আইএএস অফিসারের ছেলে ভর্তি হল স্থানীয় অঙ্গনওয়াড়িতে

চার নম্বর নিউজডেস্ক

 

শিক্ষাব্যবস্থা যখন কার্যত ব্যবসায় পরিণত, মধ্যবিত্ত ও উচ্চবিত্তের চরিতার্থে দেখনদারি প্রাইভেট স্কুলের রমরমা বাজার, ঠিক সেসময়ই উত্তরাখণ্ডের চামোলির জেলাশাসক স্বাতী এস ভাদোরিয়া তাঁর দু’বছরের ছেলেকে নামীদামি ডে-কেয়ার বা ক্রেশের বদলে অঙ্গনওয়াড়িতে ভর্তি করে নজির গড়লেন। এনডিটিভি থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, তিনি জানিয়েছেন তিনি চান তাঁর ছেলে এমন একটা পরিবেশে বড় হোক যাতে সে সবার সাথে সবকিছু ভাগ করে নিতে শেখে। তিনি এও দেখেছেন যে অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রের সমস্ত প্রয়োজনীয় সুযোগসুবিধা আছে এবং সেটা কোনও বাচ্চার সম্পূর্ণভাবে বেড়ে ওঠার জন্য যথেষ্ট।

“এখানে পড়াশুনা, মজা আর খাবার তিনটেই আছে। আমার ছেলে এখানে অন্য বাচ্চাদের সাথে খুব ভালো আছে,” স্বাতী জানান।

রাজনীতিবিদ থেকে আধিকারিক, ব্যবসায়ী থেকে উচ্চ মধ্যবিত্ত প্রত্যেকেই যখন সরকারের অনুদানস্বীকৃত স্কুলগুলি ছেড়ে ব্যয়সাপেক্ষ বেসরকারি স্কুলকেই প্রাধান্য দিচ্ছেন, সেখানে এই সিদ্ধান্ত উল্লেখের দাবি রাখে। এই জন্যই সরকারি বিদ্যালয়গুলির এই বেহাল অবস্থা। চামোলি জেলাশাসক জানান যে তিনি অঙ্গনওয়াড়ির প্রতি সাধারণ মানুষের এই ধারণাটা তিনি বদলাতে চান এবং সেটা তাঁর এই সিদ্ধান্তের পেছনে অন্যতম কারণ। তাঁর স্বামী নিতিন ভাদোড়িয়াও আইএএস অফিসার, তিনি বর্তমানে উত্তরাখণ্ডের আলমোড়ার জেলা প্রশাসক।

গোপেশ্বরী গ্রামের অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রের স্বেচ্ছাসেবিকা জানান, “মঙ্গলবার অভ্যুদয়ের এখানে প্রথম দিন ছিল, ও অন্য বাচ্চাদের সাথে খিচুড়ি ভাগ করে খেয়েছে।”

গতকয়েক বছরে বেশ বদল ঘটে গেছে। ২০১৭-তে ছত্তিশগড়ের আইএএস অফিসার অভনিশ কুমার সারহান তাঁর মেয়েকে স্থানীয় সরকারি স্কুলে ভর্তি করেন। সারহানের থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে সাংসদ ও সচিব শিবশঙ্কর পাইকরাও তাঁর পাঁচ বছরের ছেলেকে ওই রাজ্যেরই পাঠালগাঁও ব্লকের একটি স্থানীয় সরকারি স্কুলে ভর্তি করেন। যদিও রাজনীতিবিদ বা আমলাদের ক্ষেত্রে এই সংখ্যাটা নগণ্য, তবু এই পরিবর্তন ধীর হলেও প্রগতিশীল।

About চার নম্বর প্ল্যাটফর্ম 952 Articles
ইন্টারনেটের নতুন কাগজ

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*