রাষ্ট্রের হাতে ছাত্রদের রক্ত লেগে আছে

চার নম্বর নিউজডেস্ক

 

মৃতদেহের দরকার হয় চিকিৎসা বিজ্ঞানে, নানা পরীক্ষানিরীক্ষার কাজে। আমাদের দেশে এর আরেক প্রয়োজন হয় তন্ত্রসাধনায়। এবং রাজনীতির ময়দানেও হয় বটে। হয়তো সেটাই মৃতদেহের সবচেয়ে বড় উপযোগিতার ক্ষেত্র এদেশে। সর্বশেষ প্রমাণ — গত আড়াই দিন ধরে ইসলামপুরের দাড়িভিট স্কুলের ঘটনাক্রম৷ ১৯ বছরের রাজেশ সরকারের পর এবার ২১ বছরের তাপস বর্মণ। দাড়িভিট স্কুলে শিক্ষক নিয়োগ সংক্রান্ত বিক্ষোভ ও তার জেরে এই দুই প্রাক্তন ছাত্রের মৃত্যুর পর বেশ কিছুটা সময় পেরিয়ে গেছে। তথ্যে, পাল্টা তথ্যে মিডিয়া তোলপাড়। এরই মধ্যে দু’টি যুবকের মৃতদেহ ঘিরে নির্লজ্জ রাজনৈতিক তরজা চরমে। অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদ নিহত দু’জন ছাত্রকেই নিজেদের সংগঠনের নেতা-কর্মী বলে ইতিমধ্যেই দাবি করেছে ও তাঁদের শহীদের মর্যাদা দিয়ে শাসকদলের বিরুদ্ধে সংখ্যালঘু তোষণের অভিযোগ হেনেছে৷ রাজ্য সরকার বিজেপি শিবিরের এই অভিযোগে কিছুটা খুশি হয়ে তৎক্ষণাৎ দায় ঝেড়ে ফেলেছেন। যাক, বাঁচা গেল। মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী অতএব নিশ্চিন্ত মনে ঘোষণা করে দিয়েছেন, এই হত্যার দায় পুরোপুরি আরএসএস-বিজেপির। রাজ্যের পুলিশ মন্ত্রী ও রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান হিসেবে এই রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা রক্ষার দায় যে তাঁরই, এই সামান্য কথাটা কত সহজেই ভুলে যাওয়া যায়! রাজ্য সরকারের বংশবদ অনুগামীর দল আন্দোলনের উদ্দেশ্যকে ভুল প্রমাণ করে দু’টি হত্যাকে লঘু করে দেওয়ার মতলবে আছেন। পুলিশ বলছে তারা নাকি গুলি চালায়নি৷ সব মিলিয়ে দাড়িভিট স্কুলের ঘটনা তিনদিন পরেও যথেষ্ট অনচ্ছ রয়ে গেছে অথবা তাকে অনচ্ছ করে রাখার একটা প্রাণপণ চেষ্টা চলছে। আমরা, এই রাজ্যের দুর্ভাগা সাধারণ মানুষ মার্জিনের বাইরে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে নিরুপায় হয়ে দেখছি, কীভাবে দু’টি যুবকের, এমনকি আমাদের রাজ্যে গণতন্ত্রের লাশ মুখে নিয়ে টানাটানি করছে এক ঝাঁক শকুনের দল!

প্রতিবেদনের ভেতরে আরও এগোবার আগে একটি কথা দ্বিধাহীনভাবে বলে নেওয়া যাক। রাজেশ-তাপসের হত্যা ও শিক্ষাঙ্গণে নৈরাজ্যের প্রাথমিক ও মূল দায় রাজ্য সরকারের। কারণ এই মুহূর্তে পশ্চিমবাংলার নানা শিক্ষাঙ্গণে নৈরাজ্য ঘনিয়ে আসার পেছনের কারণ প্রশাসনের পাহাড়প্রমাণ অপদার্থতা এবং দুর্নীতি। কীভাবে?

প্রথমত, স্কুলে শিক্ষক নিয়োগের দায়িত্ব স্কুল সার্ভিস কমিশনের৷ দীর্ঘ ছয় বছর ধরে বর্তমান রাজ্য সরকারের বদান্যতায় রাজ্যে শিক্ষক নিয়োগের কোনও পরীক্ষা নেওয়া হয়নি, নিয়োগও হয়নি৷ এই ছয় বছরে শিক্ষকের অভাবে বহু সরকারি স্কুল কার্যত বন্ধ হয়ে যায়, অথবা শিক্ষকের অভাবে ছাত্রছাত্রীদের হারিয়ে কোনওমতে টিমটিম করে চলতে থাকে। এই ছয় বছরে শিক্ষকের অভাব যেমন তৈরি হয়েছে, তেমনি বদলে গেছে ছাত্রবিন্যাস। যেমন, ২০১৮-তে নিয়োগ শুরু হয়েছে ২০১৫ সালের ভ্যাকেন্সি লিস্ট অনুযায়ী, যা গত তিন বছরে আর আপডেট হয়নি। অর্থাৎ কোনওয়া স্কুলে তিন বছর আগে উর্দুর শিক্ষকের প্রয়োজন ছিল কারণ তখন সেই স্কুলে ঐচ্ছিক উর্দু শেখার মতো ছাত্রছাত্রী ছিল। ২০১৮-এ এসে সেই একই বিদ্যালয়ে উর্দুর শেখার জন্য কোনও ছাত্রছাত্রী নেই, অতএব উর্দুর শিক্ষক পাঠানোর আশু প্রয়োজনটুকু এই মুহূর্তে ফুরিয়েছে। বরং এই তিন বছরে বাংলা বা অন্য কোনও বিষয়ের শিক্ষক অবসর নেওয়ায় বাংলা বা সেই অন্য বিষয়ের ক্ষেত্রে একটা শূন্যতা তৈরি হয়েছে যার খবর ২০১৫-র পুরনো ভ্যাকেন্সি লিস্টে নেই, থাকার কথাও নয়। দাড়িভিট স্কুলেও সমস্যাটি একই গোত্রের, সেখানে এই মূহূর্তে সংস্কৃত বা উর্দুর শিক্ষক অপ্রয়োজনীয়, তিন বছর আগে এঁদের যখন দরকার ছিল এবং চাওয়া হয়েছিল, পাওয়া যায়নি৷ অতএব আজ সংস্কৃত শিক্ষক হিসেবে তুরঙ্গ মল্লিক ও উর্দু শিক্ষক হিসেবে মো. সানাউল্লাহকে দাড়িভিট স্কুলে যোগ দিতে এসে যে বিক্ষোভের মুখে পড়তে হল, তার সঙ্গে তাঁদের বিরুদ্ধে কারও ব্যক্তিগত আক্রোশের কোনও সম্পর্ক নেই, তেমনই গায়ের জোরে উর্দু বনাম বাংলার এক কল্পিত লড়াইয়ের প্রেক্ষাপট তৈরি করারও কোনও কারণ নেই। অথচ ওয়াকিবহাল রাজনৈতিক মহলের খবর, রাজ্যের বিভিন্ন মুসলিম অধ্যুষিত জায়গায় বিজেপি এই ধরনের অস্থিরতাটাই চাইছে।

দ্বিতীয়ত প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগই হোক, বা এসএসসি — সেগুলো যে এখন পুরোদস্তুর দুর্নীতির আখড়া, এও এক ওপেন সিক্রেট। প্রাথমিকে শিক্ষকের সিট কত লাখে কেনাবেচা হয়েছে, এসএসসি পরীক্ষায় কীভাবে সাদা খাতা জমা দেওয়া প্রার্থীর লিস্টে ওপরের দিকে নাম চলে এসেছে, সে আমরা সবাই অবগত মোটামুটি। এসবে রাজ্য সরকার বা সরকারি দল আদৌ লজ্জাও পায় না। এখানে বিষয়টি উল্লেখনীয় এই কারণেই যে এই দুর্নীতি যেহেতু সর্বত্র এবং শৃঙ্খলাহীনতা যেহেতু রাজ্যের বর্তমান শাসক দলের প্রধানতম সনাক্তকরণ চিহ্ন, সেখানে স্কুলে শিক্ষক নিয়োগের জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত যে তিন স্তর — স্কুল কমিটি, স্কুল পরিদর্শক এবং এসএসসি — তাদের মধ্যে যে ন্যূনতম সমন্বয়টুকু থাকবে না, তাতে আশ্চর্যের কিছু নেই। সেই কারণেই যে পরিদর্শক দুদিন আগে জানালেন যে বর্তমানে দাড়িভিট স্কুলে উর্দু শিক্ষক অপ্রয়োজনীয়, তিনিই দুদিন পরে নিযুক্ত হতে পাঠিয়ে দিলেন উর্দু শিক্ষককে এসএসসি-র নির্দেশে। হ্যাঁ, শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে চূড়ান্ত ক্ষমতা এসএসসি-রই হাতে।

কিন্তু এই অপদার্থতা ঢাকতে তো একজন বলির পাঁঠা আবশ্যক। স্কুল পরিদর্শক খারিজ হয়েছেন!

তৃতীয় কারণটি রাজনৈতিক। সেটি বলার আগে পাশাপাশি আসা আরেকটি খবর দেখে নেওয়া যাক। জানা যাচ্ছে গোলমালের দিন দাড়িভিট স্কুলে বিদ্যালয়ের ছাত্র ছাড়াও প্রচুর বহিরাগত উপস্থিত ছিল এবং তারাই স্কুল জুড়ে ভাঙচুর ও তাণ্ডবের হোতা। স্থানীয় বাসিন্দাদের কাছেও এই তত্ত্বের সমর্থন মিলছে। যেমন ঘটনাস্থলে নিহত রাজেশ সরকার ইসলামপুর আইটিআই-এর ছাত্র৷ তৃণমূল সমর্থিত সূত্র জানাচ্ছে দীর্ঘদিন ধরে ইসলামপুরে উসকানিমূলক কার্যকলাপ চালিয়ে আসছে গেরুয়া বাহিনী, গত ক’দিনের তাণ্ডব তারই প্রকাশ৷ প্রশ্নটা এখানেই আসে। এটা সত্য হলে বুঝতে হবে, গোলমাল পুরোপুরি পূর্ব পরিকল্পিত। কী করে হল তা, যদি না ভেতর থেকে খবর যায়। আসলে বর্তমানে রাজ্যের রাজনীতি সম্পর্কে ওয়াকিবহালরা তো বটেই, এমনকি সাধারণ মানুষও জানেন, প্রতিটি অঞ্চলেই শাসক দলের পরস্পরবিরোধী দু-তিনটি লবি সক্রিয়, এবং যাদের মধ্যে একটি বা একাধিক লবি বিজেপি-র সঙ্গে দহরম রেখে চলে। আর বুঝতে অসুবিধা হওয়ার কথা নয় নিশ্চয়ই!

কিন্তু এই তত্ত্বও কি আদৌ রাজ্য পুলিশের গুলিচালনাকে জাস্টিফাই করতে পারে? নকশাল আমলে পুলিশের বন্দুকের মাথায় নিরোধ লাগানো ছিল না, আজও নেই। তাই ‘উচ্ছৃঙ্খল’ ছাত্রদের লক্ষ করে খোলাখুলি গুলি চালানো হল, রাবার বুলেট নয়, সত্যিকারের বুলেট, তাও কোমরের নিচে নয়, রাজেশ সরকাররের ক্ষতচিহ্নটি তার বুকের বাঁদিকে।

জেলা পুলিশের বড়কর্তা অবশ্য বলছেন পুলিশ গুলি চালায়নি৷ আবার রাজেশের বাবা নীলরতন সরকার বলছেন তিনি দেখেছেন পাশে দাঁড়ানো পুলিশের গাড়ি থেকে বুলেট উড়ে আসতে। পুলিশ বলছে, তাঁদের একজন কনস্টেবলও গুলিবিদ্ধ, বহিরাগতরাই গুলি ছুঁড়েছে, ইসলামপুরে জমা হচ্ছে প্রচুর অস্ত্রশস্ত্র। এই বহিরাগত তত্ত্ব আমরা চিনি। নন্দীগ্রামের চোদ্দটি খুনের অ্যালিবাই হিসেবে মাওবাদী-বহিরাগত তত্ত্বকেই দাঁড় করিয়েছিল বাম জমানার পুলিশ। এখানেও একই থিওরির আমদানি। প্রশ্ন করা দরকার, পুলিশ জানতই যদি শহরে দুষ্কৃতি ও অস্ত্র ঢুকছে, তা সত্ত্বেও কোনও পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি কেন? আর যদি জানতই না, তবে সেই বা কীরকম অপদার্থ পুলিশ? কীসের অপেক্ষা করছিল তারা? দুটি সদ্য তরুণের চলে যাওয়ার জন্য অপেক্ষা করছিল কি? নাকি সারা রাজ্যের পুলিশ আজকাল এত ব্যস্ত রয়েছে রহস্য রোরবার চর্চায়, ফাঁক থেকে যাচ্ছে তাদের ‘গৌণ’ কাজগুলোতে? নাকি আমরাই বোকা বনে আছি, আসলে পুলিশ বদলায়নি, কারণ তার রাষ্ট্রযন্ত্রও বদলায়নি। রাষ্ট্র বদলায় না। গুলি পুলিশের সার্ভিস রিভলবার থেকে আসুক, অথবা বহিরাগতের ওয়ান শটার থেকে, তা ঠিক সাধারণ মানুষের হৃদপিণ্ড খুঁজে নেয়। কারণ গণতান্ত্রিক দেশে গণতান্ত্রিক সরকারের ক্ষমতা নিরঙ্কুশ করতেও শেষ পর্যন্ত তার বন্দুকের নলই দরকার৷

পরিশেষে একটা কথাই বলার। রাজ্য সরকার এবং পুলিশবাহিনী যথেষ্ট অপদার্থতার পরিচয় ইতিমধ্যেই দিয়েছে। বিজেপি-সঙ্ঘ পরিবার কিন্তু তাদের নোংরা অ্যাজেন্ডা নিয়ে এরকম সুযোগের অপেক্ষাতেই ওঁত পেতে রয়েছে। সেটা যাতে সফল না হতে পারে তা নিশ্চিত করে রাজ্য সরকার আপাতত তাদের ন্যূনতম যোগ্যতার পরিচয় দিক!

 

About চার নম্বর প্ল্যাটফর্ম 952 Articles
ইন্টারনেটের নতুন কাগজ

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*