হন্ডুরাস (২০০৯), প্যারাগুয়ে (২০১২), ব্রাজিল (২০১৬)… বলিভিয়া (২০১৯)?

সুশোভন ধর

 

বলিভিয়ায় সাম্প্রতিক অভ্যুত্থানের ফলে সে দেশের রাষ্ট্রপতি এভো মোরালেস পদত্যাগ করতে বাধ্য হন। জানিন আনিয়েজ নামে একজন সেনেটরকে অন্তর্বর্তী রাষ্ট্রপতি হিসেবে নিযুক্ত করা হয়, সেনাবাহিনির মদতে। এক বড় অংশের মানুষ এই অভ্যুথানের বিরোধিতা করে দেশ জুড়ে বিক্ষোভ দেখালে সে দেশের প্রশাসন সেনাবাহিনির মদতে তাদের ওপর আক্রমণ নামিয়ে এনেছে। দুর্ভাগ্যের বিষয়, এভো মোরালেস, যিনি এই মুহূর্তে মেক্সিকোতে নির্বাসনে আছেন, তিনি দেশে শান্তি ফেরানোর জন্য সকল পক্ষের মধ্যে আলোচনার ডাক দিয়েছেন।

বলিভিয়ার বর্তমান প্রক্রিয়াটি অনেকগুলি পরস্পরবিরোধী ঘটনার সংমিশ্রণে নির্মিত যা খুব দ্রুত পটভূমিকার রং বদলে দিচ্ছে। এর আগে গণ-আন্দোলনের এক বড় অংশ এভো মোরালেসের দিক থেকে সরে যায় এবং বিগত নির্বাচনে সরকারি জালিয়াতির বিরুদ্ধে একটি প্রগতিশীল গণআন্দোলন গড়ে ওঠে এই সরকারের বিরুদ্ধে, বিশেষ করে শহুরে মধ্যবিত্ত শ্রেণির মধ্যে। এই অসন্তোষকে পুঁজি করে বিরোধী দক্ষিণপন্থী বুর্জোয়া নেতারা, বিশেষ করে সান্তাক্রুজ দে লা সিয়েরার লুইস কামাচো, তাদের অবস্থানে অনড় থেকে প্রস্তাবিত নতুন নির্বাচন গ্রহণ না করে মোরালেসের পদত্যাগ দাবি করতে থাকেন এবং সশস্ত্র বাহিনির শীর্ষ কর্তাদের মদতে অভ্যুত্থান শুরু হয়।

পরবর্তীকালে এই সামরিক অভ্যুত্থানকে গণতান্ত্রিক পোশাকের মলাটে সাজানোর চেষ্টা করা হয় এবং বর্তমান বলিভিয়ান সংবিধান অগ্রাহ্য করে কোনওরকম সংসদীয় সংখ্যাগরিষ্ঠতা ছাড়াই সেনেটর জানিন আনিয়েজ রাষ্ট্রপতি হিসাবে দায়িত্বগ্রহণ করেন। সেনাবাহিনির সমর্থন ছাড়া তার এভাবে ক্ষমতায় আসীন হওয়া সম্ভব হত না।

অভ্যুত্থানের বিরোধিতা করা প্রতিরোধ আন্দোলনগুলিকে কঠোরভাবে দমন করা হচ্ছে। প্রথমে পুলিশ দিয়ে, তারপরে সেনাবাহিনির সঙ্গে মিলেমিশে এই দমন-পীড়ন চলছে। ইতিমধ্যে এক ডজনের ওপর মানুষ খুন হয়েছেন এবং ৫০০ জনের বেশি আহত। বহু সাংসদ এবং MAS[i]-এর নেতৃত্ব সহ অগুনতি সাধারণ মানুষ আটক অবস্থায় আছেন। এভো মোরালেসের সমর্থক বিভিন্ন আঞ্চলিক সংগঠন ও কৃষক সংগঠনগুলির সদস্যদের ধরে ধরে জেলে পোরা হচ্ছে। এল আলতো-র প্রতিবাদী জনতা একটি গ্যাস বট্‌লিং প্ল্যান্ট অবরুদ্ধ করলে গুলি চালিয়ে আটজনকে হত্যা করা হয়। মৃতদের কফিন নিয়ে সাধারণ মানুষের একটি বিশাল শোভাযাত্রা বের হলে সেটিকে দমন করে ছত্রভঙ্গ করা হয়। এটা মনে রাখা দরকার যে রাষ্ট্রপতি হিসেবে জানিন আনিয়েজের প্রথম পদক্ষেপই ছিল সশস্ত্র বাহিনিকে তাদের এই ঘৃণ্য কাজকর্ম ও অপরাধের দায় থেকে মুক্ত করা।

বলিভিয়ার রাজনৈতিক শাসনব্যবস্থার এক ভয়ঙ্কর পরিবর্তন ঘটেছে। সেখানকার বুর্জোয়া গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলো সামরিক ও প্রতিবিপ্লবী শক্তির দ্বারা প্রতিস্থাপিত হয়েছে। এদের আক্রমণের মূল লক্ষ্য মানুষের গণআন্দোলন। অবশ্য এভো মোরালেস ও MAS নেতৃত্ব বহুদিন ধরেই গণতান্ত্রিক পরিধিকে সীমিত করে তুলছিলেন। কিন্তু তাদের কাজকর্ম নিয়ে যা সমালোচনাই থাকুক না কেন অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে লড়াই গড়ে তোলাই এই মুহূর্তে একমাত্র ও জরুরি কাজ।

এই অভ্যুত্থান বলিভিয়ার বৃহৎ বুর্জোয়াদের চাহিদার ফসল। তারা মূলত চেয়েছিল এভো মোরালেসের নেতৃত্বাধীন পপুলার ফ্রন্ট পরিচালিত এই বুর্জোয়া সরকারকে খতম করতে। কিন্তু এর বাইরেও এই অভ্যুত্থান আরও কিছু বিষয়ের প্রতি আমাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে— শ্বেতাঙ্গ বুর্জোয়া শ্রেণির সেদেশের আদিবাসীদের প্রতি বর্ণবৈষম্যমূলক ঘৃণা। অভ্যুত্থানের সমর্থক শ্বেতাঙ্গ মধ্যবিত্ত শ্রেণির দ্বারা উইফালা পতাকা পোড়ানো তার প্রমাণ হিসেবে যথেষ্ট। আদিবাসীদের এই ঐতিহাসিক পতাকা এভো মোরালেসের জমানায় নতুন সংবিধানের ফলে বহুজাতিভিত্তিক বলিভিয়া রাষ্ট্রেরও অন্যতম পতাকা হিসেবে মান্যতা পায়।

 

বর্তমান অবস্থা

অভ্যুত্থানের সরকার এখনও খুব একটা গেড়ে বসতে পারেনি। নিজেদের ক্ষমতা জাহির করতে গিয়ে তাদের বেশ কিছু সমস্যার মুখোমুখি হতে হচ্ছে। এর প্রথম এবং প্রধান কারণ হল শক্তিশালী গণপ্রতিরোধ যা তারা সহজে গুড়িয়ে দিতে পারছে না। এই প্রতিরোধের মূল উৎস হল এল আলতো অঞ্চলের বিভিন্ন কাউন্সিল এবং লা পাজের শ্রমজীবী মহল্লাগুলি। কৃষকদের ব্রিগেড এই অঞ্চলগুলি থেকে, এবং পোতোসি ও কোচাবাম্বা অঞ্চল থেকে লা পাজের কেন্দ্রে পৌঁছে গেছে। এছাড়াও কোচাবাম্বার চাপারে অঞ্চলের কৃষকদের সঙ্গে বড়সড় সংঘর্ষ হয়েছে যাতে বেশ কয়েকজন নিহত হয়েছেন। লা পাজ কার্যত অবরুদ্ধ যার ফলে খাদ্যদ্রব্য ও অন্যান্য সামগ্রীর সঙ্কট দেখা দিয়েছে। সরকার আরও দমন-পীড়নের মাধ্যমে এই পরিস্থিতি মোকাবিলার চেষ্টা করছে। এরকম একটা বড় লড়াই হয়েছে এল আলতোর সেনকাতা গ্যাস প্লান্টে। অবরোধকারীদের ওপর সেনাবাহিনি আক্রমণ চালালে বহু মানুষ হতাহত হন। সেনাবাহিনি কোনওরকমে অবরোধ তুলে সাপ্লাই শুরু করতে করতেই আরও অনেক বেশি মানুষ তাদের কাজকর্মের প্রতিবাদে রাস্তায় নামার ফলে অবরোধ আরও শক্তিশালী রূপে আবার শুরু হয়। শেষ পর্যন্ত লাগামহীন সন্ত্রাসের মাধ্যমে এই অবরোধ তোলা হয়, এমন কি ঘটনায় হত মানুষের কফিনগুলো নিয়ে যে শোক মিছিল যাচ্ছিল তার ওপরেও আক্রমণ নেমে আসে।

কিন্তু সমস্যা হল, ওই সঙ্কটের ছায়া সেনাবাহিনির মধ্যেও ছড়িয়ে পড়েছে। বিশেষ করে তলার দিকে সৈন্যরা অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষের সঙ্গে ঐক্যবদ্ধ হয় এবং তাদের একটি অংশ কোচাবাম্বা থেকে আগত কৃষকদের সঙ্গে যোগ দেয়। এই অবস্থার ফলে অভ্যুত্থানের সরকার এক উভয়সঙ্কটের মধ্যে পড়েছে। একদিকে বিক্ষোভ দমন করতে বাড়াবাড়ি রকমের পদক্ষেপ নিলে সৈন্যদের মধ্যেও বিপরীত দিকে যাওয়ার সম্ভাবনা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। অন্যদিকে আন্তর্জাতিক চাপের ফলে নির্বাচনের মাধ্যমে অভ্যুত্থান থেকে সাংবিধানিক মুক্তির রাস্তা খুঁজতে হচ্ছে। পরিস্থিতি হালকা করার উদ্দেশ্যে জানিন আনিয়েজ জানুয়ারির ২০ তারিখ নির্বাচন ডেকেছেন।

এভো মোরালেস অভ্যুত্থানকারীদের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে ঝামেলা মিটিয়ে নেওয়ার কথা বলছেন। কিন্তু এই অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে মানুষের প্রতিবাদ এমন জায়গায় চলে গেছে যে লড়াই আন্দোলন জারি থাকলে আগামী দিনে অভ্যুত্থানকারীরা পরাস্ত হবে। কিন্তু সবচেয়ে বড় সমস্যা হল যে এভো ও MAS-এর রাজনৈতিক অভিসন্ধি সেই দিকে নয়। প্রথমত তাঁরা বলিভিয়া থেকে পালিয়ে যান এবং কোনওরকম প্রতিবাদ ছাড়াই ক্ষমতা হস্তান্তর করেন। তাঁরা বুর্জোয়া সেনাবাহিনিকে বিভক্ত করার কোনও চেষ্টা করতে অপারগ এবং বিপ্লবী সংগ্রামের দিকে নিয়ে যেতে পারে এমন প্রতিরোধকে উৎসাহ দিতে নিজেরা উৎসাহী নন। বরং শ্রমজীবী মানুষের সংগ্রামকে বিকশিত করে অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে পালটা শক্তি প্রদর্শনের বদলে তিনি স্পেনের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী খোসে লুইস রোদ্রিগেজ জাপাতেরোকে মধ্যস্থতাকারী হিসেবে রেখে শান্তি আলোচনার ডাক দিয়েছেন। একদিকে বলিভিয়ার জনগণ অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে প্রাণ দিয়ে যাচ্ছেন এবং অন্যদিকে হত্যাকারীদের সঙ্গে মোরালেস সমঝোতা করার ডাক দিচ্ছেন!

সংগ্রাম বিকশিত হওয়ার ক্ষেত্রে আরেকটি প্রতিবন্ধকতা হল বলিভিয়ার ট্রেড ইউনিয়ন (COB) নেতৃত্বের দুর্ভাগ্যজনক আচরণ। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে অতীতে এই ট্রেড ইউনিয়নের সাহসী লড়াইয়ের এক বিরাট ঐতিহাসিক ভূমিকা থাকার কারণে জনগণ এখনও তাদের ওপর ভরসা করে থাকেন। প্রথমে এর নেতৃত্ব মোরালেসের পদত্যাগের দাবি তোলেন, ঠিক সেইসময়, যখন সেনাবাহিনিও একই দাবি তুলেছিল। এরপরে তারা কোনওরকম প্রতিবাদে নামতে অস্বীকার করে কিংবা অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষের যে গণআন্দোলন গড়ে উঠেছে তাদের কোনওরকম সাহায্য করতে অস্বীকার করে। কোনও কোনও প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে যে এল আলতোর বহু কলকারখানা বন্ধ রয়েছে কিন্তু আমরা নিশ্চিত নই যে তা শ্রমিকদের সিদ্ধান্তের কারণে না শহরের পরিস্থিতির জন্য। এর মধ্যে হুয়ানানি খনি অঞ্চলের ইউনিয়ন প্রতিনিধি কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছে দাবি জানিয়েছে বর্ধিত কেন্দ্রীয় সভা ডাকার জন্য এই অভ্যুত্থান ও তাদের পদক্ষেপ নিয়ে আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য। এরপরে এই খনি শ্রমিকরা হুয়ানানি শহরের মূল সংযোগস্থল অবরোধ করে ওই প্রদেশের রাজধানীর সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়।

 

বহুজাতিভিত্তিক রাষ্ট্র

বর্তমান পরিস্থিতির পুঙ্খানুপুঙ্খ বিশ্লেষণের জন্য এভোর ১২ বছরের শাসনকালের হিসেবনিকেশ এবং এই পরিস্থিতিতে তাঁর দায়িত্ব-কর্তব্য নিয়ে আলোচনা প্রয়োজন। এভো মোরালেস কোচাবাম্বা অঞ্চলের চাষিদের নেতা হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন। মার্কিন সাম্রাজ্যবাদী অঙ্গুলিহেলনে বলিভিয়ার সরকার তাঁকে আটের দশকের শেষে ও নয়ের দশকে বিভিন্নভাবে হেনস্থা করতে থাকে। এমন পরিস্থিতিতে তিনি MAS-IPSP (সমাজতন্ত্রের জন্য আন্দোলন – জনগণের সার্বভৌমত্বের জন্য রাজনৈতিক শক্তি) গঠন করেন এবং ২০০৬ সালে বলিভিয়ার রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন। উরু আইমারা জনগোষ্ঠীর সদস্য মোরালেস, নির্বাচনী প্রচারে কেন্দ্রীয় ইস্যু হিসেবে বলিভিয়ার সংখ্যাগুরু আদিবাসী মানুষের ওপর শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে চলতে থাকা লুঠপাট ও নিপীড়নের কথা তুলে ধরেন। তিনি সেই সময় দেশের প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষার সংগ্রামে অবিসংবাদী নেতা হিসেবে উপস্থিত হয়েছিলেন।

২০০৮ সালে বলিভিয়ায় নতুন সংবিধান তৈরি হয় যার অনেকগুলি ইতিবাচিক দিক আছে। বলিভিয়াকে বহুজাতিভিত্তিক রাষ্ট্র ঘোষণা করা হয় ও সেদেশের পতাকার সঙ্গে আদিবাসীদের উইফালা পতাকাটিকে অন্যতম জাতীয় পতাকা হিসেবে মান্যতা দেওয়া হয়। সেদেশের আদি বাসিন্দারা মনে করেন যে এভোর মাধ্যমে প্রথমবার তাঁরা দেশের শাসন ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হয়েছেন। এভো বহু ক্ষেত্রে তাদের স্বার্থের বিপক্ষে কাজ করলেও এই বহুজাতিভিত্তিক রাষ্ট্র বলিভিয়ার আদিবাসীপ্রধান শ্রমজীবী মানুষের এক বড় জয়।

 

এভো মোরালেসের সরকার ও MAS-এর নেতৃত্ব

মার্কিন সাম্রাজ্যবাদের বিরোধিতা, প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষার সংগ্রাম ও পরিবেশ বাঁচানোর লড়াইয়ে তিনি পরবর্তীকালে সমগ্র বিশ্বের রেফারেন্স হিসেবে গণ্য হন। কিন্তু সেদেশের আদিবাসীদের ওপর চলে আসা নিপীড়ন বা দেশের প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষার ব্যাপারে তাঁর পদক্ষেপগুলি কখনওই বুর্জোয়া গণ্ডির বাইরে যায়নি, তিনি কখনও চেষ্টা করেননি সাম্রাজ্যবাদ-পুঁজিবাদের আসল সীমা অতিক্রম করার। তিনি বলিভিয়ার আধা-উপনিবেশবাদী পুঁজিবাদী চরিত্রের কোনও পরিবর্তন করার চেষ্টা করেননি এবং সেই কারণেই তাঁর সরকার সমস্যার গভীরে প্রবেশ করেনি। তাঁর নেতৃত্বে পরিচালিত সরকারকে আমরা বুর্জোয়া পপুলার ফ্রন্ট সরকার বলে সংজ্ঞায়িত করতে পারি। বহুক্ষেত্রে তারা বেশকিছু মধ্যপন্থী জাতীয়তাবাদী সংস্কারের পদক্ষেপ নিয়েছিল। উদাহরণস্বরূপ বলা যেতে পারে প্রাকৃতিক গ্যাসের অনুসন্ধানের ক্ষেত্রে আইন করে রাষ্ট্রের অংশীদারিত্ব অনেক বেশি রাখা হয়েছে কিন্তু এই অনুসন্ধানগুলির চুক্তি হয়েছিল আন্তর্জাতিক বাজারের গ্যাসের দামের তুলনায় অনেক কম টাকায় ব্রাজিলের পেট্রোব্রাসের মতো কিছু বিদেশি সংস্থার সঙ্গে। তারা হুয়ানানির টিন খনিগুলিতে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন সংস্থাকে দুর্বল করে বেসরকারি খাদানের অনুমতি প্রদান করেছিল যার ফলে শ্রমিক অসন্তোষ দেখা দেয়। তাঁরা ২০০৭ সালে এল মুতুনের উচ্চমানের আকরিক লোহার বিশাল ভাণ্ডার ব্রিটিশ-ভারতীয় বহুজাতিক সংস্থা জিন্দাল স্টিল অ্যান্ড পাওয়ার লিমিটেড-কে হস্তান্তর করতে ইচ্ছুক ছিলেন।

মূল বিষয় হল বলিভিয়ার পুঁজিবাদী চরিত্র পরিবর্তন না করে বা প্রাকৃতিক সম্পদ লুঠপাট বন্ধ না করে তারা কেবলমাত্র খনিজ উৎপাদনের কিছু বাড়তি অংশ সরকারি ভাগ হিসেবে সুরক্ষিত করার চেষ্টা করেছিল। এর ফলে অর্থনৈতিক বিকাশ স্থিতিশীল হয়েছে এবং পরিকাঠামোগত আধুনিকীকরণের ফলে জনগণ কিছু কিছু সুবিধা পেয়েছে। অবশ্যই সেদেশের উচ্চ দারিদ্র্যের হার অনেক শতাংশ হ্রাস পেয়েছে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত কোনও মৌলিক পরিবর্তন তো হয়নি বরং তা বর্তমান পরিস্থিতি তৈরি করতে সাহায্য করেছে। উদাহরণস্বরূপ তিনি কখনোই সান্তাক্রুজের প্রতিক্রিয়াশীল বুর্জোয়াদের বিরুদ্ধে লড়াই করেননি উল্টে তাদের সঙ্গে মিলেমিশে চলার চেষ্টা করেছেন। তাদের বহু স্থায়ী রাজনৈতিক এবং অর্থনৈতিক ছাড় দিয়েছেন যার ফলে বলিভিয়ার আমাজন আজ জ্বলছে। একইসঙ্গে তাঁর গত কয়েক বছরের শাসনকালে বুর্জোয়া সেনাবাহিনির রাজনৈতিক ভূমিকা আরও জোরদার হয়েছিল।

 

নির্বাচনী বেনিয়ম

বিগত দিনের ঘটনা ভালোভাবে খতিয়ে দেখলে বোঝা যায় যে অভ্যুত্থানের সলতে পাকানোর কাজটা তাঁর সরকারের দ্বারাই করা হয়েছিল যা পরবর্তীকালে অভ্যুত্থানকারীরা পারদর্শিতার সঙ্গে ব্যবহার করে। ২০১৬ সালে, চতুর্থবার রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে দাঁড়াতে বর্তমান সংবিধান সংশোধনের ব্যাপারে গণভোটের আয়োজন করেন। এই নির্বাচনে তিনি সামান্য ব্যবধানে পরাজিত হন। কিন্তু তা সত্ত্বেও ঘুরপথে সেদেশের নির্বাচন কমিশন তাঁর চাপে ২০১৯-এর প্রার্থীপদ অনুমোদন করতে বাধ্য হয়। ভোট গণনার সময়ে আংশিক ফলাফলগুলি ইঙ্গিত দেয় যে তিনি তার প্রধান প্রতিপক্ষ, কার্লোস মেসাকে, ছাড়িয়ে গেলেও দ্বিতীয় দফার প্রতিদ্বন্দ্বিতা এড়াতে প্রয়োজনীয় ভোট পাবেন না। সেই মুহূর্তে গণনা স্থগিত করা হয় এবং তারপরে নির্বাচন কমিশন জানায় যে প্রথম দফায় অর্ধেকের বেশি ভোট পেয়ে এভো জিতে গেছে এবং তিনি নিজেকে নির্বাচিত রাষ্ট্রপতি হিসেবে ঘোষণা করেন। সরকার এবং নির্বাচন কমিশনের জালিয়াতির প্রমাণ ব্যবহার করে প্রধান বিরোধী প্রার্থী কার্লোস মেসা আন্দোলনের ডাক দেয় যা পরিবর্তন প্রক্রিয়াটিকে উন্মুক্ত করে।

বলিভিয়ার অভ্যুত্থান আসলে একটি সাংবিধানিক রাজনৈতিক শাসনব্যবস্থার সহিংস পদ্ধতিতে অপসারণ এবং সামরিক বাহিনির সাহায্যে একটি দমনমূলক ব্যবস্থা কায়েম। ক্ষমতা পরিবর্তনের এই চরিত্র কখনওই বদলায় না বা বদলাবেও না, ভবিষ্যতে কোনও জাতীয় বা আন্তর্জাতিক রাজনৈতিক কারণের চাপে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলেও। বলিভিয়া ও লাতিন আমেরিকান কিছু কিছু বামপন্থী অবশ্য মনে করেন যে সে দেশে কোনও অভ্যুত্থান হয়নি এবং এই পালাবদলের মূলে রয়েছে মানুষের ক্ষোভ-বিক্ষোভ। এভোর রাজনৈতিক জালিয়াতির কারণে মানুষ ক্ষিপ্ত হয়ে এই পরিবর্তন সঙ্ঘটিত করে এবং তাঁকে পদত্যাগ করতে বাধ্য করে। তারপর থেকে প্রক্রিয়াটি সাধারণ প্রাতিষ্ঠানিক পথেই চলছে এবং অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের কোনও প্রশ্ন নেই। এই যুক্তিটি রাজনৈতিক বিশ্লেষণ এবং সামগ্রিকভাবে প্রক্রিয়াটির বৈশিষ্ট্যের ব্যাপারে সম্পূর্ণ ভুল জায়গায় দাঁড়িয়ে আছে।

এই বলিভিয়ায় যা ঘটেছে তাকে প্রতিহত করা ভীষণ জরুরি কেন না এই অভ্যুত্থান যদি সংহত হয় তা শ্রমিক শ্রেণির জন্য এক বিরাট পরাজয় বয়ে নিয়ে আসবে। আমরা অবশ্যই মোরালেসের সরকারের জনবিরোধী বিভিন্ন পদক্ষেপ এবং বিশেষ করে এই নির্বাচনী জালিয়াতির বিরুদ্ধে কথা বলব কিন্তু এই অভ্যুত্থান অকস্মাৎ পটভূমিকার পরিবর্তন ঘটিয়ে দিয়েছে। বলিভিয়ায় যা ঘটেছে তাকে প্রতিহত করতেই হবে।


[i]Movimiento al Socialismo–Instrumento Político por la Soberanía de los Pueblos, MAS-IPSP, বা MAS এভো মোরালেরেসের নেতৃত্বাধীন বলিভিয়ার বামপন্থী ও আদিবাসীদের পার্টি।

About চার নম্বর প্ল্যাটফর্ম 2508 Articles
ইন্টারনেটের নতুন কাগজ

Be the first to comment

আপনার মতামত...