দণ্ডবিধির ৩৭৭ ধারা প্রসঙ্গে কিছু অপ্রাসঙ্গিক কথা

বিষাণ বসু

 

না, দুজনের সম্মতি থাকলে, সমকাম আর অপরাধ নয়।

শুনেছিলাম, যব মিয়াঁ বিবি রাজি, তব কেয়া করেগা কাজি। তবুও, রাষ্ট্র নাক গলানোর চেষ্টার কসুর করেনি।

বৃহস্পতিবার, ৬ই সেপ্টেম্বর, এক ঐতিহাসিক রায়ে, প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রর নেতৃত্বাধীন পাঁচ বিচারপতির সাংবিধানিক বেঞ্চ জানালেন, না, দুজন রাজি থাকলে, কাজির নাক গলানো অন্যায়।

ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৭৭ ধারা বাতিল করে, অনেক মানুষের জীবনে, একঝলক মুক্ত বাতাস বইয়ে দিলেন সর্বোচ্চ আদালত। তার সাথে ছুঁড়ে দিলেন, একগুচ্ছ মন্তব্য, যাদের তাৎপর্য সুদূরপ্রসারী।

অনেক অনেক বছর ধরে জারি থাকা এক বদ্ধ জলাশয়, ভিক্টোরিয়ান নীতি-ধারণার সাথে উপনিবেশের জটিল মিশেলে তৈরি এক অপধারা বাতিল করলেন মাননীয় সুপ্রিম কোর্ট, সব বিচারেই তা ঐতিহাসিক বইকি!! নাকি কয়েক হাজার বছরের প্রাচীন এক সভ্যতার উত্তরাধিকার নিজের বলে দাবি করতে হলে, এইটুকু আধুনিকতার বোধ নিতান্তই স্বাভাবিক?

এমন আশ্চর্য মুহূর্তে, এই ধারার শিকার হয়ে, অপমানিত-নিগৃহীত হয়ে, অপমানবিক জীবনযাপনে বাধ্য হয়েছেন যে কয়েক প্রজন্মের কিছু মানুষ, তাঁদের কাছে ক্ষমা চেয়ে নিয়ে মাননীয় বিচারপতি এই রায়ের তাৎপর্যকে সঠিক প্রেক্ষিত দিলেন।

আইনের ৩৭৭ ধারা নাকচ করতে গিয়ে জাস্টিস ইন্দু মালহোত্রা বললেন,

“History owes an apology to the members of this community and their families, for the delay in providing redressal for the ignominy and ostracism that they have suffered through the centuries.

The members of this community were compelled to live a life full of fear of reprisal and persecution. This was on account of the ignorance of the majority to recognise that homosexuality is a completely natural condition, part of a range of human sexuality.

The misapplication of this provision denied them the Fundamental Right to equality guaranteed by Article 14. It infringed the Fundamental Right to non-discrimination under Article 15, and the Fundamental Right to live a life of dignity and privacy guaranteed by Article 21. The LGBT persons deserve to live a life unshackled from the shadow of being ‘unapprehended felons.’”

আইনজীবী অরুণাভ ঘোষ একদিন এক আলোচনায়, ভিন্ন প্রসঙ্গে, বলেছিলেন, আইনের বইখানা তো তেমন বড়সড় নয়। কিন্তু, আসল কথা আইনের ইন্টারপ্রিটেশন। অনেক পড়াশোনা, জীবনের অভিজ্ঞতা, আইন ছাড়াও বিভিন্ন বিষয়ে অগাধ পাণ্ডিত্য, এই মিলিয়েই আসে কিছু ল্যান্ডমার্ক রায়। আর, সেই বিদগ্ধ অনুভবের ছায়া ধরা পড়ে রায়ের সাথে বিচারপতির মন্তব্যে।

না, এক্ষেত্রে ধারা বা আইনের ইন্টারপ্রিটেশন নয়। দণ্ডবিধির আস্ত একটি ধারাকে, সাম্য ব্যক্তিস্বাধীনতা নাগরিকের নিজস্ব পছন্দের সংবিধানস্বীকৃত অধিকারের পরিপন্থী আখ্যা দিয়ে, সেই ধারা বাতিলের এই রায়ও তেমনই ল্যান্ডমার্ক।

সংখ্যালঘুর সাংবিধানিক অধিকার রক্ষার গুরুত্ব ব্যাখ্যা করতে গিয়ে বিচারপতি ইন্দু মালহোত্রা জানালেন,

“The mere fact that the LGBT persons constitute a ‘miniscule fraction’ of the country’s population cannot be a ground to deprive them of their Fundamental Rights guaranteed by Part III of the Constitution…

Under the Constitutional scheme, while the majority is entitled to govern; the minorities like all other citizens are protected by the solemn guarantees of rights and freedoms under Part III.”

সর্বোচ্চ আদালত জানালেন, দণ্ডবিধির এই ৩৭৭ ধারা, আমাদের সংবিধানের আর্টিকল ১৫-র সরাসরি পরিপন্থী, যেখানে বলা হয়েছে, লিঙ্গের ভিত্তিতে অসাম্য অসাংবিধানিক। জাস্টিস ইন্দু মালহোত্রা ব্যাখ্যা করলেন,

“Sex as it occurs in Article 15, is not merely restricted to the biological attributes of an individual, but also includes their ‘sexual identity and character’.”

প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্র সংবিধানের একটি সময়োপযোগী চলিষ্ণু আধুনিক ভাষ্যের প্রয়োজনীয়তা প্রসঙ্গে বললেন,

“This doctrine invariably reminds us about the living and dynamic nature of a Constitution. Edmund Burke, delineating upon the progressive and the perpetual growing nature of a Constitution, had said that a Constitution is ever-growing and it is perpetually continuous as it embodies the spirit of a nation. It is enriched at the present by the past experiences and influences and makes the future richer than the present.”

প্রায় দুহাজার বছর আগে, মানুষের বদ্ধমূল ভালো-মন্দ ঠিক-বেঠিক সুন্দর-অসুন্দরের ধারণা, আর তার প্রয়োগের ক্ষেত্রে এই সংস্কারের ভূমিকা প্রসঙ্গে, গ্রীক দার্শনিক এপিকটেটাস বলেছিলেন,

“Is it possible, then, that each of you apply your preconceptions correctly on the very subjects about which you have contradictory opinions?

It is not.

So do you have anything to show us for this application, preferable to its seeming so to you? And does a madman act any otherwise than it seems to him right? Is this, then, a sufficient criterion for him too?

It is not.

Come, therefore, to something preferable to what seems.”

Epictetas, What the Beginning of Philosophy Is (Discourses)

হ্যাঁ, কথাগুলো আজও প্রাসঙ্গিক। তাই, এই একবিংশ শতকেও, পৃথিবীর বৃহত্তম গণতন্ত্রের সর্বোচ্চ আদালতের বিচারপতি জাস্টিস চন্দ্রচূড়কে বলতে হয়,

“What is ‘natural’ and what is ‘unnatural’? And who decides the categorization into these two ostensibly distinct and water-tight compartments?”

হ্যাঁ, রাষ্ট্রের হাতে একটি জামা রয়েছে। আপনাকে, যেমন করেই হোক, সেই জামার মাপে মানানসই হতে হবে। পারলে ভালো। আপনি দেশপ্রেমিক, সুনাগরিক। না পারলে, আপনি শত্রু, পাকিস্তানের চর, ঘৃণ্য, অপরাধী। এই জামায় না আঁটলে, আপনার হাঁসফাঁস লাগলেও উপায় নেই। রাষ্ট্রশক্তির সামনে একক আপনি তো ক্ষুদ্রস্য ক্ষুদ্র। আর, সমস্যা এইটাই, যে, এই জামাটার মাপ ক্রমশই ছোট করা হতে থাকে। মানাতে গিয়ে আপনিও ক্ষুদ্র থেকে ক্ষুদ্রতর হতে থাকেন। নিয়ম মেনে চলার এই খেলাটায়, আপনি যখন ক্লান্ত, তখন আবিষ্কার করেন, আপনি একদম একা, আর আশেপাশে কিছু যন্ত্রমানব।

আপাতত, নিয়ম এই, সমকামী আপনি ঘৃণ্য অপরাধী। না, আর নয়। শিক্ষকদিবসের পরেই, সর্বোচ্চ আদালত, যে রায় দিয়েছেন, তা এক গভীর শিক্ষার সমতুল্য।

চারপাশে ফ্যাসিবাদের অবাধ অন্ধকারের মধ্যে, একটা জানালা খুলে আকাশ দেখানো। এই রায়, তাই, ঐতিহাসিক। আর, এর সাথে, জাস্টিস চন্দ্রচূড়ের এই মন্তব্যের ব্যঞ্জনা গভীরতর,

“Do we allow the state to draw the boundaries between permissible and impermissible intimacies between consenting adults?”

ব্যক্তিজীবনের কোনও পরিসরেই আমরা কি রাষ্ট্রের নাকগলানো মেনে নেব তাহলে? ধর্মাচরণ? বা খাদ্যাভ্যাস?

ভিক্টোরীয় নীতিবোধ, যৌনতা বিষয়ে ক্রিশ্চান ছুৎমার্গ আর ঔপনিবেশিক দমননীতি। তিনের আজব মিশেলজাত দেড়শো বছরেরও আগের এই দণ্ডবিধির ৩৭৭ ধারা। আশ্চর্য এই যে, অতীতচারী বর্তমান শাসকেরা এই ধারাও পছন্দ করেন, যদিও আমাদের উজ্জ্বল অতীতে, যৌনতা নিয়ে রাখঢাক ছিল না কোনওদিনই।

এই দেশেই, গৌরবের সেই সময়ে, মহর্ষি বাৎস্যায়ন কামসূত্র লিখে গিয়েছেন, হ্যাঁ, আজ থেকে প্রায় হাজারদুয়েক বছর আগেই। কিন্তু, ধ্বজাধারীরা আমাদের নতুন করে ইতিহাস শেখাচ্ছেন। জানাচ্ছেন, যৌনতা পশ্চিমী অনুকরণের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া।

সমাজের অনেক অংশেই, তাঁরা নিজস্ব নৈতিকতার বোধটি চারিয়ে দিতে সক্ষম হয়েছেন। সামাজিক মর‍্যালিটির, আমাদের অতীত ইতিহাসের মতোই, পুনর্লিখনের প্রক্রিয়াটি জারি হয়েছে, যেমনটি ফ্যাসিবাদে হয় আর কি!!

এই ৩৭৭ ধারা সমর্থন করতে, বাৎস্যায়নের দেশে, এই একবিংশ শতকেও, কোর্টে যুক্তি দেওয়া হয়েছে, যৌনতার একমাত্র উদ্দেশ্য সন্তান উৎপাদন। সমকাম, এ কারণেই, অন্যায়। আহা!! তাহলে তো, কন্ডোম বা গর্ভনিরোধক বড়ি, দুই-ই বেআইনি করতে হয়।

কিন্তু, এই সামাজিক নীতিশিক্ষা যে খুব সহজে, বিনা বাধায় আইন বা দণ্ডবিধির জায়গা নিতে পারবে না, সর্বোচ্চ আদালত আমাদের নিশ্চিন্ত করলেন।

প্রধান বিচারপতি জাস্টিস দীপক মিশ্র জানালেন,

“…..it is for the constitutional courts to ensure, with the aid of judicial engagement and creativity, that constitutional morality prevails over social morality.”

আঃ, আশ্বস্ত হলাম।

বিচারপতি চন্দ্রচূড় দ্ব্যর্থহীন ভাষায় জানান,

“Sexuality cannot be construed as something that the State has the prerogative to legitimize only in the form of rigid, marital procreational sex …”

“The self- determination of sexual orientation is an exercise of autonomy.”

আশা করি, আমাদের ব্যক্তিগত স্পেসের বাকি উপাদানগুলিও, এমন করেই, রাষ্ট্রীয় মাতব্বরির বাইরে থাকতে পারবে। ধীরে ধীরে রাষ্ট্রের নাগপাশ তো সব স্পেস সঙ্কুচিত করে দম বন্ধ করে দিচ্ছে।

আমাদের আত্মপরিচয়ের বিভিন্ন স্তরের সাথেই গভীরভাবে জড়িয়ে আমাদের ব্যক্তিস্বাধীনতা। একটি বিশেষ পরিচয়ে আটকে রাখতে পারলে, রাষ্ট্রের পক্ষে আমাদের ব্যবহার করে নিতে সুবিধে হয়। যেমন, ধরুন, একবার আমাকে উচ্চবর্ণীয় হিন্দু ভারতীয়, এই গণ্ডিতে পরিচিত করতে পারলেই, আমি এক ধাক্কায় কতজন মানুষকে শত্রু ঠাউরে ফেলতে পারি!!! কিন্তু, একবার আমি যদি অনুভব করতে পারি, যে, আমার এই বেঁচে থাকা বহুমাত্রিক, অনেক ভিন্ন পরিচয় মিলিয়েই আমি একখানা সম্পূর্ণ মানুষ, তাহলে আমার বন্ধুবৃত্ত বেড়ে যায়, আপনার সাথে আমার কথোপকথনের একটা কমন স্পেস তৈরি হয়, এক কথায় আমি আপনাকে শত্রু জেনে তেড়ে যেতে পারি না।

এই বহুমাত্রিকতা বোঝাতেই অমর্ত্য সেন, স্বভাবসিদ্ধ সরস ভঙ্গিতে, বলেছেন,

“The same person can be, without any contradiction, an American citizen, of Caribbean origin, with African ancestry, a Christian, a liberal, a woman, a vegetarian, a long-distance runner, a historian, a schoolteacher, a novelist, a feminist, a heterosexual, a believer in gay and lesbian rights, a theatre lover, an environmental activist, a tennis fan, a jazz musician, and someone who is deeply committed to the view that there are intelligent beings in outer space with whom it is extremely urgent to talk (preferably in English). Each of these collectivities, to all of which this person simultaneously belongs, gives her a particular identity.”

(Identity & Violence)

কিন্তু, এমন বহুত্ববাদী নাগরিক নিয়ে, রাষ্ট্রের ভারি অসুবিধে। সে চায়, ভালো-মন্দ ঠিক-বেঠিকের সাদা-কালো দুনিয়াদৃষ্টি। তাই,

“The imposition of an allegedly unique identity is often a crucial component of the ‘martial art’ of fomenting sectarian confrontation.”

(Identity & Violence)

তাই, একমাত্রিক পরিচিতি গড়ে নিয়মের নিগড়ে বাঁধার প্রয়াস৷ শুরু হয় উপনিবেশে। দিন বদলায় না স্বাধীনতার পরেও। দণ্ডবিধির এই ধারার ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট বিশ্লেষণ করতে গিয়ে জাস্টিস চন্দ্রচূড় বলেন,

“So abominable did Macaulay consider these offences that he banished the thought of providing a rationale for their being made culpable……

A charter of morality made their relationships hateful. The criminal law became a willing instrument of repression…… The offence would be investigated by searching the most intimate of spaces to find tell-tale signs of intercourse. Civilisation has been brutal.”

আর যেমন বলেছিলাম, দমনপীড়নের সুযোগ কোন রাষ্ট্রশক্তিই হাতছাড়া করতে চায়!! তাই, স্বাধীন দেশেও জারি থাকে ঔপনিবেশিক কণ্ঠরোধকারী দণ্ডবিধি।

এক কলমের খোঁচায় যদি রাষ্ট্রের সামনে সুযোগ থাকে আপনার একান্ত ব্যক্তিগত পরিসরে নজর রাখার, অথবা আপনাকে বিনা বাক্যব্যয়ে ক্রিমিনাল প্রতিপন্ন করার, আপনিই বলুন, সরকার চাইবেন সেই সুযোগ হারাতে??

তাই, আপনি সমকামী হোন বা না হোন, এই রায় বহুত্ববাদের পক্ষে, ব্যক্তিস্বাতন্ত্র্য রক্ষার পক্ষে, নিজস্ব পরিসর অক্ষুণ্ণ রাখার অধিকারের সপক্ষে, গণতন্ত্রের পক্ষে এক ঐতিহাসিক রায়।

হ্যাঁ, সমকামী একজন মানুষের বহুমাত্রিক আইডেন্টিটির অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ, নিজস্ব যৌনসাথী পছন্দের অধিকার, সমলিঙ্গের মানুষকে ভালোবাসার অধিকার।

প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্র একদম সঠিক স্থানেই আঘাত হানেন, যখন তিনি বলেন,

“…….it has to be appreciated that homosexuality is something that is based on sense of identity……….That is why it is his/her natural orientation which is innate and constitutes the core of his/her being and identity.”

আমাদের দেশের, বিশেষ করে বর্তমান সময়ে দাঁড়িয়ে, গণতন্ত্র প্রসঙ্গে বিচারপতি চন্দ্রচূড়ের পর্যবেক্ষণের অভিঘাত নিশ্চিতভাবেই এই রায় ছাপিয়ে সুদূরপ্রসারী।

“Democratic as it is, our Constitution does not demand conformity. Nor does it contemplate the mainstreaming of culture. It nurtures dissent as the safety valve for societal conflict. Our ability to recognise others who are different is a sign of our own evolution. We miss the symbols of a compassionate and humane society only at our peril.”

হ্যাঁ, এক বিশেষ ধর্মাচরণ বা একটি বিশেষ ধাঁচের জীবনযাত্রাকে সাংস্কৃতিক মূলস্রোত ঠাউরে, বাকি সবাইকে অপর বানিয়ে অপরাধী সাজানোর প্রবণতার বিরুদ্ধে, এই রায়, বিচারপতিদের এই পর্যবেক্ষণ, মন্তব্য, প্রায় চপেটাঘাত।

এমন অস্থির সময়ে, যখন গণতন্ত্রের দুই স্তম্ভ ব্যর্থ, যখন পার্লামেন্ট প্রায় “শুয়োরের খোঁয়াড়” আর মিডিয়া সর্বার্থেই ধামাধরা, তখন সর্বোচ্চ আদালত আমাদের সম্বিত ফেরালেন। জানালেন, এখনও, এই দেশে জানালা খুলে দেওয়া যায়।

প্রিয় কবি ভাস্কর চক্রবর্তীর একটা কবিতা মনে পড়ে যাচ্ছে,

দিনগুলো, কেমন চাকার মতো
অযথা আমাকে
পিষে যায়….।
বাস থেকে নেমে মনে হল
বিদেশেই আছি। তবু
কে ওই মেয়েটি?
আমাদের
ঘরের মেয়ের মতো মনে হয়।
হয়তো মিনুর বোন হবে। এসো,
সুসংবাদ এসো–
আর কোনো ইচ্ছে নেই, শুধু ওই
মেয়েটির সঙ্গে যেন
আমাদের
তরুণ কবির বিয়ে হয়।

(এসো, সুসংবাদ এসো)

হ্যাঁ, তরুণ কবি যদি মহিলা হন, তাহলেও তিনি যেন স্বচ্ছন্দে মিনুর বোনের সাথে ভালোবেসে থাকতে পারেন।

এসো, সুসংবাদ এসো।

 

লোকাল ট্রেন । ১৯ জানুয়ারি, ২০১৯

About চার নম্বর প্ল্যাটফর্ম 1024 Articles
ইন্টারনেটের নতুন কাগজ

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*