ঠাঁইনাড়া

সত্যব্রত ঘোষ  

 

জন্মসুত্রে শিশু যে অধিকার অর্জন করে তা নাগরিক অধিকার। রাষ্ট্রের থেকে এই অধিকারপ্রাপ্তিতে কোনও প্রশ্ন ওঠে কি? নির্দিষ্ট ভৌগোলিক সীমানায় ঘেরা রাষ্ট্রের সুরক্ষা নীতি আছে, তার নিজস্ব সংবিধান আছে, আইন আছে, পুলিশ আছে, প্রশাসনও আছে। অথচ যাদের জন্যে এই সব ব্যবস্থা, সেই সাধারণ মানুষই রাষ্ট্রে অবহেলিত হয়ে এসেছে নানাভাবে। সাধারণ মানুষদের নিয়েই যত সরকারি পরিসংখ্যান। তাঁদের সংখ্যার ভিত্তিতেই চলে ভোটের হিসেবনিকেশ। তাঁদের জীবনধর্ম পালনের জন্যে এত আয়োজন। অথচ যন্ত্রবৎ প্রশাসন এবং নীতিনির্ধারক ব্যবস্থাবলি মানবজীবনকেই তুচ্ছ করে স্বমহিমান্বিত। কল্যাণচিন্তার আড়ালে বিশাল এই আয়োজনকে ব্যবহার করে ক্ষমতার অধিকারীরা বারবার ক্ষতচিহ্ন রেখে যায় ইতিহাসের পাতায়। ভারতের নানা প্রদেশ এই চিহ্নগুলিকে বুকে ধরে আছে। কিন্তু অসমের সাম্প্রতিক পরিস্থিতি সেখানকার জনসাধারণের জীবনে যে সংকট ডেকে এনেছে, তার তুলনা সারা পৃথিবীতে মেলা দুষ্কর। আইনি এক প্রক্রিয়ার দ্বারা আগামী একটি দিনে অসমের এক বিশাল সংখ্যক মানুষ রাষ্ট্রীয় অভিজ্ঞান থেকে পরিত্যক্ত হতে চলেছে। অনেক শিশু ও পরিবার এই প্রক্রিয়ায় হবে ঠাঁইনাড়া।

আইনি এই প্রক্রিয়া কার্যকর হচ্ছে কেন? পরিসংখ্যান বলছে ১৯৭০ সালে অসমের ভোটার সংখ্যা ছিল ৫,৭০১,৮০৫। ১৯৭৯ সালে সেই সংখ্যা প্রায় ৪৯.৭৩% বৃদ্ধি পেয়ে হয়েছে ৮,৫৩৭,৪৯৩। যার নেপথ্যে ১৯৭১-এর বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধকে এক অন্যতম কারণ বলে ধরে নেওয়া হচ্ছে। এই জনবিস্ফোরণ আকস্মিক নয়। দীর্ঘ এক সময় ধরে প্রতিবেশী রাষ্ট্রের এক বিশাল সংখ্যক অসহায় মানুষ নিজেদের জীবন বাঁচাতে চলে এসেছে সীমান্তের এপারে, বিশেষত অসমে। ১৯৪৯ সালের জেনেভা কনভেনশনে যুদ্ধপরবর্তী বিশ্বে শরণার্থী এবং অনুপ্রবেশকারীর মধ্যে পার্থক্য নির্ণয়ের পরও তাঁদেরকে এখন ‘বহিরাগত’ বিশেষণে ভূষিত হতে হয়।

স্বাধীনতা পরবর্তী ভারতে এই ‘বহিরাগত’-দের আগমন ঘটেছে নিরন্তর। প্রতিটি নির্বাচনে শাসকরা এই ঘরছাড়া মানুষদের ভোটে বিরোধীদের হারিয়েছেন। বিরোধীপক্ষ এই অযাচিত ভোটসংখ্যা বৃদ্ধিতে সরব হলেও, শাসককুল ও প্রশাসন বধির হয়ে থাকাটাকেই শ্রেয় মনে করেছেন।

কিন্তু উত্তরপূর্ব সীমান্তপ্রদেশ অসমে নতুন আন্দোলনের জন্ম হয় অবিমিশ্র এই সংখ্যাধিক্যের প্রাবল্যে। অসমের নিজস্ব সংস্কৃতি বিপর্যস্ত হচ্ছে। এর প্রতিরোধে AASU ১৯৭৯ সালে শুরু করে আন্দোলন। সেই আন্দোলন শেষ হয় ১৯৮৫ সালে, যখন তৎকালীন রাষ্ট্রসচিব, অসমের মুখ্যসচিব এবং আসু‘র সভাপতি এক সমঝোতায় সাক্ষর করেন। অসম অ্যাকর্ড অনুযায়ী ১৯৫১ সালকে নির্দিষ্ট করা হয়। এর পরবর্তীকালে যারা ভারতে এসেছেন, তাঁদের ভারতীয় হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হবে না বলে সব পক্ষ মেনে নেয়।

অথচ বাংলাদেশ থেকে আসা মানুষরা তো আজ আর শরণার্থী নয়। তাঁরা ইতিমধ্যে ভারতের ভোটার হয়ে গেছেন। কর্তৃপক্ষ তাঁদের রেশন কার্ড ও ভোটার আই ডি-ও প্রদান করেছে। প্রশাসনের এই দীর্ঘসূত্রী অপরিণামদর্শিতার কারণে ফের আরেকবার জাতিবিদ্বেষের আগুন ছড়ানোর উপক্রম হয়েছে অসমে। ‘বঙ্গাল খেদা’র ভয়াবহ স্মৃতি আবার নতুন করে ফিরে এসেছে জাতীয় নাগরিক পঞ্জি (NRC)-র খসড়া তালিকা প্রকাশিত হবার পর।

সরকার ভেবেছিল অসমের মানুষ অশান্ত হবে রাজ্য জুড়ে। তার প্রতিরোধে সেনা এবং পুলিশ যুদ্ধকালীন ব্যবস্থাও নেয়। সোমবার ৩০শে জুন কিন্তু তাঁদের কারওই বন্দুক গর্জায়নি। তবে সারা অসম জুড়ে ক্ষোভ ধিকিধিকি জ্বলছে। কারণ জাতীয় নাগরিকপঞ্জির চূড়ান্ত খসড়ায় প্রায় ৪০ লক্ষ মানুষের নাম নেই। বারবার কেন্দ্রীয় এবং রাজ্য সরকারের আধিকারিকরা আশ্বাস দিচ্ছেন নাগরিকত্বের দাবি নিয়ে আদালতে যেতে পারে দেশহারা মানুষ। তা সত্ত্বেও সন্দেহ ঘুচছে না মানুষের। যদি ধরে নেওয়া যায়, এর অর্ধেক ভাগ মানুষ তাঁদের দাবি অনুযায়ী দেশের ঠিকানা পাবে, তাহলেও বাকিদের হতে হবে রাষ্ট্রহীন। ভারত উপমহাদেশ কি আবার নতুন করে একটি ট্র্যাজেডির সাক্ষী হবে?

১৯৫১ সালে ভারতের প্রথম আদমশুমারি এবং জাতীয় নাগরিক পঞ্জিকরণ শুরুর আগে তৎকালীন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সি রাজাগোপালাচারি সমস্ত আধিকারিকদের এই নির্দেশ দিয়েছিলেন, “সাধারণ সব দেশবাসীর জীবনযাপন সম্পর্কিত প্রাথমিক তথ্যাবলিকে নথিভুক্ত করতে হবে।” অসমের তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী বি আর মেধি তার অধীন ১৮,৮৫০ জন আধিকারিকদের উপর এর দায়িত্ব দেন। দারিদ্র, অশিক্ষা এবং পিছিয়ে পড়া মানুষদের হিতসাধনে সরকারের নীতি নির্ধারণের জন্য আধিকারিকরা পঞ্জিকরণের এই বিতর্কিত কাজটিতে হাত দেন।

কেন্দ্র ও রাজ্যের তৎকালীন দুই শীর্ষনেতার যথেষ্ট শিরঃপীড়ার কারণ ছিল। ১৯৫০ সালের ফেব্রুয়ারি এবং মার্চ মাসে আসামের কাছাড়, গোয়ালপাড়া, কামরূপ, নগাঁও এবং দারাং জেলায় ঘটে যাওয়া সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা এবং তার পরবর্তীকালে বহুল পরিমাণে শরণার্থীদের আগমন ঘটেছে। এর ফলে রাষ্ট্রীয় সম্পত্তির ব্যবহার যে আশঙ্কাজনক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে, তাতে তাঁদের তৎপর না হলেই নয়।

জহরলাল নেহেরুর সরকার ১৯৫১ সালে যে খতিয়ান দেয়, তাতে বলা হয়েছিল আসামে ৫ লাখ শরণার্থী প্রবেশ করেছে। কিন্তু প্রথম জাতীয় নাগরিকপঞ্জি অনুযায়ী দেখা যাচ্ছে, এই সংখ্যাটি প্রায় অর্ধেক — ২,৭৪,০০০। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র দপ্তর থেকে জানানো হয়েছিল, এই সংখ্যার তারতম্যের কারণ শরণার্থীরা অনবরত সীমান্তের এদিক ওদিক নিয়মিত আসাযাওয়ায় অভ্যস্ত।

১৯৫১ সালে জনগণনার ভিত্তিতে ভারতের প্রথম ন্যাশনাল রেজিস্ট্রি অফ সিটিজেনস তৈরি হয়। সেই তালিকায় অন্তর্ভুক্ত মানুষদের পাশাপাশি সেই মানুষগুলিও দ্বিতীয় জাতীয় নাগরিকপঞ্জিতে থাকবেন যারা ১৯৭১ সালের ২৪শে মার্চ পর্যন্ত অসমে ভোট দিয়েছেন। নিয়ম অনুযায়ী ১৯৬৬ সালের ১লা জানুয়ারি থেকে ১৯৭১ সালের ২৫শে মার্চের মধ্যে ভারতে এসেছেন তাঁদের নাম নথিভুক্ত করতে হবে বিদেশি হিসেবে। দীর্ঘ সময় ধরে মামলা-মোকদ্দমা চলবার পর ২০১৪ সালে আদালতও উল্লেখিত তারিখগুলির মধ্যে যারা এসেছেন, তাঁদের নিবন্ধনী প্রক্রিয়ার মাধ্যমে জাতীয় নাগরিকপঞ্জিকে পরিবর্ধিত করবার আদেশ দেয়।

‘ডি’ (ডাউটফুল) ভোটার নিয়ে অসমে দীর্ঘ সময় ধরে যে বিতর্ক চলছে তার নেপথ্যে অসম সরকারের বাঙালি-বিদ্বেষের এক বড় ভূমিকা আছে। সামাজিক স্তরে এই বিদ্বেষ এতটাই ছড়িয়েছে যে গত ২১ বছরে ‘ডি’ ভোটারের প্রশ্নটির নিষ্পত্তি হয়নি। বরং ৩ লক্ষ ৭০ হাজার মানুষকে ‘সন্দেহভাজন’ তকমা দিয়ে অবাঞ্ছিত করবার প্রক্রিয়াটি এখনও অব্যাহত। নাগরিক পঞ্জিকরণের নামে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে ‘বিদেশি’ তকমা দিয়ে হেনস্থা করবার প্রক্রিয়াটিতে শীর্ষ আদালতকেই কি অবমাননা করা হচ্ছে না?

‘হিন্দি, হিন্দু, হিন্দুস্থান’ নীতির দাপট যে সেই সময় থেকে বেড়েছে তা অসমের মানুষ বুঝেছেন। সেখানে বসবাসকারীদের মধ্যে তার ফলে মেরুকরণ আজ বাস্তব। বাংলা ভাষায় কথা বলা মানুষরা এখন নিজেদের হিন্দু অথবা মুসলমান পরিচয়কেই গুরুত্ব দিচ্ছেন বেশি। সংখ্যালঘুদের ক্ষেত্রেও মগজধোলাই চলছে। জঙ্গি সংগঠন আই এস নর্থ ইস্ট তাদের সবুজ পতাকা উড়িয়ে জানিয়ে দিতে চাইছে জেহাদিদের জন্য উন্মুক্ত এক অঞ্চল তৈরি করতে তারা বদ্ধপরিকর। গোয়ালপাড়া, নলবাড়ি এবং লোয়ার অসমের বিভিন্ন স্থানে তাই তাদের সাংগঠনিক তৎপরতা বৃদ্ধি পেয়েছে। অন্যদিকে মেঘালয়ের রাতছড়া-উমাকিয়াং চেকপোস্টে গুয়াহাটিমুখী গাড়ি এবং বাসগুলি থেকে যাত্রীদের নামিয়ে এনে নাগরিকপঞ্জির কাগজ দেখছে পুলিশ নয়, খাসি স্টুডেন্টস ইউনিয়ন নামের ছাত্র সংগঠনের সদস্যরা। NRC-তে যাদের নাম নেই, তাঁরা মেঘালয় হয়ে গুয়াহাটি যাবার অনুমতি পাবে না। জাতীয় সড়ক দিয়ে রূপঙ্কর চৌধুরী, রবিরঞ্জন নাথদের মতো বরাক উপত্যকার বাঙালিদের যাতায়াত শুধু এভাবে আটকে দেওয়া নয়, অনেক ক্ষেত্রে যাতায়াতকারীদের উপর শারীরিক নিগ্রহ চালাচ্ছে জাতীয়তাবাদী এই স্বেচ্ছাসেবকেরা।

২০১৬ সালে নাগরিকত্ব (সংশোধনী) বিল এনে নাগরিকত্ব আইন পরিবর্তনের প্রস্তাব করা হয়। তাতে আফগানিস্তান, বাংলাদেশ ও পাকিস্তান থেকে আগত হিন্দু, শিখ, বৌদ্ধ, জৈন, পারসিক ও খ্রিস্টানদের নাগরিকত্ব প্রদানের কথা বলা হলে মুসলিমদের উল্লেখ ছিল না। এই বিলের প্রতিবাদে বিজেপি-র সঙ্গে জোট ভেঙে দেওয়ার হুমকি দেয় অসম গণ পরিষদ। অন্যদিকে পশ্চিমবঙ্গের কোচবিহার এবং আলিপুরদুয়ার থেকে কর্মসূত্রে আগত ভারতীয়দের ক্ষেত্রেও বিভেদমূলক রাজনীতি প্রয়োগের ফলে তাঁদের নাগরিকত্ব প্রদান বিষয়ে প্রশ্ন রয়ে যাচ্ছে।

২০১৮ সালে যে জাতীয় নাগরিক পঞ্জিকরণ প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে, তার সঙ্গে ১৯৫১-র প্রথম প্রক্রিয়াটির কর্মকাণ্ডটির বিশেষ ফারাক নেই। বেআইনি অনুপ্রবেশ কমানোর জন্য উত্তরাধিকারীদের প্রমাণপত্র যাচাইয়ের পদ্ধতিটি ঘিরে বিতর্ক চলবে, এবং তা চলাই উচিৎ। কিন্তু সামগ্রিক এই প্রক্রিয়াটিতে রাজনৈতিক স্বার্থ যে প্রাধান্য পাবে, তা বলা বাহুল্য। ক্ষমতাসীন এবং বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি এখন যেভাবে পরস্পরকে দোষারোপ করতে শুরু করেছে, তাতে আসল সত্য ধামাচাপা পড়বার সম্ভাবনাই প্রবল।

সত্যিটা এই যে ক্ষমতাসীন বিজেপি এবং বিরোধী কংগ্রেস — এই দুই সর্বভারতীয় দলই জাতীয় নাগরিকপঞ্জির প্রয়োজনীয়তা স্বীকার করে। ১৯৮৫ সালে অসম চুক্তি করে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধী অহমিয়া জাতিসত্তার নিজস্ব পরিসর প্রদানের উদ্দেশ্যে জাতীয় নাগরিকপঞ্জি তৈরির প্রস্তাব মেনে নেন। তার ফলে সাময়িকভাবে ‘বঙ্গালি খেদাও’ আন্দোলন নিয়ন্ত্রণে আসে। ৩৩ বছর পর অসমের বিজেপি সরকার সেই নাগরিকপঞ্জি এবং খসড়া তালিকা তড়িঘড়ি প্রকাশ করে ৪০ লক্ষ মানুষকে যে হয়রানির মধ্যে ফেলেছে, তা অভিপ্রেত ছিল না।

নেহেরু সরকারের মতো বিজেপি সরকারও মানুষকে আশ্বাস দিচ্ছেন যে এই ৪০ লাখ মানুষ জাতীয় নাগরিকপঞ্জির অন্তর্ভুক্ত নেই, তাদের নাগরিকত্ব প্রমাণের সুযোগ দেওয়া হবে। তাঁদের বিরুদ্ধে যে কোনও শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে না, সেকথাও বারবার বলা হচ্ছে।

কিন্তু নেহেরুর পক্ষে কাজটি সহজতর ছিল। ৬৭ বছরে জাতীয় রাজনীতির চরিত্রগত পরিবর্তন এতটাই ঘটেছে যে কর্তৃপক্ষের হাজার আশ্বাসও আর আশঙ্কার আগুন নেভাতে পারে না। এবং সেই আগুন যাতে না নেভে, তার জন্য বিভিন্ন রাজনৈতিক দল সচেষ্ট।

ভোটব্যাঙ্কের রাজনীতির স্বার্থে ‘রক্তস্নান’ এবং ‘গৃহযুদ্ধ’র পরিস্থিতি তৈরি করতেও এরা কেউ পিছপা হবে না, তা স্পষ্ট। বিশেষ করে আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে অসমে এই রাজ্যব্যাপী নিবন্ধীকরণ ব্যবস্থাকে শাসক এবং বিরোধীপক্ষ নিজেদের ঘুঁটি সাজানোর কাজে ব্যবহার করবেই।

এটাও বাস্তব যে, যাদের কেন্দ্র করে এই রাজনৈতিক তৎপরতা, অর্থাৎ সাধারণ মানুষ, তাঁদের অনেকেই আজ সরকারের এক দীর্ঘমেয়াদী ত্রুটিপূর্ণ ব্যবস্থাপনার শিকার। পাসপোর্ট, আধার কার্ড এবং ভোটার আই ডি থাকা সত্ত্বেও অসমের বহু মানুষকে নাগরিক স্বীকৃতি দেওয়া হয়নি। দেশের বিভিন্ন রাজ্যে এমন মানুষ কম নেই, যাদের নাম ভোটার তালিকাভুক্ত নয়, বা তোলা হয়নি। অসমে তেমন মানুষদের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হতে চলেছে।

যেমন, বরাক উপত্যকার শিলচরে প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, সেখানকার ৪০ শতাংশেরও কম নাগরিক দ্বিতীয় জাতীয় নাগরিকপঞ্জির প্রথম খসড়ায় অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন। ধুবড়ির সীমান্তবর্তী গ্রামগুলিতে মহম্মদ হাজের আলির মতো কৃষক অথবা রাজবংশী সম্প্রদায়ের পুলিশ কর্মচারী (অ্যাসিস্ট্যান্ট সাব-ইন্সপেক্টর) রমেশচন্দ্র রায়ের স্ত্রী কবিতা রায়ের মতো মানুষরা দীর্ঘকাল ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত হবার পর হয়তো নাগরিক তালিকা থেকে বাদ রয়ে যাবেন। এমনকি, NRC-র কর্মী মীনাক্ষী চক্রবর্তী এবং তাঁর কন্যার নামও এই খসড়া তালিকা থেকে রহস্যজনকভাবে অদৃশ্য।

নাগরিক নিবন্ধনের বিষয়টি আরও জটিল হয়ে পড়ে যখন আদিবাসীদের প্রসঙ্গ আসে। কারণ জনজাতিদের সংখ্যাগরিষ্ঠই উপযুক্ত কাগজপত্র দেখিয়ে প্রমাণ করতে পারবেন না যে দেশ স্বাধীন হওয়ার বহু আগে থেকেই তাঁরা অসমে আছেন।

যে প্রশ্নটি নিয়ে সবার মনে ধোঁয়াশা রয়েছে, তা হল, শেষ অবধি যাদের নাম জাতীয় নাগরিকপঞ্জিতে থাকবে না, তাঁদের কী হবে? লোকসভায় সরকারপক্ষের প্রবক্তা জানিয়ে দিয়েছেন যে নথির বাইরে থাকা মানুষদের বাংলাদেশে ফিরিয়ে দেওয়ার পদ্ধতিটি যথেষ্ট জটিল। ২০১৬-১৭ সালে অসমের ডিটেনশন ক্যাম্প থেকে মাত্র ৩৯ জনকে বাংলাদেশে ফেরৎ পাঠান সম্ভব হয়েছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের তথ্য অনুযায়ী এবছর ৫৩ জন অনুপ্রবেশকারীকে বাংলাদেশি হিসেবে চিহ্নিত করেছে ঢাকা এবং তাঁদের ফিরে আসবার অনুমতি দিয়েছে। কিন্তু ২০১৮-র জাতীয় নাগরিকপঞ্জি ভিত্তি করে চিহ্নিতকরণ হলে সংখ্যাটি এত বেশি হবে, যে বাংলাদেশ তাদের অধিকাংশকেই নিজের দেশের অধিবাসী বলে স্বীকার করবে না। বাংলাদেশ স্বরাষ্ট্রদপ্তরও তা ইতিমধ্যেই দ্ব্যর্থহীন ভাষায় জানিয়ে দিয়েছে।

তাহলে, ভারত সরকার তথাকথিত এই ‘রাষ্ট্রহীন’-দের নিয়ে কী করবে? কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক থেকে জানানো হয়েছে তাঁরা কয়েকটি পদক্ষেপ নিতে পারে। একটি হল ‘মাল্টি-পারপাস আইডেন্টিটি কার্ড’ প্রচলন। অটলবিহারী বাজপেয়ীর প্রধানমন্ত্রীত্বের আমলে এর উদ্ভাবন। তখন প্রস্তাব নেওয়া হয়েছিল গত দুই প্রজন্ম ধরে যেসব বেআইনি অনুপ্রবেশকারীরা ভারতে বসবাস করছে, তাঁদের আর বাংলাদেশে ফেরৎ পাঠানো হবে না। ভারতে থাকবার জন্য তাঁদের ওয়ার্ক পারমিট দেওয়া হবে। প্রক্রিয়াগতভাবে নাগরিকত্ব অর্জন না করা অবধি তাঁরা পূর্ণ নাগরিকত্বের সুবিধাগুলি পাবেন না। তবে জাতীয় নাগরিকপঞ্জির চূড়ান্ত তালিকা প্রস্তুত হবার পরই এই প্রস্তাবটিকে কার্যায়িত করতে উৎসাহী হবে সরকার।

অসম তথা ভারতের কিছু প্রকৃত নাগরিকদের নাম এই জাতীয় নাগরিকপঞ্জির চূড়ান্ত খসড়ায় নেই বলে বিস্তর অভিযোগ উঠছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক থেকে জানানো হয়েছে ১৯৫১-র যে প্রদত্ত সম্পত্তি সম্পর্কিত তথ্যাবলি (legacy data)-র পরিসংখ্যানকে ভিত্তি করে ২০১৪ সালে রেজিস্ট্রার জেনারেল অফ ইন্ডিয়া-র আধিকারিকরা আসামের কামরূপ জেলার অধিবাসীদের প্রমাণপত্র যাচাই করেন। সেখানে আধিকারিকদের নথির সঙ্গে অধিবাসীদের প্রমাণপত্রের মধ্যে বিশেষ কোনও অসঙ্গতি পাওয়া যায়নি। কিছু ক্ষেত্রে অন্য কালি ব্যবহার করে নতুন নামগুলিকে নথিভুক্ত করা হয়েছে বটে, কিন্তু তার পরিমাণ অল্পই। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক অত্যন্ত জোরের সঙ্গে দাবি করেছেন যে আদমসুমারির ক্ষেত্রে এবং জাতীয় নাগরিকপঞ্জির চূড়ান্ত খসড়া প্রস্তুতিতে ধর্মভিত্তিক কোনও উপাদানকে গ্রাহ্য করা হয়নি।

অসমে বিদেশি সনাক্তকরণের প্রক্রিয়া চলার যে ইতিহাস তা দীর্ঘদিনের। কিন্তু বিদেশি চিহ্নিতকরণের নামে যাদের হেনস্তা করা হয়েছে, তাঁদের মানবিক অধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে বারবার। অসমের বিভিন্ন রাজ্যের জেলে ৬টি ডিটেনশন ক্যাম্প বানানো হয়েছে। ৮৬ বছরের স্নেহলতা দত্ত নামে পক্ষাঘাতগ্রস্ত বৃদ্ধাকে এর একটিতে অবৈধ অভিবাসী আইনে তিন মাস আটক করে রাখা হয়। অথচ দেশভাগের আগে থেকে তিনি ভারতেই বসবাস করছেন বলে তাঁর আত্মীয়রা দাবি করেছেন। ৪১ বছরের মারিজান বিবিকেও তাঁর দেড় বছরের সন্তানের থেকে আলাদা করে আটকে রাখা হয়েছে বিদেশি শিবিরে।

২০১৮ সালে জাতীয় নাগরিক পঞ্জিকরণের জন্য সরকার এখন অবধি প্রায় ১২০০ কোটি টাকা ব্যয় করেছেন। ১৯৫১ সালের প্রথম জাতীয় নাগরিক পঞ্জিকরণে ব্যয় হয়েছিল ৩৬,৯৭৪ টাকা। অর্থের পরিমাণের পাশাপাশি কাজটি বহুমাত্রিক, এবং এই কাজটির জটিলতাও বৃদ্ধি হয়েছে বিশাল হারে। তবে, এর ফলে আগামী দিনে কি বেআইনি অনুপ্রবেশ বন্ধ হবে? গণতান্ত্রিক প্রজাতান্ত্রিক ভারতের নির্বাচন প্রক্রিয়ায় ‘প্রকৃত’ ভোটদাতাদের অংশগ্রহণও কি এই প্রক্রিয়ার পর আদৌ নিশ্চিত হবে?

ভারতের উচ্চতম ন্যায়ালয় নিশ্চয় সবদিক বিবেচনা করেই দেশের নাগরিকদের পঞ্জিকরণের নির্দেশ দিয়েছেন। কিন্তু লোকসভা নির্বাচনের দোরগোড়ায় তড়িঘড়ি সেই নির্দেশ পালন করতে গিয়ে তালিকা থেকে প্রকৃত নাগরিকদের নাম বাদ পড়ল কিনা অথবা ভুল লোকের নাম দুর্নীতিগ্রস্ত রাজনৈতিক কর্মকর্তা ও সরকারি করণিকদের যোগসাজশে বৈধ তালিকাভুক্ত হল কিনা, তার বিচার কে করবে? ‘অনুপ্রবেশকারী’-দের চিহ্নিত করবার জন্য অসমে বসবাসকারী বিরাট সংখ্যক মানুষের জীবনকে এমন অনিশ্চয়তার মধ্যে ঠেলে দেওয়ার দায় কে নেবে?

বস্তুত, ভারতের মতো জনবহুল একটি দেশের অর্থনৈতিক এবং সামাজিক বিন্যাসকে উদ্বাস্তু জনতা যে নিরন্তর প্রভাবিত করেছে, এই বিষয়ে সন্দেহ নেই। আমেরিকা এবং ইউরোপের বিভিন্ন দেশও আজ উদ্বাস্তু সমস্যা নিয়ে পীড়িত। বিশ্বব্যাপী এমন জ্বলন্ত কঠোর বাস্তব সমস্যাকে তাই শুধুমাত্র সংকীর্ণ রাজনৈতিক দৃষ্টি দিয়ে দেখাটা অমানবিক। সেই কারণে সর্বোপরি যে প্রশ্নটি অবশ্যম্ভাবী তা হল, অনুপ্রবেশের মতো সুদীর্ঘকালীন এক সমস্যা কি এই নাগরিক পঞ্জিকরণে মিটবে? যদি না মেটে, সেক্ষেত্রে ঘৃণাদুষ্ট প্রাদেশিকতা এবং স্বার্থপর ভোট রাজনীতি চলতেই থাকবে। এতে অসমের সংস্কৃতি কতটা সংরক্ষিত হবে অথবা ভারতের জনসাধারণের কতটা উন্নতি ঘটবে, তা নিয়ে সন্দেহ রয়েই যায়। ‘বহিরাগত’ তকমা লাগিয়ে দিলে রাজনৈতিক স্বার্থ হয়তো চরিতার্থ হবে। তবে সহনশীলতার যে ধারা বর্তমান ভারতে ক্ষীণভাবে হলেও বহমান, তা এই রাজনৈতিক তৎপরতায় নিঃসন্দেহে অনেকটা রুদ্ধ হবেই।

About চার নম্বর প্ল্যাটফর্ম 899 Articles
ইন্টারনেটের নতুন কাগজ

2 Comments

  1. তথ্যভিত্তিক দরকারি লেখা! অনেক ধোঁয়াশা কেটে গেল! লেখক কে অসংখ্য ধন্যবাদ!

  2. ভারতবর্ষে আজ পর্যন্ত যত শরণার্থী বা অনুপ্রবেশ ঘটেছে তাদের সিংহভাগই বাঙালি। সুতরাং যদি কোনও কারণে ভারতবর্ষে অনুপ্রবেশকারী দের চিহ্নিত করা হয় তবে তাদের সিংহভাগ টাই বাঙালি হবে তাতে আশ্চর্য হবার কিছু নেই।
    প্রশ্ন হল – স্বাধীনতার এত বছর পরে রাষ্ট্রের যদি ঘুম ভাঙে তবে কি ভাবে এই সুদীর্ঘ কালের ভুল শোধরানো যাবে। যেটা স্বাভাবিক যে প্রথম প্রশ্ন আসবে “মানবিকতা” ও “মানসিকতা” আর সেটার ওপর ভর করে আসবে রাজনীতি কারণ এই সুদীর্ঘ কালের ভুল শোধরাতে গেলে ভুল ভ্রান্তি তো হবেই।

    তাই আমার মনে হয় যে এই মুহূর্তে কোনও কিছু না ভেবে বা কোনও কিছু না করে রাষ্ট্র কে সময় দেওয়া উচিৎ এবং আমি নিশ্চিত যে “যা হয়েছে ভালো হয়েছে, যা হচ্ছে ভাল হচ্ছে, যা হবে ভালই হবে”

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*