তোতাকাহিনি নিউ অ্যান্ড ইমপ্রুভড

অনুচ্চকিতা দেবী

 

মন্ত্রী কহিলেন – তোতাগুলি বড় চেঁচাইতেছে।
রাজা বলিলেন – চেঁচাইছিলি কেনে?
তোতারা বলিল – আজ্ঞে না মহারাজ আমি ত চেঁচাইনি, আমি ত গান গাইছিলুম, ভৈরবী রাগিণী।
রাজা বলিলেন – তোতার মুন্ডু কাটিয়া লও।
মন্ত্রী গলা খাঁকারি দিয়া কহিলেন – আজ্ঞে মহারাজ আমাদের সংবিধানে গান গাহিবার জন্য মুন্ডু কাটিবার বিধান নাই।
রাজা বলিলেন – কেন নাই?

তখন পাত্র মিত্র সভাসদ কবি চামচা সকলেই এ ওর মুখের দিকে চাহিল। কেন নাই? কেন নাই?

কেহই সদুত্তর দিতে পারিল না।

রাজা বলিলেন – এই সংবিধান রদ। এই সংবিধান বা—-জে।
সকলেই মাথা নাড়িয়া বলিল – বাজে । বাজে।
রাজা সংবিধান কাটিয়া বিধান দিলেন। এইবার হইতে তোতারা খাঁচায় বসিয়া গান গাহিলে মুন্ডু কাটা যাইবে। খাঁচার বাহিরে গান গাহিলে ঘরে ঘরে অভিযান চালাইয়া খাঁচায় পুরিতে হইবে। তারপর মুন্ডু কাটা যাইবে।

লোকে বলিল, এতদিনে একটা বিধান হইল বটে। সংটা কাটা পড়িল।

 

তোতা আর একা নহে। তোতার সঙ্গে আরও আরও তোতা আসিয়া জুটিয়াছে। সে আর সোনার খাঁচায় থাকিবে না। সে আর কাগজ গিলিবে না। সে ঠোঁট দিয়া সমস্ত পুথি টুকরা করিতেছে। সে স্টেজে উঠিয়া পুথি ছিঁড়িয়া ফোটো অপ নিতেছে।

শুধু তাহাই নহে, তোতার সহিত প্রচুর বগুলা, কাউয়া, ময়না আসিয়া জুটিয়াছে।

ময়নারা বলিল, আমরা আর শিখান বুলি গাহিব না।
সভাসদবর্গ বলিল, ছি ছি, ইহাদের মাথায় হাল্লার রাজা এইসব ঢুকাইয়াছে। মাথায় ঘোল ঢালিয়া হাল্লায় পাঠাও।
বগুলা বলিল, আমি তোতাদের সঙ্গে আসিয়া দাঁড়াইতেছি।
সভাসদবর্গ বলিল, বগুলারা সিনেমার প্রচারে আসিয়াছে, হিট পায় না বহুদিন, তাই।
কাউয়া বলিল, কা কা ছি ছি।
সভাসদ বলিল, ইহারা কুযুক্তি দিতেছে। সব যুক্তি আমাদের রাজা মহাশয়ের মাথায়। কানে দুইটা ছিপি আঁটিয়া তিনি সব যুক্তি বাহির হইবার পথ বন্ধ করিয়া দিয়াছেন। তাই আর যুক্তি বাহিরে নাই। কী করিয়া কাউয়া বগুলারা আর যুক্তি দেয় দেখি!!!

 

তোতারা বাহাত্তর দিন অনশন করিল। পুঁথি খাইল না। ডান্ডা মারিয়া তোতাদের মাথা ফাটানো হইল। কী আশ্চর্য তোতাদের মাথা হইতে রক্ত বাহির হইল না শুধু রং বাহির হইল।

সেই রং আবার লাল রং।

রাজা বলিলেন, লাল রং খুব খারাপ আছে।
মন্ত্রী বলিলেন, ইহারা ষড়যন্ত্র রচিয়া মাথায় লাল রং ঢুকাইয়া রাখিয়াছে।
সভাসদ বলিল, লাল রং মানেই পুবের দেশের রং। উহাদের দেশছাড়া করো।

ময়না গাহিল, ওরে সবুজ ওরে আমার কাঁচা।
সভাসদ বলিল, সবুজ মানেই পশ্চিমের দেশের রং। উহাদের পশ্চিমে পাঠাইয়া সীমানা পার করিয়া দাও।

রাজা বলিলেন, মন্ত্রী, খাঁচার অবস্থা কী?
মন্ত্রী বলিলেন, সব তোতাকে সীমানা পার করানো হইয়াছে মহারাজ, শুধু খাঁচার ভিতরে ভিসি নামে একটা পাখি বসিয়া বসিয়া দানা খুঁটিতেছে। উহাকে কী করা যায়?
রাজা বলিলেন – উহাকে শান্তিপূর্বক খাঁচাপরিচালনার জন্য ইনাম দাও। সোনার শিকল দিয়া বাঁধিয়া রাখ।

About চার নম্বর প্ল্যাটফর্ম 2050 Articles
ইন্টারনেটের নতুন কাগজ

Be the first to comment

আপনার মতামত...