‘অবিরল ধারা’ ও নদী-শহীদ ড. জি ডি আগরওয়াল

ব্রত দেবরায়  

 

এক

“I will give up fluids from October 10, and I will die before Dussera. I will have no regrets even if I die in the course of saving the Ganga. The end of my life would not mean the end of efforts being undertaken to save the river.”

দশেরার আগেই মারা গেলেন স্বামী জ্ঞান স্বরূপ সানন্দ ওরফে অধ্যাপক গুরু দাস আগরওয়াল (২০ জুলাই ১৯৩২-১১ অক্টোবর ২০১৮)। হয়তো এভাবে চলে যাওয়ারই কথা ছিল তাঁর। রাষ্ট্র ও পুঁজির এই অনন্ত কোহলচন্দ্রিমার যুগে জি ডি আগরওয়ালের মতো মানুষেরা বিরক্তিকর হাড্ডিবিশেষ৷ তাই তাঁর ‘পরাজয়’ ও মৃত্যু পূর্বনির্ধারিত ছিল।

গান্ধীবাদী পরিবেশবিদ, আই আই টি কানপুরের প্রাক্তন অধ্যাপক, আধ্যাত্মিক নেতা জি ডি আগরওয়াল গঙ্গার দূষণ ও অবনমন রুখতে সরকারি হস্তক্ষেপের জন্য বারবার অনুরোধ করে, ব্যর্থ হয়ে, অনশন সত্যাগ্রহে বসেছিলেন এ বছর জুন মাসের ২২ তারিখ। ঘোষণা করেছিলেন, গঙ্গার ‘অবিরল ধারা’ সুনিশ্চিত করার জন্য সরকার পদক্ষেপ না নেওয়া অবধি, সংসদে গঙ্গা সংরক্ষণ বিল পাশ না হওয়া অবধি এই অনশন চলবে, আমৃত্যু। সরকার কর্ণপাত করেনি। প্রশাসনিক স্তরে নীরবতা ও ১১১ দিনের অনশনের পর ১১ অক্টোবর এইমস ঋষিকেশে তাঁর মৃত্যু হল। মারা যাওয়ার আগে ‘ডাউন টু আর্থ’ পত্রিকাকে দেওয়া ওপরের সাক্ষাৎকারটি শুনলে বোঝা যায় তিনি এই পরিণতির জন্য কতটা শান্ত মনে প্রস্তুত ছিলেন। অক্টোবরের ১০ তারিখ তিনি জলগ্রহণ করতে অস্বীকার করেন ও সাথীদেরে তাঁর আই ভি ড্রিপ খুলে দিতে অনুরোধ করেন। ঠিক পরদিন বিকেলে তাঁর মৃত্যু হয়। ইচ্ছামৃত্যুও বলা যেতে পারে একে।

দুই

১৯৩২ সালে উত্তরপ্রদেশের মুজফফরনগর জেলায় এক সাধারণ কৃষক পরিবারে জন্মেছিলেন জি ডি আগরওয়াল। পরবর্তীকালে আই আই টি রুরকি থেকে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং-এ স্নাতক হন। পাশ করার পর কিছুদিন উত্তরপ্রদেশ সরকারের সেচ বিভাগে চাকরি করেছিলেন। তারপর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিখ্যাত বার্কলে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নিজের স্নাতকোত্তর শিক্ষা লাভ করেন।

ঈর্ষণীয় যোগ্যতা নিয়ে ফিরে আসার পর জি ডি ইচ্ছে করলেই প্রিয় শিক্ষকতার পেশাতেই থেকে যেতে পারতেন, তিনি কানপুর আই আই টি সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রধান পদে আসীন ছিলেন। আমাদের সৌভাগ্য, তিনি সেই নিশ্চিতির পথে নিজেকে বেশিদিন আটকে রাখেননি।

১৯৭৪ সালে ভারত সরকার যখন কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ স্থাপন করেন, অধ্যাপক আগরওয়াল তার প্রথম মেম্বার সেক্রেটারি হন। কিছুদিন আগে অবধি, ইউপিএ সরকারের আমলে তিনি ‘ন্যাশনাল গঙ্গা রিভার বেসিন অথরিটি’-র পরিচালন সমিতির সদস্য ছিলেন, কিন্তু ২০১২-তে পদত্যাগ করেন। কারণ তাঁর মনে হয়েছিল এই কমিটি আর কোনও কাজের কাজ করে উঠতে পারছে না।

চার দশকেরও বেশি সময় ধরে অধ্যাপক আগরওয়াল তাঁর কাজের মধ্যে দিয়ে ‘অবিরল ধারা’ গঙ্গার প্রবাহকে নিরবিচ্ছিন্ন রাখার চেষ্টা করে গেলেন। তিনি বুঝেছিলেন গঙ্গার পুনরুজ্জীবন শুধুমাত্র গঙ্গার নিজের জন্যই জরুরি তা নয়, বরং তা গঙ্গার এই সুদীর্ঘ যাত্রাপথে নদী-অবিবাহিকার প্রতিটি মানুষের জীবনের সঙ্গে সম্পৃক্ত৷

২০১১-য় পৌঁছে অধ্যাপক আধ্যাত্মিক জীবনে পা রাখেন, স্বামী জ্ঞান স্বরূপ সানন্দ নাম গ্রহণ করেন। কিন্তু গঙ্গাকে রক্ষার জন্য অধ্যাপক আগরওয়ালের এই জীবনব্যাপী সংগ্রামের ভিত্তি কেবলমাত্র আধ্যাত্মিক ছিল না। তিনি জীবনের শুরুতেই উপলব্ধি করেছিলেন যে গঙ্গা শুধুমাত্র একটি নদী নয়, এটি এর দু’পাশে বিস্তীর্ণ অববাহিকার জীব, সমাজ ও বাস্তুতন্ত্র তো বটেই, এমনকি নিম্নপ্রভাবে প্রতিবেশী বাংলাদেশের প্রতিটি মানুষেরও জীবনরেখা, অতএব এর নিরবিচ্ছিন্নতা একান্ত জরুরি। কর্মজীবনের শুরুতেই কঠোর প্রমাণভিত্তিক গবেষণার মাধ্যমে তিনি উপলব্ধি করেছিলেন জলবায়ু পরিবর্তন, বড় বাঁধের নির্মাণ ও তজ্জনিত ‘সেডিমেন্টেশন’ কীভাবে গঙ্গার সামগ্রিক স্বাস্থ্যের ক্ষতি করছে ও বন্যার কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছে। ফলস্বরূপ, অধ্যাপক আগরওয়াল বাঁধ নির্মাণের বিরুদ্ধে দেশজুড়ে অসংখ্য প্রতিবাদ ও প্রতিরোধে অংশ নিয়েছেন, আন্দোলনের নেতৃত্ব দিয়েছেন৷ সেদিক থেকে বিচার করলে অধ্যাপক আগরওয়ালকে ষাটের দশকের বিতর্কিত বাস্তুকার-পরিবেশবিদ কপিল ভট্টাচার্যের সার্থক উত্তরসূরি বলা যেতে পারে৷ প্রসঙ্গত, ১৯৬১ সালে পশ্চিমবঙ্গের সেচ ও জলপথ বিভাগের মুখ্য বাস্তুকার কপিল ফরাক্কা বাঁধ প্রস্তাবের তীব্র বিরোধিতা করেন ও রাষ্ট্রের বিরাগভাজন হন। শেষ পর্যন্ত, জটিল ও অসম্মানজনক পরিস্থিতিতে তাঁকে কাজে ইস্তফা দিতে হয়৷ স্বাধীন ভারতে কপিলই প্রথম পরিবেশবিদ যিনি বড় বাঁধের দীর্ঘমেয়াদি ক্ষতির দিকগুলি চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছিলেন ও তাঁর সবক’টি অপ্রিয় ভবিষ্যৎবাণী পরবর্তীতে সত্যি প্রমাণিত হয়েছে।

মহাত্মা গান্ধীর অনুরক্ত অধ্যাপক আগরওয়ালের প্রতিবাদের হাতিয়ার ছিল অনশন-সত্যাগ্রহ, যা নানা সময় কার্যকরী হয়েছিল৷ ২০০৮ সালে প্রথমবার তিনি গঙ্গার এক প্রধান উপনদী ভাগীরথীর ওপর জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের বিরোধিতায় অনশনে বসেন এবং নদীর ওপর অন্যান্য সমস্ত নির্মীয়মান প্রকল্প প্রত্যাহারের দাবি জানান। কিন্তু অনশন সত্যাগ্রহে অধ্যাপক আগরওয়ালের প্রথম সাফল্য আসে ৬০০ মেগা ওয়াটের লোহরি-নাগপালা প্রকল্পের বিরোধিতায়। তাঁর ৩৮ দিন-ব্যাপী অনশন ইউপিএ সরকারকে নমনীয় হতে বাধ্য করে। সরকার তাঁর দাবিগুলি মেনে নেয় ও গোমুখ থেকে উত্তর কাশী পর্যন্ত গঙ্গার প্রায় ১০০ কি.মি. যাত্রাপথকে ‘বাস্তু-সংবেদনশীল অঞ্চল’ (eco-sensitive zone) হিসেবে ঘোষণা করে।

এই সাফল্য এই জন্য গুরুত্বপূর্ণ কারণ এর পরেই ড. আগরওয়াল ‘ন্যাশনাল রিভার বেসিন অথরিটি’-তে যোগ দেন, যা কাগজেকলমে নদী-অববাহিকা বিষয়ক একটি কেন্দ্রীয় নীতি-নির্ধারক কমিটি। কিন্তু অচিরেই তিনি অনুভব করেন, সিদ্ধান্ত অন্য কোথাও নেওয়া হয়, এই সংস্থাগুলি বস্তুত ঠুঁটো জগন্নাথ। হতাশ ও বিরক্ত হয়ে পদত্যাগ করেন অধ্যাপক আগরওয়াল।

আশা জেগেছিল, নতুন এনডিএ সরকার ক্ষমতায় আসার পর। গঙ্গার পুনরুজ্জীবনের প্রতিশ্রুতি ক্লিন গঙ্গা মিশন-২০২০ এনডিএ-র নির্বাচনী ইস্তেহারেও ছিল। অনেকেই ভেবেছিলেন শাসক দলের হিন্দুত্ববাদী অবস্থান অন্তত গঙ্গা-বান্ধব কিছু কঠোর নীতি প্রণয়নে সাহায্য করবে। কিন্ত হায়, একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটল, চার বছরেও কার্যকরী পদক্ষেপ প্রায় কিছুই নেওয়া হল না।

গঙ্গা সংরক্ষণ পরিচালন বিল (Ganga Protection Management Bill)-এর বর্তমান রূপটি, অধ্যাপক আগরওয়ালে মতে, চূড়ান্ত আমলাতান্ত্রিক। দিশা নির্ধারণে মন্ত্রীদের হাতেই সমস্ত ক্ষমতা কুক্ষিগত রয়েছে, নদীকেন্দ্রিক কৌমের সক্রিয় অংশগ্রহণের সুযোগ সেখানে প্রায় নেই বললেই চলে, এবং নদীর স্বার্থের সঙ্গে সম্পৃক্ত ও বিশেষজ্ঞ মানুষজনের মতামতের সেখানে তেমন কোনও ভূমিকা নেই।

‘বর্তমান শাসকদের সেই শিক্ষাদীক্ষাই নেই যা দিয়ে তারা ড. আগরওয়ালের বিশ্বাসের তাৎপর্য ও তার ভিত্তি হিসেবে পেছনের বৈজ্ঞানিক সত্যগুলিকে ঠিকঠাক বুঝতে পারবেন’, অধ্যাপকের সহযোদ্ধা রবি চোপড়া এক সাক্ষাৎকারে জানালেন।

গত দশ বছরে গঙ্গার জীবনরক্ষায় উল্লেখযোগ্য পাঁচটি অনশনে বসেছিলেন অধ্যাপক আগরওয়াল, যার শেষতম অনশনটি থেকে তিনি আর ফিরে আসতে পারলেন না। অবশ্য উদ্দেশ্য সিদ্ধ না করে ফিরে আসার কোনও ইচ্ছে ড. আগরওয়ালের ছিল না। তিনি ফেরেনওনি।

তিন

বৃহত্তর অর্থেই ‘পুন্যতোয়া’ গঙ্গার প্রবাহকে নিরবিচ্ছিন্ন রাখার প্রয়োজনে যখন প্রথম পথে নেমেছিলেন ড. আগরওয়াল, এতে তাঁর নিজস্ব বা ব্যক্তিগত কোনও ‘স্টেক’ ছিল না। কিন্তু ড. আগরওয়ালের মতো মানুষের কাছে ‘ব্যক্তিগত’ শব্দটি অর্থহীন, যখনই যে কাজ করেছেন, অধ্যাপক হিসেবে, পরিবেশবিদ হিসেবে, অথবা আধ্যাত্মিক নেতা হিসেবে, সমষ্টির ভাবনাই তার কেন্দ্রে ছিল। তাই বিশ্বায়িত দুনিয়ায়, দেশের প্রাকৃতিক সম্পদ আত্মসাৎ করার যে আলোকিত রাষ্ট্র-কর্পোরেট আঁতাত, অধ্যাপক আগরওয়ালের মতো মানুষেরা তার ঠিক বিপরীত বিন্দুতে দাঁড়িয়ে থাকেন। ওঁর অনেকগুলো দাবির মধ্যে একটা ছিল গঙ্গাবক্ষে সমস্তরকম খননকার্যের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা। এ দাবি তো খোলাখুলিভাবে কর্পোরেট বিরোধী, অর্থাৎ সামান্য ঘুরিয়ে বললে অধুনা রাষ্ট্রীয় পরিভাষায় তিনি ছিলেন উন্নয়নের শত্রু। প্রকৃতির সম্পদের ওপর অনিয়ন্ত্রিত অধিকার কায়েম করার যে লোভ, তার বিরুদ্ধাচারণ একজন গান্ধীবাদী ও ধর্মীয় নেতা হওয়া সত্ত্বেও গুরু দাস আগরওয়ালকে দেশের ‘আরবান নকশাল’দের সঙ্গে একই পংক্তিতে বসিয়ে দিল। তিনি আমাদের ‘গণতান্ত্রিক’ ও ‘কল্যাণকামী’ দেশের প্রথম নদী-শহীদ। তাঁর মৃত্যুতে রাষ্ট্র আপাতত কিছুদিন হাঁফ ছেড়ে বাঁচল।

বিস্তীর্ণ দু’পারে অসংখ্য মানুষের হাহাকার এত যুগ ধরে শুনে এসেও গঙ্গার গতি থেমে যায়নি। থামার কথাও নয়, তার কাজই তো চিরদিন বয়ে চলা। কিন্তু আর মাত্র কয়েকদিন পর, আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে প্রধানমন্ত্রী যখন নিজের কেন্দ্র বারাণসীতে আসবেন, হয়তো তিনি আরেকবার দশাশ্বমেধ ঘাটে দাঁড়িয়ে ভক্তিভরে গঙ্গা-আরতি করবেন, নির্বাচনী বৈতরণী পেরোবার জন্য ভাগীরথীর আশীর্বাদ প্রার্থনায়, সেই চরম দ্বিচারিতা ও ভণ্ডামো দেখে গঙ্গার প্রবাহ হয়তো সেদিন সত্যিই থেমে যেতে পারে।

গঙ্গার প্রবাহ থেমে যাক বা না যাক, এক মুহূর্তের জন্য হলেও অধ্যাপক জি ডি আগরওয়ালের রাইলস টিউব- লাঞ্ছিত মুখটার ছবি সেদিন আরেকবার মনে কি পড়বে আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর?

 

About চার নম্বর প্ল্যাটফর্ম 956 Articles
ইন্টারনেটের নতুন কাগজ

2 Comments

  1. সত্যিই থেমে নেই এই আন্দোলন। এখন দুই সন্ন্যাসী আছেন আমরণ অনশনে।
    মৃত্যু না হলে হয়তো তারাও খবর হবেন না !

  2. অদ্ভুত রাষ্ট্র না আমাদের! গণতন্ত্র ফনতন্ত্র বলে কতই না শ্লাঘা আমাদের! কিছু মানুষ মরব বলেকয়ে মরেই যাচ্ছে শেষতক, রাষ্ট্র নির্বিকার!!

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*