বেসরকারি উদ্যোগ: একমাত্র দাওয়াই?

প্রবুদ্ধ বাগচী

 

উদারবাদী নয়া অর্থনীতি যবে থেকে আমাদের দেশে চালু হয় তখন থেকেই দুটো কথা জনমনে খুব সুকৌশলে ভাসিয়ে দেওয়া হয়েছিল। একটা হল বেসরকারিকরণ অন্যটা প্রতিযোগিতা। বলা হয়েছিল দেশের হাল ফেরাতে এই দুটো অব্যর্থ দাওয়াইয়ের কোনও বিকল্প নাকি হতেই পারে না। এটা সেই সময় যখন উপযুক্ত ম্যানেজমেন্টের অভাবে বেশ কিছু রাষ্ট্রায়ত্ত ক্ষেত্র খানিকটা সমস্যায়, কিছু ক্ষেত্রে সরকারি সংস্থা কিছুটা মনোপলির জায়গায় থাকলেও তাদের কিছু সংস্কার দরকার। তাছাড়া এমন কিছু বিষয় আছে যেখানে সরকারি উদ্যোগ ঠিক ততটা আশু প্রয়োজন নয়; যেমন বিমান পরিবহন। এগুলো বিবেচনার জায়গা অবশ্যই ছিল। কিন্তু সংস্কারের নামে সব কিছুকেই বাতিল করে দেওয়া কোনও সুবিবেচনার কাজ নয়। সেই সময় বা তার পরেও এক শ্রেণির চিন্তাশীল অর্থনীতিক বার বার এই কথাগুলো নিজেদের মতো করে বলতে চেয়েছেন। কিন্তু দেশের কেন্দ্রীয় সরকার তাতে কর্ণপাত করার প্রয়োজন মনে করেননি। মনমোহন সিংহ যখন দেশের অর্থমন্ত্রী ছিলেন তখন এইসব ভাবনার সূত্রপাত আর তার কয়েকধাপ আগ্রাসী চেহারা আমরা দেখেছি এনডিএ জমানায় অটলবিহারী বাজপেয়ির আমলে যখন একটা দফতর খুলে ফেলা হয়েছিল সরকারি সংস্থা বেচে দেওয়ার জন্য। এই মুহূর্তে যারা নয়াদিল্লিতে ক্ষমতার ভরকেন্দ্রে বসে আছেন তাদের আগ্রাসন অবশ্য যে আরও সুতীব্র তা আমরা গত পাঁচ বছরে টের পেয়েছি, এখনও পাচ্ছি।

কিন্তু সেদিনের ওই দুই বহুল বিজ্ঞাপিত সর্বরোগহর বটিকা যে অনেকটাই নীতিপ্রণেতাদের দিবাস্বপ্ন তা আজ অনেকটাই স্পষ্ট। অন্তত আমি আপনি আমাদের হাতে বা পকেটে রাখা মোবাইল সেটটার দিকে তাকালে সেটা বুঝতে পারব। বেসরকারি বিনিয়োগকে দেশের যে সব ক্ষেত্রগুলোতে প্রথমেই প্রাধান্য দেওয়া হয়েছিল তাদের মধ্যে অন্যতম ছিল টেলিকম শিল্প। তার আগে টেলিপরিষেবার জন্য দেশজোড়া একটাই সংস্থা বিএসএনএল, ইন্টারনেট পরিষেবাও ডানা মেলল এমনই একটা সরকারি সংস্থা বিদেশ সঞ্চার নিগমের হাত ধরে। কিন্তু দেশি ও বিদেশি সংস্থা এসে পড়ার পর পুরো পরিকাঠামো সমেত বিদেশ সঞ্চার নিগমকে নামমাত্র পঁচিশ কোটি টাকায় বিক্রি করে দেওয়া হল টাটা টেলিসার্ভিসেস এর কাছে। ওই পরিকাঠামো কাজে লাগিয়ে বেসরকারি কোম্পানি তাদের নতুন পরিষেবা চালু করে দিলেন। মোবাইল পরিষেবার সম্ভাবনা দেশে বিকশিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই একগুচ্ছ দেশি বিদেশি সংস্থা নেমে পড়ল তাদের বিপণনে। সরকারি সংস্থা বিএসএনএল সেই প্রতিযোগিতায় সামিল হল শুধু নয়, গোড়ার দিকে বেশ সুনামের সঙ্গে ও ন্যায্য মূল্যে পরিষেবা দিতে শুরু করল। বিশেষ করে প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে, পার্বত্য এলাকায় একমাত্র নির্ভরযোগ্য পরিষেবা পাওয়া যেত বিএসএনএলের মাধ্যমেই। বেসরকারি সংস্থাগুলি হাচ (পরবর্তী সময়ে ভোডাফোন) বা এয়ারটেল তুলনায় ছিল মহার্ঘ এবং মূলত শহরকেন্দ্রিক। কিন্তু সবার ওপরে বেসরকারি সংস্থা সত্য, তার উপরে কিছু নেই, এই আপ্তবাক্যে আমাদের নীতিনির্ধারকদের পরম আস্থা, তাই একের পর এক মোবাইল কোম্পানি এসে ভিড় জমাল আমাদের পাশে। প্রতিযোগিতার নাকি কোনও বিকল্প নেই সুতরাং তারা গ্রাহকদের সামনে খুলে ধরল নানা আকর্ষণীয় প্যাকেজ। আমাদের পোয়াবারো, আমরা এই কোম্পানি থেকে ওই কোম্পানি ঘুরে কোথায় লাভজনক প্যাকেজ আমাদের পকেটের একটু সাশ্রয় করে সেইদিকে আপনবেগে পাগলপারা হয়ে ছুটে বেড়াতে লাগলাম। তার ওপর নিজের নম্বর বদল না করেই যদি কোম্পানি বদল করে নেওয়া যায় সে তো আরেক মস্ত মওকা। গ্রাহক হিসেবে আমরা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেললাম। ভাগ্যিস বেসরকারি কোম্পানিগুলোকে প্রতিযোগিতা করার সুযোগ দিয়েছিল সরকার বাহাদুর! আমরা বাজার অর্থনীতিকে পরোক্ষে আশীর্বাদ করতে শিখলাম।

ঠিক এইখান থেকেই পটবদল। ২০১৪ সালে গঠিত নতুন সরকারের সঙ্গে গলায় গলায় সখ্যের জোরে রিলায়েন্স কোম্পানি তাদের পুরনো ব্যবসা গুটিয়ে দিয়ে নতুন মোবাইল ব্যবসায় নামল। বলতে গেলে দেশের মোবাইল পরিষেবার জগতে এক উপপ্লব ঘটে গেল। তারা গ্রাহকদের বিনি পয়সায় দেদার কথাবলা ও ইন্টারনেট পরিষেবা ব্যবহারের সুযোগ দিল— দেশজুড়ে হই হই পড়ে গেল। মানুষ ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থাকলেন একটা সিম কার্ড পাওয়ার প্রত্যাশায়। মাস ছয়েক এই মাগনা পরিষেবার পর তারা বাজারে নামল, মাশুল কমানোর প্রতিযোগিতার সিংদরজা খুলে গেল। বছর দেড় দুই পরে দেখা গেল বেশ কিছু কোম্পানি এই প্রতিযোগিতায় টিকতে না পেরে ব্যবসা গুটিয়ে নিল। এক ধাক্কায় বেশ কয়েক হাজার মানুষের কাজ চলে গেল। অর্থনীতি বলেছিল প্রতিযোগিতায় সবাইকে সমান সুযোগ দিতে হবে কিন্তু সরকারি সংস্থা বিএসএনএল সেই সুযোগ পেল না— তাদের ফোর জি স্পেক্ট্রাম কিনবার অনুমতিই দেওয়া হল না। বাকিরা সেই সুযোগ নিয়ে ব্যাবসা করল, বিএসএনএলের পরিকাঠামো ব্যবহার করে গ্রাহকদের পরিষেবা দিল কিন্তু বিএসএনএল পারল না। এমনকি নিজেদের প্রযুক্তিগত উন্নতির জন্য যে অর্থ পাওয়ার কথা তাও বরাদ্দ হল না।

আজকে এই মুহূর্তে বিএসএনএল বাদ দিলে ঠিক তিনটে কোম্পানি মোবাইল পরিষেবায় যুক্ত। মাশুল যুদ্ধের পরিণতিতে রিলায়েন্স-জিও বাদ দিলে বাকি দুটির অবস্থা বেশ খারাপ। বিপুল ক্ষতির কথা তারা বলছে, জানাচ্ছে বিপুল বকেয়া রাজস্বের কথা। কেন এমন হল? প্রতিযোগিতা যদি সত্যিই স্বাস্থ্যকর হয় তবে এইটুকু দৌড়েই তাদের শ্বাস আটকে গেল কেন? মুশকিল হল, বিএসএনএল সংস্থাটিকে সরকার যখন ভাতে মারার ব্যবস্থা করছেন তখন তার সপক্ষে বলা হচ্ছে তাদের পরিচালন ব্যবস্থা নাকি উপযুক্ত মানের নয় বা তাদের গ্রাহক পরিষেবা দুর্বল— প্রশ্ন হল, তথাকথিত উন্নত মানের গ্রাহক পরিষেবা বা পরিচালন ব্যবস্থা নিয়েও বাকি কোম্পানিগুলি তাহলে মুখ থুবড়ে পড়েছে কেন? এই প্রশ্নের কোনও সদুত্তর নেই। কিন্তু সেই উত্তর হাতের বাইরে হলেও বাকি কোম্পানিগুলি সকলেই কিন্তু সরকারের কাছে নাকিকান্না জুড়ে বলছে, এই ক্ষতি ঠেকাতে আপাতত তাদের মাসুল বাড়ানোর সুযোগ দেওয়া হোক। এই দাবির মধ্যে কিন্তু কোনও প্রতিযোগিতার লেশমাত্র নেই। আর বিস্ময়ের কথা, যারা এতদিন খোলাবাজারি প্রতিযোগিতার পক্ষে ছিলেন তাঁরা সরকারের রাজস্ব ক্ষতি মেনে নিয়েও কোম্পানিগুলিকে মাসুল বাড়ানোর অনুমোদন দিয়েছেন। সদ্য ডিসেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে সেগুলি কার্যকরী হয়েছে। মজা হল এখন কেউ কিন্তু প্রতিযোগিতামূলক মাসুলের কথা একবারও উচ্চারণ করছেন না। ফলে এই বেহিসেবি প্রতিযোগিতার আসল মূল্য কিন্তু বহন করতে হচ্ছে সেই আমাদের মতো গ্রাহকদের। খেয়াল করার বিষয়, ঘোষিত পরিবর্ধিত মাসুলের বিচারে প্রতিটি কোম্পানিগুলিই কিন্তু উনিশ বিশ— এখানে গ্রাহকের সামনে অপশন বলতে কিছুই থাকল না। এবং সেই সঙ্গে লক্ষ করতে হবে মাসুল বাড়ানোর হার। প্রায় পঞ্চাশ শতাংশ পর্যন্ত মাসুল বাড়ানো হয়েছে যা একেবারে গ্রাহক স্বার্থের পরিপন্থী, কিন্তু গ্রাহকদের এখন কিচ্ছুটি করার নেই এগুলোকে মেনে নেওয়া ছাড়া। মানে বিষয়টা দাড়াল, বিনা মাসুলে পরিষেবা দিয়ে গ্রাহককে বেঁধে ফেলে তারপর তার ওপর বাড়তি মাসুল চাপিয়ে দেওয়া। সরকারি সংস্থার একচেটিয়া ব্যাবসা যাদের গাত্রদাহের কারণ হয়েছিল আজ কিন্তু ঘুরপথে সেই একচেটিয়া ব্যবস্থারই দরজা খুলে গেল। এর পরেও পরিষেবা সংস্থাগুলি সরকারের কাছে ত্রাণ প্যাকেজ চাইছে। কেন? তাদের তো উন্মুক্ত প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতে দেওয়া হয়েছিল তার পরেও তাদের লোকসান হল কোন বিচারে? এইসব বিবেচনাকে মুলতুবি রেখে সরকার তাদের আহ্বানে ইতিবাচক সাড়া দিয়েছে বলেই সংবাদ, ঠিক যেভাবে কর্পোরেট ট্যাক্সে ছাড় দিয়ে সাধারণ মানুষের টাকায় বাণিজ্যমহলকে ব্যক্তিগত মুনাফার জন্য মাথায় তোলা হল। তাহলে প্রতিযোগিতার পক্ষে যেসব বাজনা বাজানো হয়েছিল একসময় তার কি সবটাই ছিল লোকদেখানো এবং একই সঙ্গে লোক ঠকানোও বটে?

এবার আসা যাক বেসরকারি বিনিয়োগের দিকে। আমরা আগেই দেখলাম, দেশি বিদেশি বিনিয়োগ টেলিকম ক্ষেত্রে প্রাথমিকভাবে একটা আশাপ্রদ ক্ষেত্র তৈরি করলেও খুব অল্প দিনেই তার অবসান হয়েছে। নতুন কাজ তৈরির দিক দিয়ে বরং তা অনেক মানুষের কাজের পরিধি সঙ্কুচিত করেছে। এই বিষয়েই এসে যাবে বেসরকারি বিমান পরিবহনের কথা। আর পাঁচটা ব্যবসার মতো এই ক্ষেত্রেও বিভিন্ন বেসরকারি বিমান সংস্থাকে সরকার কাজ করার অনুমতি দিয়েছিল। যদিও বিমানবন্দরের প্রযুক্তিগত বন্দোবস্ত সবই সরকারি নিয়ন্ত্রণে কিন্তু যাত্রী পরিবহনের বিষয়ে বেসরকারি বিনিয়োগকে স্বাগত জানানো হয়েছিল। সেইমতো বেশ কিছু বেসরকারি বিমান পরিবহন সংস্থা তাদের পরিষেবা চালু করেছিল। এখনও কিছু সংস্থা বিমান চালায়। কিন্তু শুধুমাত্র বেসরকারি বিনিয়োগ দিয়ে যে পরিষেবা দেওয়া যায় না তার দুটো বড় উদাহরণ কিংফিশার এয়ারলাইন্স ও স্পাইস জেট। দুই সংস্থার মধ্যে একটির কর্ণধার ঋণ খেলাপ করে বিদেশে পালিয়েছেন, অন্যজন তার সংস্থা তুলে দিয়ে বসে গেছেন। ক্ষতি হয়েছে এই দুই সংস্থার সঙ্গে জড়িয়ে থাকা কর্মীদের যারা অকালে কাজ হারিয়েছেন এবং সামান্যতম ক্ষতিপূরণ পাননি। অথচ এই ধরনের সংস্থাগুলির বিষয়ে সরকারের পক্ষে কিছুই করা হয়নি। কিংফিশার এয়ারলাইন্সের মালিক তো দীর্ঘদিন দেশছাড়া। তার বিরুদ্ধে কোনও আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার পর্যন্ত সংস্থান নেই।

ফলে একটা বিষয় আজকের মুহূর্তে এসে একদম স্পষ্ট যে একটা সময়ে বিভিন্ন ক্ষেত্রে ঢালাও বেসরকারিকরণ ও তার মাধ্যমে উঠে আসা প্রতিযোগিতাকে সরকারি নীতিতে বাহবা দেওয়া হয়েছিল তার বেশিটাই ছিল ফুলিয়ে তোলা ব্যাপার। এটা সরল সত্য যে এদেশের বিনিয়োগকারীরা একটু বিপদে পড়লেই নিজেরা ব্যাবসা গুটিয়ে নিয়ে সাধারণ মানুষকে পথের ভিখারি করে দেয় আবার একই অজুহাতে সরকারি অর্থে নিজেদের ত্রাণ পাওয়ার চেষ্টা চালায়। তাদের কোনও শাস্তি হয় না ও তারা ত্রাণ পেয়েও যায়। তাই বেসরকারিকরণের গোলাপি ভবিষ্যৎ দেখিয়ে বিএসএনএল বা এয়ার ইন্ডিয়ার মতো সংস্থাকে সরকারি উদ্যোগে রুগ্ন করে দেওয়া হয়। লাভজনক হওয়া সত্ত্বেও এলআইসিকে বাধ্য করা হয় রুগ্ন সংস্থার শেয়ার কিনতে, এসবিআইকে বলা হয় ঋণ মকুব করে দিতে বা বিপিসিএলকে বেসরকারি হাতে তুলে দেওয়া হবে বলে ভাবনা চিন্তা চলে। সত্যিই বিচিত্র এই দেশ!

 

About চার নম্বর প্ল্যাটফর্ম 2331 Articles
ইন্টারনেটের নতুন কাগজ

Be the first to comment

আপনার মতামত...