ভাটপাড়া থেকে বলছি…

সাহেবুল হক

 

গত আড়াই বছরে বাদুড়িয়া, ধুলাগড়, আসানসোল, ইসলামপুর, ডায়মন্ড হারবার, সন্দেশখালি প্রভৃতি জায়গায় ধর্মকেন্দ্রিক উত্তেজনা প্রমাণ করে ক্ষমতাদখলের প্রয়োজনে ধর্ম ও হিংসার ককটেল গিলিয়ে দেওয়া হচ্ছে বাংলার মানুষকে। ভাটপাড়া এই তালিকায় নবতম সংযোজন। রাজনীতির প্রয়োজনে, ক্ষমতার প্রয়োজনে রক্তমাংস বা লাশের সওদা ভারতীয় রাজনীতিতে স্বাভাবিক বিষয়। পশ্চিমবঙ্গে দীর্ঘ বাম শাসনে রাজনীতির বলি হওয়া মানুষের সংখ্যাও নেহাত কম নয়৷ কিন্তু গত কয়েকবছরে বাংলায় প্রায় প্রতিটি রাজনৈতিক হিংসার আড়ালে সূক্ষ্মভাবে সাম্প্রদায়িকতা ইনজেক্ট করা হচ্ছে৷ যা আধ দশক আগেও পরিলক্ষিত হয়নি। দুঃখের বিষয় অধিকাংশ ক্ষেত্রেই পুলিশ যথাযথ ব্যবস্থা নিতে পারেনি। প্রকাশ্যে সঙ্ঘীদের অস্ত্রপ্রশিক্ষণ শিবির, সোশাল মিডিয়ায় পরিকল্পিত বিদ্বেষ, গরমাগরম ভাষণের বিপক্ষে তেমন কোনও ইতিবাচক তৎপরতা চোখে পড়েনি৷ ফলস্বরূপ প্রশাসনিক ব্যর্থতাকে কাজে লাগিয়ে একের পর এক অঞ্চল টার্গেট করে অশান্তি ছড়ানো হচ্ছে।

অবাঙালি অধ্যুষিত ভাটপাড়া-কাঁকিনাড়া অঞ্চল গত কয়েকমাস ধরেই উত্তপ্ত ছিল রাজনৈতিক টানাপোড়েনে। রাজনৈতিক গুণ্ডামির মধ্যেই একসময় সেই লড়াইকে সাম্প্রদায়িক করে তোলার জন্য যাবতীয় পদক্ষেপ নেওয়া হয়। অর্থাৎ প্রথমে ছিল দুই দলের সংঘর্ষ, ক্রমশ তা দুই সম্প্রদায়ের বিবাদে পরিণত হল। এলাকার সংখ্যালঘু মানুষেরা ঈদের আনন্দ থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। প্রশাসন নির্বিকার। রাজনৈতিক দলগুলিও নীরব। ভাটপাড়া-কাঁকিনাড়ার অশান্তির নেপথ্যে কারা? কারা দায়ী এই অশান্তির জন্য? কেন সরছে না অশান্তির মেঘ? কারা চাইছেন অশান্তির স্বর্গরাজ্য?

উত্তরগুলো সহজেই অনুমান করা যায়৷

পড়ুন — রানিগঞ্জ-আসানসোল স্পেশাল

ভাঙচুর–লুঠ হওয়া দোকানঘরের সামনে প্রশ্নের উত্তরে জনৈক ব্যবসায়ী বলেন, ‘‘গত একমাসে ক’দিন দোকান খুলতে পেরেছি গুণে বলে দিতে পারব। দোকান খুলতে পারলেও লাভ নেই। এই অশান্তির চোটে খরিদ্দার নেই।’’

অন্যান্য ব্যবসায়ীদের গলায় ছিল হতাশার ছাপ, প্রতি বছর ঈদের আগে তাঁদের ভালো ব্যবসা হয়। এবার তা শূন্যে নেমে এসেছে। অশান্তির বাজারে রাতের অন্ধকারে রাজত্ব করে দুষ্কৃতিরা, দিনের বেলায় টহল দেয় পুলিশ।

থমথমে পরিস্থিতির উল্লেখ করে স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, ‘‘১৯ মে ভাটপাড়া বিধানসভার উপ-নির্বাচনের দিন থেকে যে অশান্তি শুরু হয়েছে, তা এখনও চলছে।’’ ওই দিন থেকে শুক্রবার পর্যন্ত একটা দিনও যায়নি, যে দিন এই এলাকায় প্রকাশ্যে বোমাবাজি হয়নি। গত এক মাসে হিংসায় প্রাণ হারিয়েছেন কমবেশি পাঁচ জন। কিন্তু হিংসা বন্ধ হওয়ার কোনও লক্ষণ নেই। মসজিদেও বোমা ছোঁড়া হয়েছে। মানুষজন আহত হয়েছেন বলে অভিযোগ।

স্থানীয় জুটমিলের কর্মী দিলীপ বললেন, ‘‘১৯ মে থেকে ২২ মে পর্যন্ত গোটা এলাকায় প্রকাশ্যে দাপিয়ে বেড়ায় একদল দুষ্কৃতি। তারা বাড়িতে বাড়িতে ভাঙচুর করে, আগুন ধরায়, অবাধে লুঠপাট করে। দুষ্কৃতিদের টার্গেট ছিল, যাঁরা শিবির বদলে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন।” দিলীপের মতো এলাকার একটা বড় অংশের অভিযোগ, ওই সময়ে পুলিশ সেই আক্রমণ প্রতিহত করা দূরে থাক, উল্টে বিনা কারণে পাকড়াও করেছে কিছু বিজেপি সমর্থকদের।

তাঁদের দাবি, ২৩ মে নির্বাচনের ফল ঘোষণার কয়েকদিন পর থেকে পাল্টা প্রতিরোধে নামে বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা। নির্বাচনের ফলাফল থেকে ততক্ষণে পরিষ্কার অর্জুন সিংহের হাত ধরে গোটা এলাকার রাজনৈতিক ক্ষমতার দখল নিয়েছে বিজেপি। এরপরই শুরু হয়েছে পরিকল্পিত হামলা।

ভাটপাড়া থানা পেরিয়ে একটু এগোলে জুটমিলের পাশে ১৯ নম্বর গলি। সেখানকার বাসিন্দা মহম্মদ আশফাক। জুম্মার নামাজ সেরে ফেরার পথে প্রবীণ আশফাক বলেন, ‘‘লুঠপাট করছে দু’পক্ষই।’’ তিনি কাছাড়িপাড়া বাজারের কয়েকটি দোকানের কথা বলে অভিযোগ করেন, ওই এলাকার মানুষ সব লুঠ করেছে। তিনি স্বীকার করেন, অন্য পক্ষেরও অনেকের বাড়ি ভাঙচুর হয়েছে। তাঁরা এলাকা ছাড়া। মহিলাদের অন্যত্র সরিয়ে দিয়ে পুরুষরা বাড়ি আগলাচ্ছেন। এলাকায় আত্মীয় পরিচয় দিয়ে আনাগোনা বেড়েছে বহিরাগতদের। মানুষের অভিযোগ, ‘‘পুলিশ কী করছে? তাঁরা কেন বহিরাগতদের ধরছেন না?”

জনৈক পুলিশ কর্তা বলেন, ‘‘এই অশান্তি রাজনৈতিক সদিচ্ছা ছাড়া মিটবে না। রাজনৈতিক নেতারা নিজেরা সংযত না হলে এই লড়াই থামবে না।’’ তাঁর কথায়, ‘‘এ ধরনের সংঘর্ষ দ্রুত ছড়ায়। কিন্তু এখানে আশপাশের কোনও এলাকায় এই অশান্তি ছড়ায়নি। যা হচ্ছে একটা নির্দিষ্ট জায়গাতেই। এর থেকেই স্পষ্ট, এই হিংসা খুব পরিকল্পিত, যেখানে রয়েছে রাজনৈতিক মস্তিষ্ক।”

এক আধিকারিক বলেন, ‘‘ভোটের পর চার জন কমিশনার এলেন এখানে এক মাসে।” তাঁর কথায়, ‘‘একজন নিজের সদ্য পাওয়া রাজনৈতিক ক্ষমতা আরও বাড়াতে চাইছেন। অন্য পক্ষ চাইছে ক্ষমতার কেন্দ্রে বসতে। তাই তাঁদের কারও সদিচ্ছা নেই এই লড়াই থামানোর। দু’পক্ষই মনে করছেন তাঁরা এই মেরুকরণের রাজনীতি থেকে নিজেদের কব্জির জোর বাড়াচ্ছেন।”

দায়িত্ব নেওয়ার পর শুক্রবার আটটা নাগাদ ভাটপাড়া থানায় পৌঁছন নতুন কমিশনার মনোজ বর্মা। অধস্তনদের একাংশ তাঁকে বলেন, ‘‘পুলিশের দেওয়ালে পিঠ ঠেকে গিয়েছে। আমাদের বুকে বোমা পড়লে আমরাও গুলি চালাব। বোমার কোনও জাত নেই। সে যে পক্ষই ছুঁড়ুক না কেন।’’

পড়ুন — বাদুড়িয়া-বসিরহাট স্পেশাল

এর পাশাপাশি স্থানীয় দুই যুবকের জবানবন্দিতে উঠে এসেছে সেখানকার পরিস্থিতির চিত্র।

ইমতিয়াজ (পরিবর্তিত নাম) বললেন—

কাঁকিনাড়া, মানিকপীর সংলগ্ন এলাকায় প্রায় একমাস আগে থেকে ঝামেলা শুরু হয়ে যায়। শুরুতে পলিটিক্যাল লড়াই থাকলেও, ভেতরে সাম্প্রদায়িক সংঘাত লুকিয়ে ছিল। আস্তে আস্তে যা সুস্পষ্ট হয়৷ এখানে পরিকল্পিতভাবে মুসলমানদের উপর হামলা চালানো হচ্ছে৷ প্রায় সাড়ে চারশোর বেশি বাড়িঘর, দোকানপাট লুটপাট করে জ্বালিয়ে দেওয়ার চেষ্টা হয়েছে৷ এই দ্বিপাক্ষিক ঝামেলায় বেশ কিছু হিন্দুরাও আক্রান্ত হয়েছেন। তাঁদের বাড়িতেও লুটপাট হয়েছে। গুলি ও বোমাবাজিতে মৃত্যু আমাকে ব্যথিত করে তুলেছে৷ একজন শান্তিপ্রিয় মানুষ হিসেবে আমি এর নিন্দা করি। দোষীদের গ্রেফতার ও সাজার দাবী জানাচ্ছি। হিন্দু-মুসলিম মিলে আমরা যেভাবে এতদিন একে অন্যের পাশাপাশি থেকেছি, তেমনই সহাবস্থান চাই…।

আফশোষের ব্যাপার এটাই যে পুলিশ কোনও ইতিবাচক ব্যবস্থা নিতে পারেনি৷ এটা কোনও প্রাকৃতিক বিপর্যয় নয় যে মোকাবিলা করা অসম্ভব। প্রশাসন চাইলে এক সপ্তাহেই সব মিটে যেতে পারত। আমি ব্যক্তিগতভাবে কারও দিকে আঙুল তুলছি না৷ তবে দায়িত্বপ্রাপ্ত মানুষজন তাঁদের কাজটা নিষ্ঠার সাথে করলে এই ভয়াবহ পরিস্থিতি আটকানো যেত৷ আমরা প্রায় শেষধাপে এসে গেছি৷ এই ভয়ের শাসন অসহ্য হয়ে উঠেছে৷ উঠতে-বসতে সারাক্ষণ ভয়ে ভয়ে বেঁচে থাকা। হিন্দু বা মুসলিম কে দায়ী সে তর্ক তোলা থাক। দোষীদের চিহ্নিত করে যথাযথ সাজার ব্যবস্থা করা হোক। এই হিংসা থেমে গেলে আমি মুসলিম কমিউনিটির পক্ষ থেকে শান্তিপূর্ণ আলোচনার দাবী জানাচ্ছি।

সফিউর (পরিবর্তিত নাম) তাঁর কথায় জানিয়েছেন—

মানিকপীর, কাঁকিনাড়ার অবস্থা নিয়ে মিডিয়ার তেমন আগ্রহ ছিল না৷ শুরুর দিকে যদিও কিছুক্ষেত্র খবরে এসেছিল, কিন্তু মিডিয়া আসল সত্যিকে তুলে ধরেনি৷ সবকিছুকে এখানে পলিটিক্যাল দৃষ্টিভঙ্গিতে দেখা হচ্ছে৷ কিন্তু এটা শুধু রাজনৈতিক দঙ্গল নয়৷ ১৯শে মে’র নির্বাচনের পর থেকে ঝামেলা থামার কোনও লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। এই এলাকায় এমপি, এমএলএ বিজেপির। আমি তাঁদের সাফল্যের জন্য শুভকামনা জানাই। বিজেপি যদি সুস্থ রাজনীতি করে তা নিয়ে আমার কোনও অভিযোগ নেই। কোনও দল যদি মানুষের জন্য ভাবে তাকে স্বাগত জানাই৷ কিন্তু বিজেপি কমিউনাল রাজনীতি বাংলার দিকে দিকে ছড়িয়ে দিতে চাইছে। বিজেপির নেতারা বলেন বর্তমান রাজ্য সরকার পরিস্থিতি কন্ট্রোল করতে পারছে না; এটা যেমন ঠিক। তেমনি বিজেপির বাড়বাড়ন্তের আগে এই ধরনের ধর্মীয় হিংসা রাজ্যবাসী প্রত্যক্ষ করেনি। যাবতীয় সাম্প্রদায়িক দঙ্গল বিজেপি প্রভাবিত এলাকায় কেন হচ্ছে ভেবে দেখা প্রয়োজন৷

সাধারণ হিন্দু-মুসলিম বুঝছেন না তাঁদের পলিটিক্যালি ব্যবহার করা হচ্ছে৷ না বুঝেই দাঙ্গা-মারামারিতে জড়িয়ে পড়ছেন। ঝামেলা দু তরফে হলেও মুসলিমরা তুলনায় বেশি আক্রান্ত৷ প্রায় সাড়ে চারশো বাড়ি ও কাঁকিনাড়া বাজারে মুসলিমদের দোকান বেছে বেছে জ্বালানো হয়েছে৷ এলাকার ব্যস্ততম কাছারি রোডে মুসলিমদের দোকানপাট সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। ইকোনমিক্যাল লসের পাশাপাশি প্রাণহানির ঘটনা সবচেয়ে বিপজ্জনক রূপ নিয়েছে৷ মানুষকে বুঝতে হবে আলোচনা ও শান্তিই একমাত্র পথ। যে কোনও মূল্যে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে তুলতে হবে৷ সরকারকে নজর দিতে হবে।

সাম্প্রাদায়িক বিদ্বেষ যেভাবে প্রবেশ করেছে বাংলায় তাকে আটকানো বেশ কঠিন হবে প্রশাসনের পক্ষে। সোশাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়া ভিডিও ও ছবি অন্যান্য এলাকাতেও অশান্তির পরিবেশ গড়ে দিচ্ছে। এটাও দাঙ্গাবাজির রাজনীতির অঙ্গ। ভাটপাড়া-কাঁকিনাড়া বিদ্বেষের রাজনীতির একটা মডেল মাত্র৷

২০২১-এর বিধানসভা নির্বাচনের আগে ভাটপাড়া-কাঁকিনাড়ার ধাঁচে বাংলাজুড়ে অশান্তি ছড়ানো হবে তা বলাই বাহুল্য। সঠিক প্রশাসনিক পদক্ষেপ ও মানুষের সহাবস্থান দিয়ে এই মানবতাবিরোধী শক্তিকে রুখে দিতে হবে।

 

ঋণস্বীকার: বিভিন্ন দৈনিক সংবাদপত্র, নিউজ পোর্টাল ও ভাটপাড়া-কাঁকিনাড়া অঞ্চলের সাধারণ মানুষ।

 

About চার নম্বর প্ল্যাটফর্ম 1802 Articles
ইন্টারনেটের নতুন কাগজ

Be the first to comment

আপনার মতামত...