খণ্ডচিত্রে মধ্যভারতের গোণ্ড আদিবাসীদের রাজকাহিনী –- পাঁচ

অতীন্দ্রিয় চক্রবর্তী

(…রাজকাহিনী – চার-এর পর)

 

৮.৮) চান্দা অঞ্চলের ভানকাগড় বা ভান্দকগড়ের রাজবংশ ভানকাসিং যুবনাতার হাতে প্রতিষ্ঠা পেয়ে তেরো পুরুষ ধরে শাসন করেন।

৮.৯) একই সময়ে ভানকাসিং বেলাদীর হাতে প্রতিষ্ঠা পেয়ে চান্দার রাজুড়া-মানিকগঢ় অঞ্চলে নয় পুরুষ ধরে শাসন করে অপর এক গোণ্ড আদিবাসী বংশ।

৮.১০) মহারাষ্ট্রর মাহুরগড়-নান্দেদ অঞ্চলে মাসুর টিরকা অত্রাম ও তদপুত্র গাঙ্গোসুর আরও এক গোণ্ড রাজবংশের পত্তন করেন, যে বংশ এগারো পুরুষ ধরে শাসন করেছিল ঐ অঞ্চলে।

অষ্টাদশ শতাব্দীর মধ্যভাগেই মহরাষ্ট্রের পরমহিন্দু ভোঁসলে রাজাদের অগ্রাসনে এই প্রাচীন চার গোণ্ড রাজবংশের শাসন ডেকান মালভূমির উপর থেকে সরে যায়। তারপর যে সব রাজারা এসেছে, গিয়েছে, তাঁরা সকলেই হয়েছেন প্রথমে মারাঠা রাজাদের, এবং, উনবিংশ শতাব্দীর প্রথম পাদে গভর্নর জেনারেল হেস্টিংসের বাহিনী পিণ্ডারি-যুদ্ধে হিন্দুবাহিনীকে পরাভূত করার পর থেকে যথাক্রমে কোম্পানী এবং তারপর ক্রাউনের করদ রাজা হয়ে থেকে গিয়েছেন।

আর যদি বস্তারের দিকে তাকানো যায়, দেখা যাবে যে ১৭৯৫ সালে নাগপুরের মহারংবাজ রংরেজ রেসিডেন্ট ব্লান্ট যখন শ্বেতাঙ্গের হয়ে প্রথম এরিয়া-ডমিনেশান-এ নামছেন তখন কাঙ্কের আর বস্তারের রাজারা তাঁর জন্য সুবন্দোবস্ত করে দিয়েছিল। বস্তারের দক্ষিণটিপ বীজাপুর অঞ্চলে প্রথমবার গোণ্ড আদিবাসীরা থামায় ইংরেজদের অশ্বমেধের ঘোড়া। সেই গল্পে কাহিনী যথাসময়ে বইবে।

ফারিশতা-বর্ণিত এই চার গোণ্ড রাজবংশ ছাড়াও অপর এক সাম্রাজ্য-– অন্ধ্র-তেলেঙ্গানার প্রাক-ইসলাম কাকাতিয়া বংশ– উল্লেখযোগ্যতা বহন করে আনে বস্তারিয় কণ্টেক্সটে। এই রাজবংশের প্রতিষ্ঠাতা প্রাচীন ও আদি-মধ্যযুগের চালুক্য-বংশের এক ফিউডাল চিফ, নাম দুর্জয়। স্থাপনকাল ইশাব্দ নবম-দশম শতাব্দী। প্রাথমিকভাবে দ্রাবিড় ইন্ডিজিনাস পরিচয়বাহী এই রাজবংশ ইতিহাসে প্রতিষ্ঠিত রাজারাণী প্রথম প্রতাপরুদ্র, গণপতি, রুদ্রামাদেবী ও দ্বিতীয় প্রতাপরুদ্র দ্বাদশ-ত্রয়োদশ শতাব্দী জুড়ে আর্যায়ণের প্রভাবে ক্রমে বংশপরিচয়ে ক্ষত্রহিন্দু পরিচয়ের তকমা আঁটে। সেই ক্ষত্রতেজের আঁচ আজও ‘রেড্ডি’ পদবীধারী দাক্ষিণাত্যের হিন্দুসমাজ বহন করে। এই হিন্দুআয়ণ হয়তো সেই সময় জুড়েই, ক্রমশঃ উত্তর-পশ্চিম থেকে ইসলামী আর্যশক্তির কাউন্টার-রিয়্যাকশান হয়ে বিন্ধ্য-সাতপুরার তলদেশ দিয়ে দ্রাবিড়াঞ্চলে প্রবেশ করছিল। তারপর আলাউদ্দিন খিলজির হামলায় দ্বিতীয় প্রতাপরুদ্রের পরাজয়ের ফলে ইঙ্গাব্দ ১৩২৩ সনেই পতন হয় কাকাতিয়া রাজবংশের। যদিও তাদের ক্ষত্রতেজের প্রবাহ রয়ে যায়।

তাই বস্তারের রাজবংশও পারিবারিক লিঙ্ক টেনেছে এই কাকাতিয়া বা কাকতেয় বংশের সাথে। বলা হয়েছে, আলাউদ্দিনের হাতে হেরে যাওয়ার আগে দ্বিতীয় প্রতাপরুদ্র বস্তার অঞ্চলের ‘নাগ’বংশীয় রাজাদের পরাভূত করে। এই ‘নাগবংশ’ নিশ্চয়ই সেই জটবা খণ্ডাৎ-বখত বুলন্দ-শাহদের নাগপুর অঞ্চলের রাজবংশ নয়, কারণ সেই দেওগড়ের রাজবংশের প্রতিষ্ঠা হয় কাকাতিয়া সাম্রাজ্যের পতনের দেড়শো বছর পর। বস্তার প্রিন্সলি এস্টেটের রয়্যাল হ্যাজিওগ্রাফিতে বলা আছে যে নাগবংশকে পরাভূত করে প্রতাপাদিত্যের এক ভাই অন্নামদেওর হাতে বস্তারের কাকাতিয়া রাজবংশের হয়ে শাসনভার ন্যস্ত থাকে, এবং আলাউদ্দিনের বাহিনীর সাথে যুদ্ধে প্রতাপাদিত্য নিহত হয়ে কাকতেয় রাজবংশ শেষ হয়ে গেলেও, সেই অন্নামদেওর শাসনপাটের মাধ্যমে কাকাতিয়া বংশের একটা ধারা বয়ে আসে বস্তারে। এও বলা হয় যে সেই দ্বিতীয় প্রতাপরুদ্রই নাকি নাগবংশকে পরাভূত করে শঙ্খিনী-ডোঙ্কিনী বা শাঁখিনী-ডাকিনী নদীর তীরে দান্তেশ্বরীর শক্তিপীঠ স্থাপনা করেন। অথচ বস্তারের রাজবংশের প্রসারিত বংশতালিকায় ১৩২৪ থেকে আজ ২০১৭ অবধি, মানে প্রায় সাতশো বছরের ইতিহাসে মাত্র ১৬জন রাজারাণীর নাম পাওয়া যায়, আবার এই রাজবংশ যখন ১৭০৩ সালে তাঁদের প্রথম হ্যাজিওগ্রাফি বের করছেন, তখন তাঁর আগের চারশো বছরে মাত্র সাতজন রাজার নাম দিতে পারছেন। তাই মনে হয়, এই সকল হ্যাজিওগ্রাফি গোঁজামিলে ভরপুর এবং প্রাচীন হিন্দু রাজত্বের সঙ্গে নাম জুড়ে নামডাকের জৌলুসবর্ধনের রিভিশানিস্ট উপায়ান্ত।

অবশ্য কাকাতিয়া রাজবংশ সম্বন্ধেও নানান ন্যারেটিভ বিদ্যমান। দেখা যাচ্ছে, ওয়ারাঙ্গালে ক্ষমতাসীন এই বংশের প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রথমদিকের রাজারাজড়া দুর্জয়, গুণ্ডা-রা ছিলেন ইণ্ডিজিনাস অথা অস্ট্রিক-দ্রাবিড় মূলনিবাসী পরিচয়বাহী। আবার প্রতাপরুদ্র-রুদ্রামাদেবীদের সময় মানে আদি-মধ্যযুগে দিল্লী সালতানাত-এর আক্রমণের আগে এই বংশই হয়ে উঠছে ঘোরহিন্দু রেড্ডিসমাজের হোতা। মানে অষ্টাদশ শতাব্দী থেকে ত্রয়োদশ শতাব্দীতে আর্যবাদ বিন্ধ্য-সৎপুঢ়ার পাহাড় ডিঙিয়ে আর্যাবর্ত থেকে দাক্ষিণাত্যে প্রবেশ করছে। সেই সময়কাল জুড়ে আর্যাবর্ত-দাক্ষিণাত্যের মাঝখান জুড়ে সমগ্র গোণ্ডওয়ানার প্রাকৃতর উপর এই সংস্কৃত ছায়া না জানি কত ভারি হয়ে এসেছিল। ইণ্ডিজিনাস অরিজিন-এর এবং দান্তেশ্বরী উপাসনার সূত্র ধরে কাকতেয়া রাজবংশের আদিবাসী উৎসের দিক ইঙ্গিত করেছেন মোতিরাবেন কাঙালীর মতো ইতিহাসকারেরা। উক্ত প্রাজ্ঞজন বিচার দিয়েছেন– ‘কাকতেয়’ এক প্রাচীন গোণ্ডবংশ, যার টোটেমচিহ্ন ‘চাল’ বা ‘কাক’; উনি আরও বলেছেন যে বস্তারে যে ‘নাগ’বংশকে চতুর্দশ শতকে কাকতেয় নৃপতি দ্বিতীয় প্রতাপরুদ্র পরাভূত করেন, সেই ‘নাগ’-বংশও এক প্রাচীন গোণ্ড বংশ, যার টোটেমচিহ্ন ‘নাগ’ অথবা ‘বৃত্ত’। বস্তারের গোণ্ড ও হালবা আদিবাসীদের মধ্যে অনেকে রয়েছেন যাঁদের টোটেমবিধৃত পদবী ‘নাগ’। তাই মোতিরাবণ বর্ণিত এই ‘নাগ’ অথবা ‘বৃত্ত’ টোটেমচিহ্নধারী গোণ্ডবংশ দ্বিতীয় প্রতাপরুদ্র কর্তৃক পরাভূত নাগবংশ না দেওগড়ের জটবা খণ্ডাৎ-বখত বুলন্দ শাহদের নাগপুরকেন্দ্রিক রাজবংশ, তা নির্ণয় অসম্ভব।

বেদ-পুরাণের অসুররাজাদের সময়ের থেকে মধ্যযুগের আগে অবধি মধ্য-উপমহাদেশের শাসন সাতবাহন, চালুক্য, ওয়াকাটাকা প্রভৃতি রাজত্বের হাতে থেকেছে, সেই সকল রাজত্ব প্রাথমিক ভাবে ট্রাইবাল কনফেডারেট হলেও, ক্রম-আর্যায়নের ফলে, মুসলমান শাসকের আসার আগেই, ক্রমে উগ্র বর্ণহিন্দু চরিত্র ধারণ করেছিল। ফলে লুণ্ঠিত হয়েছিল প্রাচীন বহু সম্পদ। মাঁসারাম কুমরে সহ কিছু আদিবাসী ইতিহাসকার মনে করেন যে সাতবাহন রাজত্বকালে ভদ্রাবতীতে বসেই গূণাঢ্য রচনা করেছিলেন বৃহদকথা, যা গোণ্ড ভাষায় রচিত হয়েছিল বলে যার মূলের বিলুপ্তিসাধন করেন ব্রাহ্মণেরা, যার একটা চটুল খণ্ডাংশমাত্র কাশ্মীরি ব্রাহ্মণের হাত দিয়ে সংস্কৃতে অনুবাদ করে রাখানো হয় কথাসরিৎসাগর নামে। এই সকল ইতিহাসকার, মোতিরাবেন কাঙালী সহ আরও বহু গুণীজন মনে করেন, সিন্ধুসভ্যতার পরের থেকেই গোণ্ড জীবনযাপনপ্রথা চলে আসছে, মনে করেন যে সেই সভ্যতার লিপিই গোণ্ডিলিপির আদিম ফর্ম, যে সেই সভ্যতার ভাষা গোণ্ডসহ অজস্র প্রোটো-দ্রাবিড় ভাষার আদিভাষা। এই নিয়ে পরে আলোচনা করব, তবে প্রসঙ্গটা এইখানে আনলাম কারণ, গোণ্ড সভ্যতার ধারা এত প্রাচীন যে না আছে এর কোনও সুনির্দিষ্ট লিনিয়ার টাইমলাইন, না আছে বিভিন্ন টোটেমধারী রাজারাজড়ার শেষ। রচিত ইতিহাসের আগের থেকে যাদের রাজ্যপাট, তাদের কটা রাজারাণীকেই মনে রাখার দায় ইতিহাস নেবে? তবু, আর্য্যসভ্যতার নিরন্তর অভিঘাত সত্ত্বেও যে গোণ্ড আদিবাসী জীবনধারা আজও টিঁকে থেকেছে, তার অদম্য জীবনীশক্তির অনুসন্ধানে তার ইতিহাসটার আঁচ করা প্রয়োজন। প্রাচীন যুগে, মৌর্য্য-গুপ্তদের সময়তেই আসে নলরাজাদের কথা। খ্রিস্টাব্দ পঞ্চম শতাব্দীতে ‘রাজহাঁস’ টোটেমচিহ্নধারী এই নল-রাজাদের রাজ্যপাটের কথা যেমন শোনা যায়, তেমনই শোনা যায় নাগবংশ, সোমবংশ, কালচুরি বংশ, কান্দ্রাবংশের কথা। এই সোম আর কান্দ্রা বংশের গোণ্ড আদিবাসী রাজারাই  দণ্ডকারণ্যের রাজা ছিলেন আদি-মধ্যযুগে। সেই ইতিহাসে পাওয়া যায় সোম বংশের সিংহরাজ, ব্যাঘ্ররাজদের, বোপদেবদের কথা। পাওয়া যায় বংশের দুই রাজা সোমদেব আর কর্ণর মধ্যে ভ্রাতৃঘাতী যুদ্ধের কথা। তেমনই আবার, লোকবিশ্বাসে, এই কর্ণরাজের দ্বাদশ শতাব্দীতে প্রতিষ্ঠিত শিবমন্দির কাঙ্কের শহরের একটু বাইরেই প্রতিষ্ঠা পেয়ে অদ্যবধি দণ্ডায়মান থাকার কথা। পাওয়া যায় কাঙ্কেরের আদিবাসী কান্দ্রারাজা ধমন দেওর কথা, যিনি, ১৩৪৪ ইঙ্গাব্দে সোমরাজাদের পতনের পর ১৩৮৫ ইঙ্গাব্দ অবধি কাঙ্কের অঞ্চলের রাজা ছিলেন। রাজপাট ছিল তাঁর কাঙ্কের শহরের পিছনের পাহাড় অঞ্চলে, কেল্লাও ছিল-– যে কেল্লার থেকে আজও এই পাহাড়ের নাম ‘কিলা-পাহাড়’ বা ‘কেল্লা-পাহাড়’। ধমনদেও প্রজার জলকষ্ট নিরসনের অভুপ্রায়ে কাঙ্কের শহর জুড়ে অজস্র দীঘি ও পুকুর খনন করেছিল, যেগুলো আজও রয়েছে। এই কান্দ্রারাজ ধমনের পতনের পর অনাদিবাসী হিন্দুরাজা বীর কানহার দেব রাজা হন। প্রচলিত মতে, এই বীরদেব পুরীর রাজা ছিলেন, অর্থাৎ ‘শবর’-রাজা পুরাণবর্ণিত বিশ্ববসু তথা হিন্দু-পুরাণ-বর্ণিত অপর ‘সোম’ বংশের বংশতিলকধারী। কুষ্ঠরোগে আক্রান্ত হয়ে পুরী থেকে বিতাড়িত এই রাজা পঞ্চদশ শতাব্দীতে বর্তমান ছঃগঃ রাজ্যের ধমতরি জেলায় অবস্থিত এবং বস্তারের অংশ হিসেবে গণ্য সিহাওয়াতে এসে নিরাময় পেলেন, এবং ক্রমে হয়ে উঠলেন ইংরেজ শাসনের সময়কালে কাঙ্কের প্রিন্সলি স্টেটের রাজপরিবার হিসেবে গণ্য হওয়া চন্দ্রবংশের প্রতিষ্ঠাতা।

(এরপর …রাজকাহিনী — ছয়)

 

1 Trackback / Pingback

  1. খণ্ডচিত্রে মধ্যভারতের গোণ্ড আদিবাসীদের রাজকাহিনী – ছয় – ৪ নম্বর প্ল্যাটফর্ম

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*