন্থী’ বলতেন, বিশেষত ভোটের সময়, কিন্তু সাধারণ মানুষের মধ্যে প্রকৃত যুক্তিবাদী, মানবধর্মী চেতনার কর্ষণ তারা করেননি — যা বামপন্থার মূল বনেদ। তাই আজ সামান্য উসকানি ও প্ররোচনার মুখে আমাদের সমস্ত প্রতিরোধ বালির বাঁধের মতো ভেঙে পড়ছে। কেন আমরা এই সাম্প্রদায়িক রাজনীতির মোকাবিলা করতে পারছি না? রাস্তায় নেমে সাম্প্রদায়িকদের সঙ্গে মারামারি করার কথা বলছি না, কিন্তু কেন কেউ এমন ধরণের উস্কানিমূলক ও ঘৃণা ছড়ানোর কথা বললে আমরা তার সঙ্গে সম্পর্কছেদ করছি না? কেন আমরা একজোট হয়ে এই ধরণের শক্তিগুলিকে সামাজিকভাবে বয়কট করতে পারছি না? কেন এই ধরণের একটা প্রতিরোধ আমাদের ভেতর থেকে আসছে না?

আসছে না, তার কারণ আমাদের নিজেদের চেতনার মধ্যেই গলদ রয়ে গেছে। পারছি না, তার কারণ আমাদের তথাকথিত ‘বামপন্থী’ সরকার নিজেদের কাজটুকু করেননি, তাঁরা মানুষের চেতনার গভীরে যুক্তিবাদ আর মানবধর্মের বীজ রোপণ করার কাজটা করেননি, শুধুমাত্র বামপন্থার একটি সাইনবোর্ড হয়ে রয়ে গেছেন।

আজ তাই দু’টো জিনিস ঘটছে : ওই সাইনবোর্ডকে সামনে রেখে মানুষকে বোঝানো হচ্ছে — বামপন্থা কত খারাপ। মার্কসবাদীদের ব্যর্থতাকে মার্কসের ব্যর্থতা বলে প্রচার করা হচ্ছে। আর ওই ‘বামপন্থী’দের বিরোধীরা নিজেদের হিন্দুপ্রীতি প্রমাণ করার তাগিদে বিজেপিরই লাইন ধরেছে। বামপন্থার প্রতি, যুক্তিবাদের প্রতি আজকের এই ব্যাপক অনীহার দায়ভার সেদিনের বামপন্থীদের নিতে হবে বইকি।

স্থিতধী ইমাম

এমন একটা সময়ে দাঁড়িয়ে সামান্য আশার আলোও দেখা যাচ্ছে। আসানসোলের নুরানি মসজিদের ইমাম নিজের চরম শোকের মুহূর্তেও যে-বক্তব্য পেশ করেছেন তাতে তাঁর প্রতি শ্রদ্ধায় মাথা নত হয়ে আসে। তাঁর ষোল বছরের কিশোর ছেলেটিকে দাঙ্গাকারীরা নৃশংসভাবে মেরেছে, হাজার হাজার লোক সেই মৃত্যুর প্রতিশোধ নিতে মসজিদে জমা হয়েছে, প্ররোচনার সেই মুহূর্তে ইমাম সাহেব যে সংযমের পরিচয় দিয়েছেন, মানবতার যে বহিঃপ্রকাশ দেখিয়েছেন তার কোনও তুলনা হয় না। আমাদের এই পশ্চিমবাংলায় এমন একজন স্থিতধী মানুষ আছেন এটা ভাবতে পেরে ভালো লাগছে। ঘটনার ক’দিন পরে, কলকাতা থেকে আসা এক সাংবাদিককে তিনি জানান, তাঁরা গত একশো বছর ধরে আসানসোলে আছেন, তাঁর আব্বাও এই মসজিদের ইমাম ছিলেন, অথচ এমন একটা প্রচার চালানো হচ্ছে যে তাঁরা নাকি বহিরাগত! এমনকি নুরানি মসজিদের ইমামই নাকি এক কাল্পনিক চরিত্র, তাঁর ছেলেকে খুনের মতো কোনও ঘটনাই নাকি আসানসোলে ঘটেনি। এই ধরণের মিথ্যাপ্রচারে ইমাম ক্ষুব্ধ, ব্যথিত।

পাশাপাশি অন্য একটা প্রশ্ন জাগছে। শুধুমাত্র পয়সা ছড়িয়ে, গুণ্ডা লাগিয়ে কি এই ধরণের লাগাতার অপপ্রচার চালানো যায়? নাকি এর পেছনে সমাজের কোনও একটা অংশের নীরব সমর্থন আছে? এই অংশটা হলাম আমরা — সমাজের মধ্যবিত্ত ও উচ্চবিত্ত, শিক্ষিত, সংস্কৃতিমনস্ক, এমনকি প্রগতিবাদী হিন্দু বাঙালিরা, যারা রবীন্দ্রনাথ আওড়ান, লালন-চর্চা করেন, আবার মুসলমানদের বিরুদ্ধে একটা তীব্র ঘৃণাও মনের মধ্যে পুষে রাখেন। এই সংখ্যাগুরু অংশের নীরব সমর্থনটাই এই গল্পের সবচেয়ে বিপজ্জনক অংশ। ট্রাম্পের আমেরিকা থেকে শুরু করে সারা বিশ্বে যে ইসলামোফোবিয়া বা মুসলিমদের বিরুদ্ধে এক সাধারণীকৃত ভীতি ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে, মুসলমানদের প্রতি আমাদের মনোভাবও সেই ‘গ্র্যান্ড ডিজাইন’-এর অংশ কিনা সেটা ভেবে দেখার সময় এসেছে।

সুন্নতের গোরু জবাইয়ের অধিকার!

ইদানিং যখনই রামনবমী বা হনুমানজয়ন্তীর বাড়বাড়ন্ত নিয়ে কথা হয়, একটা বিরুদ্ধ মত উঠে আসে — আচ্ছা, রামনবমীর অস্ত্র মিছিল নিয়ে আপনাদের আপত্তি, কই মহরমেও তো অস্ত্র নিয়ে শোভাযাত্রা বেরোয়, তা নিয়ে তো আপত্তি দেখি না? এঁদের সবিনয়ে তিনটে কথা বলবার। এক, শিখরাও ঐতিহ্য মেনে ধর্মীয় কারণে অস্ত্র বহন করেন, তাতেও তো কেউ আপত্তি তোলেন না। নাকি এবার থেকে তুলবেন? দ্বিতীয় কথাটা হল, ধর্মীয় ঐতিহ্য মেনে মহরমে অস্ত্র নিয়ে বেরনো হয় বলেই আপনি রামনবমীতে অস্ত্র রাখার অধিকার চাইছেন, তাই তো? অর্থাৎ মুসলমানরা যা-যা করে, আপনারাও সেগুলোই করতে চান, তাই তো? মুসলমানরা কিন্তু ধর্মপালনের অঙ্গ হিসেবে অস্ত্র মিছিল ছাড়াও অন্য অনেক কিছু করেন যা হিন্দুরা করেন না — যথা সুন্নৎ, যথা গোরু জবাই। তাহলে কি এবার থেকে সুন্নৎ করার, কিংবা গোরু জবাই করবার অধিকারও চাইবেন? তৃতীয়ত, রামনবমীতে পশ্চিম বাংলায় অস্ত্রমিছিলের ঐতিহ্যটা কতদিনের?

আসল সমস্যাটা অন্য। এই ‘হিন্দু’দের মনোভাবটা করুণার — দয়া করে ‘ওদের’ এদেশে থাকতে দিচ্ছি, খেতে-পরতে দিচ্ছি, দুহাজার টাকা করে মোয়াজ্জেম ভাতা দিচ্ছি, তারপর এত বাড়াবাড়ি কীসের?

আর একটা চালু, কিন্তু অর্থহীন কথা হল ‘মুসলিম তোষণ’। সাচার কমিটির রিপোর্টের পর এটা তো প্রমাণিত ও বহু-আলোচিত যে, পশ্চিম বাংলায় মুসলমানদের এমনই তোষণ করা হয়েছে যে তারা শিক্ষাদীক্ষা, চাকরিবাকরি, সংস্কৃতি, স্বাস্থ্য সব দিক থেকে পিছিয়ে পড়েছে। লীলা মজুমদারের একটি গল্পে ছিল, একটি ছেলে তার বন্ধুকে লেখাপড়ায় এমন সাহায্য করত যে বন্ধুটি প্রত্যেকটা পরীক্ষায় লাস্ট হত! আমাদের ‘মুসলিম তোষণ’ও সেই গোত্রের।

ধর্ম, ধার্মিকতা, সেকুলারিজম

এই সংকটের আরও একটা অভিমুখ আছে। আমাদের তথাকথিত সেকুলার দলগুলি প্রকৃত সেকুলারিজমের চর্চা করেননি, সেকুলারিজমকে একটা কৌশল হিসেবে ব্যবহার করেছেন, ভোট পাওয়ার কৌশল। আসলে সেকুলারিজম মানে হল সব ধর্ম থেকে দূরত্ব বজায় রাখার চর্চা; আর আমরা যা করেছি তা হল বহুধর্মবাদের চর্চা। ধার্মিকতা আর আধ্যাত্মিকতার সঙ্গে প্রাতিষ্ঠানিক ধর্মের কোনও সম্পর্ক নেই, এই সীমারেখাটাও বারবার গুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। মার্কস বলেছিলেন, ‘ধর্ম শোষিত নিপীড়িত মানুষের দীর্ঘশ্বাস, হৃদয়হীন এক সমাজের হৃদয়’; একজন নিপীড়িত মানুষ যদি সান্ত্বনা খোঁজেন এই ভেবে যে ‘হে ঈশ্বর, আমারও দিন আসবে’, তাঁর সেই দুর্বিষহ কষ্ট লাঘব করার কোনও চেষ্টা না করে, তাঁর এই ব্যক্তিগত বিশ্বাসকে ছোট করার কোনও অধিকার আমাদের নেই। মুশকিল হচ্ছে, তথাকথিত সেকুলাররা এই ব্যক্তিগত বিশ্বাসের জায়গা থেকে একক মানুষকে টেনে এনেছেন প্রাতিষ্ঠানিক ধর্মের বারোয়ারি মঞ্চে। তাঁরা ক ধর্মের জায়গায় গিয়ে তাঁদের ধর্ম নিয়ে ভালো ভালো কথা বলেছেন, আবার খ ধর্মের জায়গায় গিয়ে খ ধর্ম নিয়ে কথা বলেছেন। উদ্দেশ্য — দুই জায়গা থেকেই কিছু ভোট পাওয়া। অন্তরে সংখ্যাগুরুবাদ আর মুখে সর্বধর্মবাদের চর্চা করতে গিয়ে এক বিষবৃক্ষ রোপণ করেছি আমরা, আজও করে চলেছি। পাড়ায় পাড়ায় খেলাধুলোর সঙ্গে সম্পর্ক নেই এমন ক্লাবকেও খেলার নামে কাঁড়ি কাঁড়ি টাকা দেওয়া হচ্ছে আর সেই টাকায় এলাকায় গণেশ জয়ন্তী, জগদ্ধাত্রী পুজো বেড়ে চলেছে রমরমিয়ে।

শাসকদের উদ্দেশ্য এইভাবে টাকা ছড়িয়ে বেশ কিছুসংখ্যক তরুণ-তরুণীকে নিজেদের পতাকাতলে নিয়ে আসা, ভোটব্যাংক বাড়ানো। প্রকৃত সেকুলার হলে কিন্তু তাঁদের বলা উচিত ছিল, ধর্মাচরণ মানুষের একান্ত ব্যক্তিগত ব্যাপার, রাষ্ট্র তাতে কোনওভাবে অংশ নেবে না বা পৃষ্ঠপোষকতা করবে না। অথচ দশকের পর দশক ধরে ঠিক এই কাজটাই করে চলেছেন আমাদের শাসকরা, কেন্দ্রের কংগ্রেস, রাজ্যের তথাকথিত বামপন্থীরা বা আজকের শাসক দল। ভুল সেকুলারিজম চর্চার এই নীতিহীনতার উদাহরণ দেখিয়ে আজ ফায়দা তুলছে খোলাখুলি সাম্প্রদায়িক দল বিজেপি।

ভরসা রবীন্দ্রনাথ : সেকুলার উৎসব

অথচ আজ থেকে কত যুগ আগে রবীন্দ্রনাথ উৎসবকে তার ধর্মীয় অনুষঙ্গ থেকে বের করে আনতে চেয়েছিলেন। তিনি নিজে একজন ঈশ্বরবিশ্বাসী মানুষ হওয়া সত্ত্বেও উৎসবকে ধর্মের কাছ থেকে সরিয়ে প্রকৃতির কাছাকাছি নিয়ে যেতে পেরেছিলেন — সূচনা করেছিলেন বর্ষামঙ্গল, শারদোৎসব, বসন্ত উৎসব, হলকর্ষণ উৎসব প্রভৃতির। কারণ রবীন্দ্রনাথ বুঝতেন, ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি একদিন নিরীহ ধর্মপ্রাণ মানুষকেও গ্রাস করে নিতে পারে। সে যুগে দাঁড়িয়ে এটা যে কত বড় এক্সপেরিমেন্ট, তা আমরা আজও পুরোপুরি বুঝে উঠতে পারিনি। আজ রবীন্দ্রনাথের সেই এগিয়ে থাকা চিন্তা থেকে আমাদের শিক্ষা নেবার সময় এসেছে। দুর্গাপূজা হচ্ছে হোক, আসুন না, আমরা সংঘবদ্ধভাবে ধর্মনিরপেক্ষ শারদোৎসব পালনের আয়োজন করি। রাজ্য ও দেশের যুবসমাজকে ধর্মীয় উৎসবে আচ্ছন্ন না করে ধর্মহীন সামাজিক মিলনমেলায় প্রোৎসাহিত করি।

এখন, এই অশুভ সময়ে দাঁড়িয়ে সত্তর ছুঁই-ছুঁই আমাদের মাঝে মাঝে হতাশ লাগে, মনে হয়, এতদিন ধরে এতকিছু করে, লিখে, চেঁচিয়ে, সভা করে, প্রতিবাদ-প্রতিরোধ করে ‘কিছুই তো হল না। সেই হাহাকার, সেই অশ্রুবারিধারা।’ কিন্তু পরক্ষণেই যখন এই প্রজন্মেরই যুক্তিমনস্ক উজ্জ্বল ছেলেমেয়েদের দিকে তাকাই, আশা হয় — এরাই আমাদের এই ব্যর্থ প্রজন্মর মুখে হাসি ফোটাবে, নিয়ে যাবে এক মানবতান্ত্রিক ভবিষ্যতের দিকে।

About Char Number Platform 386 Articles
ইন্টারনেটের নতুন কাগজ

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*